1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১০:১২ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

বন্য হাতির তা-বে ফসলের ক্ষতি, সীমান্তবর্তী গ্রামে আতঙ্ক

  • আপডেট সময় শনিবার, ৬ জুলাই, ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার ::
সীমান্তবর্তী উপজেলা তাহিরপুরে বন্য হাতির উৎপাত ফের শুরু হয়েছে। এতে সীমান্তবর্তী গ্রামগুলোতে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের লাউড়েরগড় শাহিদাবাদ বর্ডারহাট সংলগ্ন দশঘর গ্রামে বন্য হাতির তা-বে প্রায় ৫ শতাধিক পরিবারের একশত বিঘা জমির ফসল নষ্ট হয়েছে।
ভুক্তভোগীরা জানান, প্রায় মাস দেড়েক ধরে ছোট-বড় হাতির পাল রাতের আঁধারে ভারতীয় সীমান্তের কাঁটাতার মাড়িয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। তারা তা-ব চালিয়ে রোপা-আমন ধানের বীজ তলা, ৫০ বিঘা জমির আখ ও ভুট্টা ক্ষেতের ক্ষতি করেছে।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন স্থানীয় জনপ্রতিনিধির দ্বারস্থ হয়ে সুনামগঞ্জ বন বিভাগের কর্মকর্তাদের অবহিত করলে তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভুক্তভোগীদের ফসলের ক্ষতি পূরণ দেওয়ার জন্য আশ্বস্ত করেছেন।
ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক নজরুল ইসলাম জানান, এই ফসলের উপর আমাদের একমাত্র ভরসা। প্রায় মাস দেড়েক যাবৎ বন্য হাতিগুলো প্রতিরাতেই সীমান্ত অতিক্রম করে। এরা আমার প্রায় ৫ একর জমির ফসল নষ্ট করে ফেলেছে। উপজেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে সিলেট বিভাগীয় বন বিভাগের শরণাপন্ন হওয়ার পরও অবশিষ্ট ফসল রক্ষা করতে পারছি না।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদ জানান, রাত জেগে পাহারা দিয়েও আমাদের ফসল রক্ষা করতে পারছি না। প্রশাসনের লোকজনের সঙ্গে বার বার যোগাযোগ করার পরও কোন প্রতিকার পাচ্ছি না। ভারতীয় বন্য হাতির উপদ্রব বন্ধ করতে না পারলে আমাদের অবশিষ্ট ফসলগুলো রক্ষা করতে পারব না।
কৃষক মফিজ উদ্দিন জানান, বন্য হাতি ফসল খেয়ে নষ্ট করে। এছাড়া আমার বসতবাড়িতে এসে কাঁঠাল বাগানে ঢুকে প্রায় ১৫/২০টি কাঁঠাল খেয়েছে। এক পর্যায়ে তারা আমার একটি খালি বসতঘর ভেঙে ফেলেছে। বর্তমানে আমাদের জানমালের নিরাপত্তা নেই।
স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক জামাল উদ্দিন আজাদ জানান, প্রায় মাস দেড়েক যাবৎ ভারতীয় বন্য হাতির উপদ্রব বেড়েছে। হাতিগুলো ফসল খেয়ে পা দ্বারা নষ্ট করে। এছাড়া বসতবাড়ির গাছপালা ভেঙে ফেলে। টিনের বেড়ায় আঘাত করে মানুষের মাঝে আতঙ্কের সৃষ্টি করছে। আমি উপজেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে বিভাগীয় কমিশনার পর্যন্ত বিষয়টি জানিয়েছি কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। এভাবে যদি প্রতিরাতেই আমাদের ফসলহানির ঘটনা ঘটে, তাহলে এই এলাকার লোকজনের দুর্দশার সীমা থাকবে না। এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দ্রুত পদক্ষেপ কামনা করছি।
সুনামগঞ্জ রেঞ্জ ও বন কর্মকর্তা মো. সাদ উদ্দিন আহমদ জানান, ঘটনার পরপরই আমি সেখানে লোকজন পাঠিয়েছি। যে যে কৃষকের ফসলের ক্ষতি হয়েছে, তাদের কাছে ক্ষতি পূরণের ফরম দেওয়া হয়েছে এবং তাদেরকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে যেন বন্য হাতির উপর কোন ধরনের আক্রমণ করা না হয়।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা পারভীন বলেন, বন্য হাতির উপদ্রবে কৃষকের ব্যাপক ফসলহানি হয়েছে। তাই আমি ইউপি চেয়ারম্যানকে বলে দিয়েছি এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com