শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৭:২৬ অপরাহ্ন

Notice :

জাতি দুর্বৃত্তায়নের কবল থেকে মুক্তি চায়

ঘটনা এমন যে বোঝাই যায় নির্মাণ কাজে ত্রুটি আছে। বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে মানুষের মৃত্যুর সম্ভাবনা আছে। এরকম ক্ষেত্রে তার টানানোর কাজটি এরকম হতে হবে যে, যেনো তারটি ছিঁড়ে না যায় বা কোনও কারণে মানুষের মৃত্যুর কারণ না হয়ে ওঠে। এ কাজে শতভাগ নিরাপত্তার নিশ্চয়তা চাই। অন্যথায় বিদ্যুতায়নের সম্পূর্ণ কাজটিই ন্যায্যতা পেতে পারে না। কিন্তু এ দেশের উন্নয়ন-অবকাঠামো গড়ে তোলার কাজে দুর্বৃত্তায়ন এতটাই দখল নিয়ে বসেছে এবং এতটাই বেপরোয়া যে, আমজনতার পক্ষ থেকে কাজে অনিয়মের অভিযোগ ওঠলে সংশ্লিষ্টদের ধমক খেয়ে মিউয়ে যেতে হয়।
দেশের উন্নয়নতাত্ত্বিকরা, যারা দেশকে মধ্যমআয়ের দেশ বলে আখ্যায়িত করছেন, তারাও এবংবিধ উন্নয়নের হালহকিত দেখেশোনে বিব্রতবোধ করছেন। বিস্তৃত বিবরণ বিশ্লেষণের অবকাশ এখানে নেই। বিশ্লেষণের বদলে এখানে অনেক উদাহরণের মধ্যে একটি তোলে ধরছি, আর সেটা হলো, এই দেশে, রডের বদলে বাঁশ দিয়ে সরকারি ভবন নির্মাণের কাজ হয় এটাই সত্য। এমন দুর্বৃত্তায়ন সম্ভব না হলে রানাপ্লাজা-বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতে হতো না জাতিকে। সুনামগঞ্জের দৈনিকগুলোতে সংবাদ পড়তে হলোÑ ‘মধ্যনগরের রামদিঘা গ্রামে শোকের মাতম : বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেল একই পরিবারের ৪ জনের।’ বিষয় কী? সংবাদে বলা হল- বিদ্যুতায়িত তার ছিঁড়ে পড়ে গেছে মানুষের উপরে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়বে কেন? ত্রুটি কোথায়। কেন এই ত্রুটিকে এড়ানো গেলো না? এ দেশে কদিন আগে নির্মিত সেতু কেন ধ্বসে পড়ে?
প্রকৃতপ্রস্তাবে বাংলাদেশে রাষ্ট্রনির্মাণ, এর অর্থনীতি, রাজনীতি, সংস্কৃতির বিনির্মাণ অর্থাৎ এর পরিকাঠামো ও অবকাঠামো বিনির্মাণের ক্ষেত্রে প্রায় সর্বত্রই দুর্বৃত্তায়নের অনুপ্রবেশ ঘটেছে অপ্রতিহতরূপে, এই রাষ্ট্রের জন্মলগ্ন থেকে। দুর্বৃত্তায়নকে জাতিগতভাবে আমরা ঠেকাতে পারিনি।
বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা ও তাঁর দল রাষ্ট্রক্ষমতায়। তাঁর মতো দেশঅন্তপ্রাণ একজন মানুষের কাছে আমাদের দাবি এ দেশকে সার্বিক দুর্বৃত্তায়নের কবলমুক্ত করুন, সর্বাগ্রে স্বদলকে পরিশুদ্ধ করুন। তা না হলে, দুর্বৃত্তরা এই রাষ্ট্রের স্থপতিকে সপরিবারে হত্যা করেছে, তাঁর অবর্তমানে যেমন তাঁকে, হেয় করতে চেয়েছে, তাঁকে চিরতরে জাতির স্মৃতি থেকে মুছে দিতে চেয়েছে, তেমনি বাংলাদেশকে ১৯৭১-য়ের আগের রাষ্ট্রকাঠামোয় ফিরিয়ে নিয়ে যাবার চেষ্টা করবে। জাতি দুর্বৃত্তায়িত উন্নয়ন চায় না, বরং দুর্বৃত্তায়নের সংস্কৃতি থেকে মুক্তি চায়। লোকে এমন বিদ্যুতায়ন চায় না, যে বিদ্যুতায়ন প্রাণহরণ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী