1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০২:৩৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেননি বিএনপি’র বহিষ্কৃত ৭ প্রার্থী

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০২৪

বিশেষ প্রতিনিধি ::
সুনামগঞ্জের দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির বহিষ্কৃত সাত প্রার্থীর ভরাডুবি হয়েছে। তারা বিজয়ী প্রার্থীদের মোট ভোটের চেয়ে অনেক কম ভোট পেয়েছেন। অনেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়ে তুলতে পারেননি। কেউ কেউ জামানতও হারিয়েছেন। তবে পরাজিত প্রার্থীরা বলেছেন বিএনপির তৃণমূলের সাধারণ কর্মীরা তাদেরকে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু কালো টাকার কাছে তারা হেরেছেন।
জামালগঞ্জে উপজেলা বিএনপির সভাপতি নূরুল হক আফিন্দী আনারস প্রতীক নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীমের মোটর সাইকেল প্রতীকের কাছে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন। শামীম ২৮ হাজার ৯০৩ ভোট পেয়েছেন। নূরুল হক আফিন্দী পেয়েছেন ১৩ হাজার ৮৪৫ ভোট। ১৫ হাজার ৫৮ ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন তিনি। এই উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক বহিষ্কৃত নেতা আব্দুল্লাহ আল মামুন তালুকদার সাংবাদিক আকবর হোসেনের মাইক প্রতীকের কাছে হেরেছেন ১০ হাজার ৩৮৪ ভোটের ব্যবধানে। আকবর হোসেন ২৫ হাজার ২৬৯ ভোট পেয়েছেন, মামুন পেয়েছেন ১৪ হাজার ৮৮৫ ভোট।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সভাপতি হারুনুর রশিদ হেলিকপ্টার প্রতীকে ১১ হাজার ৬২২ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন। আওয়ামী লীগের উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম তালুকদার ১৬ হাজার ১৯২ ভোট পেয়েছেন। দ্বিতীয় হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার বর্মণ। এই উপজেলায় কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক নেতা মোহন মিয়াকেও বহিষ্কার করেছিল বিএনপি। তিনিও তৃতীয় হয়েছেন। এই উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন মহিলা দলের আহ্বায়ক মদিনা আক্তারকেও বহিষ্কার করেছিল বিএনপি। তিনি যুবলীগ নেত্রী মরিয়ম জান্নাতের কাছে ১৮ হাজার ২৭৪ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন। মরিয়ম পেয়েছেন ২৩ হাজার ৮০৬ এবং মদিনা আক্তার পেয়েছেন ৫ হাজার ৫৩২ ভোট।
তাহিরপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি আবুল কাশেম প্রার্থী হওয়ায় বহিষ্কার হন। আবুল কাশেম মাত্র ৪ হাজার ৪৬০ ভোট পেয়ে চতুর্থ হয়েছেন। এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা মো. আফতাব উদ্দিন। তিনি ৩৭ হাজার ৪৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।
ধর্মপাশায় উপজেলা বিএনপির বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাইফুল ইসলাম চৌধুরী চেয়ারম্যান পদে জামানত হারিয়েছেন। তিনি মাত্র ২ হাজার ৬৬ ভোট পেয়েছেন। এভাবে চারটি উপজেলার কোনটিতেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তোলতে পারেননি বিএনপি’র বহিষ্কৃত প্রার্থীরা।
জামালগঞ্জের পরাজিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মামুন তালুকদার বলেন, কেবল তৃণমূল বিএনপিই নয়, সব মানুষই আমাকে ভোট দিয়েছে। তবে ভোটের প্রতি মানুষের এক ধরনের অনীহার কারণে অনেক ভোটারই কেন্দ্রে আসেননি। তারা আসলে আমি আরো বেশি ভোট পেতাম।
রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম বলেন, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়েছে। কোন প্রার্থীই নির্বাচন নিয়ে অসন্তুষ্ট নন। ভোটার উপস্থিতিও ভালো ছিল।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com