1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

পরিবর্তন হচ্ছে নীতিমালা, পর্তুগালে বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীদের দুঃসংবাদ

  • আপডেট সময় বুধবার, ৫ জুন, ২০২৪

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
শিগগিরই ইউরোপের পর্তুগালে অভিবাসন নীতিমালা পরিবর্তন হতে যাচ্ছে। যা নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন অভিবাসন প্রত্যাশীরা। ভ্রমণ ভিসায় কিংবা অন্য কোন পদ্ধতিতে পর্তুগালে এসে অভিবাসন সুবিধা নেয়ার পথ বন্ধ হবে এই নীতিমালা কার্যকর হলে। অভিবাসন ইস্যুতে ৪১টি প্রস্তাব কাউন্সিলর মিনিস্টাররা পাস করার পর সোমবার (০৩ জুন) রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের জন্য তা পাঠানো হয়। এ বিষয়টি উঠে এসেছে দেশটির প্রভাবশালী গণমাধ্যমে।
এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী লুইস মন্টিনেগ্রো বলেছেন, পর্তুগালের দরজা বন্ধ হচ্ছে না। তবে যেরকম অরক্ষিত ছিলো এখন আর সেরকম থাকবে না। ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় পর্তুগাল আসা যাবে, তবে থাকতে হবে কাজের কন্ট্রাক্ট ও আবাসনের নিশ্চয়তা। চাকরি বা নিয়োগ দেয়া কো¤পানি বা প্রতিষ্ঠানগুলোকেও কড়া নির্দেশনা দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন পর্তুগিজ প্রধানমন্ত্রী।
এতদিন ভ্রমণ ভিসায় কিংবা অন্য কোনভাবে পর্তুগালে এসে কাজের চুক্তি করলে মিলতো বৈধ হবার সুযোগ। এ কারণে অনুন্নত দেশ থেকে অভিবাসন প্রত্যাশীদের ভিড় পর্তুগালে। বাংলাদেশিরাও ইউরোপের এই দেশটিতে আসছে নাগরিকত্ব পাওয়ার আশায়।
তবে ইতিমধ্যেই যারা বৈধ হওয়ার জন্য অভিবাসন ও ইমিগ্রেশন সংস্থায়- সেফ এন্ট্রি করে ফেলেছেন তাদের আতংকিত হবার কিছু নেই বলে জানিয়েছেন পর্তুগাল বাংলাদেশ ফ্রেন্ডসশিপ এসোসিয়েশনের সভাপতি রানা তসলিম উদ্দিন। তিনি বলেন, যারা সেফ এন্ট্রি করেছেন তাদের কার্যক্রম পূর্বের নিয়মেই চলমান থাকবে।
পর্তুগালে অতিরিক্ত অভিবাসী প্রত্যাশী হওয়ায় বাসস্থান ও কর্মসংস্থান সংকট দেখা দিয়েছে। এ কারণে দেশটির সরকার অভিবাসন নীতিমালায় এই পরিবর্তন আনছে।
এছাড়াও অভিবাসন বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের চাপ রয়েছে। সেনজেনভুক্ত একটি দেশের ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে পর্তুগালে এসেছেন তুহিন মাহমুদ। তার প্রত্যাশা ছিলো পর্তুগালে অভিবাসন সুবিধা গ্রহণ করবেন। তবে নীতিমালা পরিবর্তনের ফলে বিপাকে পড়েছেন তিনি। তার মতো ইতিমধ্যে যারা পর্তুগালে এসে সেফ এন্ট্রি করতে পারেননি তাদের অনেকেই অনিশ্চয়তায় পড়েছেন।
নতুন এ প্রস্তাবে অদক্ষ কর্মীর পরিবর্তে মেধাবী শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন খাতে দক্ষ পেশাজীবীদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি হবে। ভোগান্তি কমবে পর্তুগালে বসবাসরত নাগরিকদের পরিবারের সদস্যদের পর্তুগাল আসাসহ অন্যান্য ইস্যুতেও। সেই সঙ্গে বিভিন্ন দেশে থাকা পর্তুগালের কনস্যুলেটগুলোর কার্যক্রম আরও গতিশীল করার বিষয়টিও উঠে এসেছে নতুন প্রস্তাবে।
অন্য দেশের ভিসা নিয়ে পর্তুগাল এসে রেসিডেন্স পারমিটের আবেদন করতে পারবে না শিক্ষার্থীরা। তবে নিজ দেশে পর্তুগীজ কনস্যুলেট থেকে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে আসা যাবে। নতুন এ প্রস্তাবে- সুযোগ বাড়বে পর্তুগিজ ভাষাভাষী বা সিপিএলপি দেশের অভিবাসীদের। সিপিএলপি দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য রাখা হচ্ছে বৃত্তির ব্যবস্থাও। পড়াশোনা শেষ না করে কোন শিক্ষার্থী রেসিডেন্স স্ট্যাটাস চেঞ্জ করতে পারবে না এমন বিষয়ও রয়েছে নতুন প্রস্তাব।
এদিকে, এরইমধ্যে বৈধ হওয়ার অপেক্ষায় থাকা অভিবাসীদের কাছ থেকে ৩০ মিলিয়ন ইউরো সংগ্রহ করে সরকারি কোষাগারে জমা করেছে পর্তুগালের অভিবাসন সংস্থা আইমা। এখনো ৪ লাখের বেশি আবেদনের নি®পত্তি করতে কাজ করছে সংস্থাটি। দ্রুত এসব আবেদনের নি®পত্তি করা হবে বলে জানিয়েছেন- পর্তুগিজ প্রধানমন্ত্রী।
তবে পর্তুগালে কেউ অমানবিকতার শিকার হবে না বলেও আশ্বস্ত করেছে প্রধানমন্ত্রী লুইস মন্টিনেগ্রো। সরকারের এমন সিদ্ধান্ত আসার পরপরই নতুন করে আবেদন বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলেও ধারণা করছে অভিবাসন প্রত্যাশীরা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com