1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে আগে সমাজটাকে প্রগতিশীল হতে হবে

  • আপডেট সময় সোমবার, ২০ মে, ২০২৪

‘আজকের প্রজন্ম শিক্ষায় এগিয়ে গেলে দেশ আরও উন্নত হবে’। কথাটা বলেছেন একজন সাবেক মন্ত্রী। গত রবিবারের (১৯ মে ২০২৪) গণমাধ্যমে (দৈনিক সনামকণ্ঠ) তাঁর এই কথাটিকে গুরুত্ব দিয়ে সংবাদপ্রতিবেদনের শিরোনাম করা হয়েছে। মানুষ শিক্ষিত হলেই দেশ উন্নতির চূড়া স্পর্শ করবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। এই অভিমতের সঙ্গে আমরা একমত এবং বিদগ্ধমহলও তাতে নির্দ্বিধায় সমর্থন করেন। কিন্তু এই সত্যটি বাস্তবায়িত করা সত্যিই খুব কঠিন। তিনি (এমএ মান্নান এমপি) তাঁর মতো করে বলেছেন, ‘[…] আজকের প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা যখন শিক্ষায় দীক্ষায় এগিয়ে আসবে। স্বাভাবিকভাবে দেশ আরও উন্নত হবে। আমরা উন্নতি চাই, উন্নয়ন চাই। এর জন্য পরিশ্রম করা দরকার। শিক্ষাদীক্ষার মাধ্যমে আপডেট হতে হবে। আমরা অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানাতে চাই। […] আধুনিক বিজ্ঞানসম্মত রাষ্ট্র গঠনে অবদান রাখবো।”
তাঁর মতের সঙ্গে আমাদের কোনও বিরোধ নেই, বরং বাস্তবায়ন চাই। কিন্তু তাঁর বিজ্ঞানসম্মত উন্নয়নের চিন্তা বাস্তবায়িত হওয়ার পথে অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে আামদের সমাজসাংস্থিতির রন্ধ্রে রন্ধ্রে, সেগুলোকে প্রতিহত করতে না পারলে রাষ্ট্রের নাগরিক কেউই অনেকেই ‘আপডেট’ হবে না। এই তো ক’দিন আগে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় গেলে কেউ কেউ ‘ধর্ম গেল’ বলে দারুণ চেচিয়েছে, যেমন পাকিস্তান আমলে ‘ধর্ম গেল’ বলে স্বাধীনতা সংগ্রামের বিরুদ্ধে চেচিয়েছিল এবং শেখ হাসিনার ক্ষমতায়নের দশক দুয়েক পরেও যখন ধর্ম গেল না, তখন ‘দেশটা ভারতের অঙ্গরাজ্য হয়ে গেছে বলে আফসোস করে এবং ধর্ম কায়েমের ইরাদা করে জঙ্গি তৎপরতা চালাতে জঙ্গলে চলে যায়। সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের সর্বোচ্চ উপাধি অর্জন করেও বিজ্ঞানমনস্ক হয়ে উঠে না। বিদগ্ধমহলের মতের সঙ্গে একমত হয়ে আমরা কেবল বলতে চাই : মানুষকে শিক্ষা দিতে হবে নিখরচায় এবং সেটা হবে প্রগতিশীল। শরিফার গল্প বাদ দিলে চলবে না, যেমন ইতোমধ্যে একদা পাঠক্রম থেকে বিজ্ঞানমনস্ক মানুষ তৈরির পক্ষে সহায়ক পাঠ বাদ দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে শিক্ষাঙ্গনকে করতে হবে দলীয় রাজনীতি ও সন্ত্রাস থেকে মুক্ত। ছাত্ররা রাজনীতি করবে শিক্ষার উন্নয়নের জন্যে, দেশ ও মানুষের মঙ্গলের জন্য। ছাত্ররাজনীতি কোনও রাজনীতিক দলের লেজুড়বৃত্তি করবে না। তাছাড়া মেধা পাচারের বিষয়টিকে প্রতিরোধ না করে দেশের ভেতরে শিক্ষার বিস্তার ঘটিয়ে আসলে কী লাভÑ যদি মেধাবীরা বিদেশে চলে যায়, দেশের জন্যে কাজ করার জন্যে থেকে যায় নাÑ সে বিষয়েও ভাবতে হবে।
স্মার্ট বাংলাদেশ বলতে যদি বিশ্বায়নের পরিসরে চৌকস দেশ বলে ঠাওরে নেয়া হয় তা হলে মনে রাখতে হবে নাগরিকদেরকে প্রগতিশীল চিন্তার অধিকারী করা না গেলÑ কিংবা সমাজটাকে প্রগতিশীল করে গড়ে তোলতে না পারলেÑ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া সম্ভব হবে না।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com