শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

Notice :

সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় হিউম্যান রাইটস ফোরামের নিন্দা

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
তাহিরপুরে সাংবাদিককে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে হিউম্যান রাইটস ফোরাম বাংলাদেশ (এইচআরএফবি)। একইসঙ্গে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুততার সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। মঙ্গলবার ফোরামের সমন্বয়ক তামান্না হক রীতি সই করা বিবৃতিতে এই নিন্দা জানানো হয়।
বিবৃতিতে বলা হয়, সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার একটি নদীর তীর কেটে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ছবি তুলতে গিয়ে স্থানীয় সাংবাদিক কামাল হোসেন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে একজন সাংবাদিককে এভাবে নির্যাতন ও হেনস্তা করা অত্যন্ত গর্হিত অপরাধ। হিউম্যান রাইটস ফোরাম বাংলাদেশ (এইচআরএফবি) এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে ফোরাম সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তসাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণেরও আহ্বান জানাচ্ছে।
বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ১ ফেব্রুয়ারি দুপুরে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের যাদুকাটা নদীর ঘাগটিয়া এলাকায় সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিক কামাল হোসেনকে মারধর করে একটি গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। এতে তাঁর মুখ, মাথা, কপালসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত জখম হয়েছে। পরবর্তী সময়ে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখার ভিডিও গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। তিনি দৈনিক সংবাদ ও সিলেট থেকে প্রকাশিত দৈনিক শুভ প্রতিদিনের তাহিরপুর উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন।
ফোরাম মনে করে, তাহিরপুরের এ ঘটনাকে কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবে দেখার অবকাশ নেই। এ ধরনের ঘটনাগুলো সাংবাদিকদের স্বাধীন ও নির্ভীকভাবে পেশাগত দায়িত্ব পালন, সর্বোপরি গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সংকুচিত হওয়ার ক্ষেত্র তৈরি করে। আমরা সবাই অবগত যে, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে বিবেচিত গণমাধ্যম একটি রাষ্ট্রের প্রতিবিম্ব হিসেবে কাজ করে। সমাজের নানা স্তরে অন্যায়, ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, অবিচার বা আইনের শাসন ও জবাবদিহিতার ঘাটতি সংক্রান্ত সংবাদগুলো তুলে ধরে সুশাসন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমকর্মীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। কিন্তু ফোরাম অত্যন্ত দুঃখজনকভাবে লক্ষ্য করছে, দেশে গণমাধ্যমকর্মীরা প্রায়শ নানা নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রে এসব ঘটনার সাথে জড়িতদের কার্যকর বিচার নিশ্চিত হচ্ছে না। ফলে বিচারহীনতার বিরাজমান সংস্কৃতি দুবৃর্ত্তদের বেপরোয়া আচরণের ক্ষেত্রকে আরও বেশি প্রশস্ত করছে।
ফোরাম সচিবালয় আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এর তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে ২৪৭ জন সাংবাদিক নানা নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হয়েছেন। ২ সাংবাদিককে হত্যা করা হয়। এ অবস্থায় কামাল হোসেনসহ সাংবাদিকদের ওপর নির্যাতনের প্রতিটি ঘটনার সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও দ্রুত তদন্ত নিশ্চিত করে যথাযথ বিচার ও শাস্তি নিশ্চিত করার জোর দাবি জানাচ্ছে ফোরাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী