মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন

Notice :

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের মানববন্ধন : সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধের দাবি

স্টাফ রিপোর্টার ::
দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা-নির্যাতন বন্ধ এবং ডা. প্রিয়াংকা তালুকদার শান্তার হত্যাকারীদের বিচার দাবিতে সুনামগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার সকালে শহরের আলফাত স্কয়ারে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, সুনামগঞ্জ জেলা শাখার প্রচার সম্পাদক অ্যাড. অনুপ কুমার ধর-এর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি দীপক চন্দ্র ঘোষ, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নৃপেশ তালুকদার নানু, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক অ্যাড. মলয় চক্রবর্ত্তী রাজু, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিম-লীর সদস্য অভিজিৎ চৌধুরী, কাজল কুমার দে, উপদেষ্টা কমিটির সদস্য অ্যাড. নগেন্দ্র কুমার তালুকদার, আইন সম্পাদক অ্যাড. রাধাকান্ত সূত্রধর, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি অ্যাড. বিমান কান্তি রায়, সাধারণ সম্পাদক বিমল বণিক, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দিলীপ কুমার তালুকদার, পূজা উদযাপন পরিষদ সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক বিপ্রেশ রায় বাপ্পী, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ সদর উপজেলা শাখার আহ্বায়ক চন্দন কুমার দাস, কেন্দ্রীয় দুর্গাবাড়ি মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুবিমল চক্রবর্তী চন্দন, বাংলাদেশ যুব ঐক্য পরিষদ, সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর চঞ্চল কুমার লোহ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘বাংলার হিন্দু, বাংলার খ্রিস্টান, বাংলার বৌদ্ধ, বাংলার মুসলমান আমরা সবাই বাঙালি’ এই কথা শুধু পোস্টারেই থেকে গেল, বাস্তব হয়নি। সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটলেই অনেক সভা হয়, মানববন্ধন হয়, প্রচারপত্র বিতরণ করা হয়, কিন্তু সংখ্যালঘুদের মনে সাহস জাগানো হয় না। ১৯৪৬ সাল থেকে শুরু করে ইতিহাসের বিভিন্ন পর্বে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বাস্তবায়ন করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে যে বাংলাদেশ অর্জিত হয়েছিল, সেই বাংলাদেশ ফিরিয়ে আনতে হবে। সংখ্যালঘু নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচার করতে হবে। সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধে রাষ্ট্র ক্ষমতা ব্যবহারের বিকল্প নেই।
বক্তারা আরো বলেন, অ্যাডভোকেট পলাশ রায়কে হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। তাছাড়া সাংবাদিক প্রবীর সিকদারের ফরিদপুরের বাসায় হামলা, সুলতানা কামাল, শাহরিয়ার কবীর, মুনতাসীর মামুনকে হত্যার হুমকি, প্রিয়া সাহা’র বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানান বক্তারা। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক ও উস্কানীমূলক বক্তব্যের নিন্দা জানানো হয়।
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের উপদেষ্টা অ্যাড. মলয় বিকাশ চৌধুরী, বিকাশ কান্তি চৌধুরী ভানু, প্রভাত রঞ্জন শর্ম্মা, চন্দন কুমার রায়, প্রদীপ চৌধুরী আঁচল, বিজন রায়, সুমন সাহা, গোষ্ঠ আচার্য্য, বিভাস দেব, স্বপন কুমার সরকার, জ্যোতির্ময় তালুকদার ঝন্টু, বিজন কান্তি দেব, দিপায়ন সরকার, মনিকাঞ্চন দাস, কালীকুমার তালুকদার, উত্তরণ দাস জয়, প্রদীপ কুমার দাস, প্রহল্লাদ দাস, সীতেশ রঞ্জন দাস, গিরেন্দ্র দাস, অতুল কুমার চন্দ, সুমন বণিক, প্রদীপ বণিক, সিদ্ধার্থ এষ বলাই, সন্তোষ দাস, পিন্টু বণিক, জয়ন্ত তালুকদার, দীপন দেব প্রমুখ। এছাড়াও রামকৃষ্ণ আশ্রম পরিচলনা কমিটি, লোকনাথ মন্দির, ইসকন সুনামগঞ্জ, সৎসঙ্গ বিহার, দুর্গাবাড়ি মন্দির পরিচালনা কমিটি, কালীবাড়ি মন্দির পরিচালনা কমিটি, জগন্নাথবাড়ি মন্দির পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের জনগণ মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী