1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৪:১৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

সুরমা ইউনিয়নে অসহায় নারীর বাড়ি দখলের চেষ্টা : মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি

  • আপডেট সময় শনিবার, ৬ জুলাই, ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের হালুয়ারগাঁও গ্রামে কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ব্যবসা বাড়াতে স্কুলের পাশের পুরাতন বাসিন্দা বিধবা মনসাদ বেগমকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সদ্য জায়গা কিনে মালিক হওয়া পাশের প্লটের মালিক ও বেরীগাঁও গ্রামের মৃত হযরত আলীর ছেলে মনির হোসেন ও তার স্বজনেরা। মনসাদ বেগম শুক্রবার দুপুরে এমন অভিযোগের কথা জানান। তিনি জানমালের নিরাপত্তা চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।
অভিযোগ থেকে জানাযায়, মনির হোসেন সদর মডেল থানা ও আদালতে একাধিক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে হয়রানি করে যাচ্ছেন মৃত শাহজাহান মিয়ার স্ত্রী অসহায় মনসাদ বেগমকে।
শুক্রবার দুপুরে মনসাদ বেগম (৭০) জানান, দীর্ঘদিন যাবত তার বাড়ির জায়গা দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মনির হোসেন গংরা। এক শুক্রবার বিকাল বেলায় তার ৭ বছরের এক নাতি খেলার সাথীদের নিয়ে যখন স্কুলের বারান্দায় ২/১টি পলিথিনের টুকরো দিয়ে আগুন জ্বালায়, তখন মনসাদ বেগম গিয়ে নিভিয়ে দেন। এই খবর পেয়ে স্কুলের মালিক মনিরের হুকুমে দায়িত্বে থাকা একই গ্রামের মজু মিয়ার ছেলা মো. হাসান (২০) নামের একজন এসে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। পরে আলাল মিয়ার ছেলে আলম (২২) ও হাবিব (২৮), জব্বার মিয়ার ছেলে মজু মিয়া (৫৫) এসে মনসাদ বেগমকে গলায় টিপে ধরে এবং লাথ-ঘুষি দেয়। এ সময় মারামারি থেকে ফিরাতে আসা তার ছেলের বউ হালেমা বেগমকেও বেধড়ক পিটুনি দেয় তারা। এক পর্যায়ে মনসাদ বেগমের বসতঘরের বারান্দা তাদের দাবি করে কুদাল ও সাবল দিয়ে কেটে নেয়ার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয়রা বাধা দেন এবং আহত মনসাদ বেগম ও হালেমা বেগমকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।
মনসাদ বেগম জানান, এই ঘটনার পর স্থানীয় ইউপি সদস্য, চেয়ারম্যান ও কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিকে বিষয়টি অবগত করে ন্যায়বিচার চান। কিন্তু মনির হোসেন এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় সালিশ না মেনে বরং সদর মডেল থানায় ও আদালতে উল্টো মিথ্যা অভিযোগ দাখিল করে পুলিশ নিয়ে আসেন বাড়িতে। তখন পুলিশের সামনে কাউকে সত্য কথা বলতে দেয়া হয়নি।
তিনি আরও জানান, মনির হোসেন গংরা মনসাদ বেগমের পরিবার সদস্যদের ভিটে থেকে উচ্ছেদের এবং প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে প্রতিনিয়ত। অবশেষে তিনি প্রাণে বাঁচতে আদালতের শরণাপন্ন হয়ে সম্প্রতি অভিযোগ দাখিল করেন। তিনি জানমালের নিরাপত্তা চেয়ে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক ন্যায়বিচারের দাবি জানিয়েছেন।
অভিযুক্ত ব্যক্তি মনির হোসেন বলেন, স্কুলের বারান্দায় আগুন লাগার ঘটনা আমি সাথে সাথে শুনেছি। আগুন লাগানো খুবই অপরাধ। মনসাদ বেগমকে মেরেছে এটাও অপরাধ। ঘটনাটি সালিশে শেষ করতে সবাই চেষ্টা করেছেন। পরে আর শেষ হয়নি।
ইউপি সদস্য ফিরোজ মিয়া বলেন, মনসাদ বেগমের সাথে আগুনের ঘটনা নিয়ে মারামারি এই বিষয়ে আমি জানি। কিন্তু কেউ কথা শুনে না। তারা দুই পক্ষ ন্যায়বিচার পেতে আদালতে গেছে।
সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজা বলেন, মনসাদ বেগমকে মারামারির এই ঘটনা নিয়ে আমি কয়েকবার বসেছি। কিন্তু মিমাংসা হয়নি। এখন উভয় পক্ষ আদালতে অভিযোগ করেছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com