বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন

Notice :

ডা. শান্তার মৃত্যু রহস্য উদ্ঘাটনে নিরপেক্ষ তদন্ত চাই

গতকালের দৈনিক সুনামকণ্ঠের শীর্ষশিরোনাম ছিল, ‘সুনামগঞ্জের মেয়ে ডা. শান্তার রহস্যজনক মৃত্যু’। যে-কোনও স্বাভাবিক মৃত্যুই মানুষের জন্য একটি শোকাবহ ঘটনা। মৃত্যু মানুষকে ভাবায়। অস্বাভাবিক, রহস্যজনক, কিংবা নির্মম মৃত্যু আরও বেশি করে ভাবায়। কিন্তু যখন মানুষের মৃত্যু মানুষের হাতে সংঘটিত হয় এবং তার পেছনে থাকে কোনও না কোনও চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র, হিং¯্র পরিকল্পনা তখন সুস্থ মানসিকতার মানুষ বিচলিত বোধ করেন। শান্তার মৃত্যুটি স্বাভাবিক মৃত্যু নয়, তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে সন্দেহ পোষণ করা হচ্ছে। এই মৃত্যুটি আমাদেরকে বিচলিত ও বিব্রত করছে।
শান্তা একজন প্রতিষ্ঠিত ডাক্তার, স্বাবলম্বী একজন নারী। তাঁর স্বামী একজন স্থপতি। দু’জনই উচ্চশিক্ষিত। এমন দম্পতির কী এমন সমস্যা হতে পারে যে, একজন আর একজনকে হত্যা করবেন কিংবা অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে কোনও একজন আত্মহত্যা করবেন? সমাধান অযোগ্য পারিবারিক সমস্যা হলে তাঁরা পরিবারের অন্যান্যদের থেকে আলাদা থাকতে পারতেন বা নিজেদের মধ্যে সমস্যা হলে একে অন্যের থেকে পৃথক হয়ে গেলেই হতো। মৃত্যু তো দাম্পত্য সমস্যার কোনও সমাধান হতে পারে না। অথচ মৃত্যুটা অনিবার্য হয়ে দেখা দিয়েছে শান্তার জীবনে। আমরা কোনও যুক্তিতেই এই মৃত্যুকে মেনে নিতে পারছি না, সুস্থ বোধবুদ্ধির কোনও মানুষই তা পারবেন না।
আমরা জানি আমাদের সমাজ উচ্চ সামাজিক-সাংস্কৃতিক বোধের দিক থেকে এখনও অনেকটাই পশ্চাৎপদ স্থানে অবস্থান করছে। এখানে সমাজ পাশ্চাত্য সমাজের মতো এতোটা মুক্তমনা হয়ে পড়িনি যে, বিবাহবহির্ভূত জীবন যাপনে নারী-পুরুষ উভয়ে স্বাভাবিকমাত্রায় অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি বা পাশ্চাত্যে যেমন ‘সিঙ্গল মাদার’ একটি স্বাভাবিক প্রপঞ্চ, আমাদের সমাজটা তেমন হয়ে গেছে। বরং এখানে বিষয়টা সম্পূর্ণ উল্টো। এখানে নারী-পুরুষের শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টির পরিসরে স্বাধীনতার কোনও অবকাশ নেই। এখানে নারী কোনও না কোনও পরিবারের গ-িতে তার জীবনের গাঁটছড়া বাঁধতে অনিবার্যভাবে বাধ্য হন। তদুপরি ভুলে গেলে চলবে না যে, সমাজটা পুরুষতান্ত্রিক। পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একটি বৈশিষ্ট্য হলো, সেখানে একা কোনও নারীর অস্তিত্ব কল্পনাতীত। এই পরিপ্রেক্ষিতে নারীর উপর সমাজের পক্ষ থেকে আরোপিত অত্যাচার, নির্যাতন, উৎপাত এককথায় নারীনিগ্রহ আনাদিকাল থেকে চলে আসছে এবং ক্ষেত্র বিশেষে পরিবারের পরিসরে এই নির্যাতন মাত্রা অতিক্রম করে হত্যা পর্যন্ত গড়ায়। শান্তার মৃত্যু পুরুষতান্ত্রিকতার খপ্পরে পড়ে সংঘটিত হয়েছে কি-না আমরা আপাতত অবগত নই। আমরা কেবল আশা করছি তাঁর মৃত্যুর কারণ নিরপেক্ষ তদন্তপূর্বক নিশ্চিত করা হোক এবং যদি প্রমাণ হয় যে, তাঁর মৃত্যুটি অস্বাভাবিক এবং তার সঙ্গে হত্যা করার চক্রান্ত জড়িত আছে তবে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দানের ব্যবস্থার দাবি জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী