1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:০২ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

হাসপাতালে ‘বেড়ায় ধান খায়’ অবস্থা প্রসঙ্গে

  • আপডেট সময় শনিবার, ১৮ মে, ২০২৪

সুনামগঞ্জ থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিক পত্রিকায় একটি সংবাদপ্রতিবেদনের শিরোনাম করা হয়েছে, “সদর হাসপাতালের চিকিৎসার মান নিয়ে ক্ষুব্ধ বিভাগীয় কমিশনার”। সংবাদপ্রতিবেদনের শুরুতেই বলা হয়েছে, “সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে রোগীরা উন্নত চিকিৎসা না পেয়ে দালালের দৌরাত্ম্যে প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার আবু আহমদ সিদ্দিকী। এসময় তিনি শহরের প্রাইভেট হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোতে দালালের দৌরাত্ম্য বন্ধের জন্য অভিযান চালিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।” এবং তিনি বলেছেন, “অসহায় হতদরিদ্র মানুষকে চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তির জন্য সরকারি অনুদান প্রদান করা হয়। অনুদান নেওয়ার পরে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা না নিয়ে সিন্ডিকেট চক্রের ফাঁদে পড়ে প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে চিকিৎসা নিচ্ছে। এতে চিকিৎসা সেবা নিতে গুণতে হচ্ছে বাড়তি টাকা। এসব বিষয়ে খোঁজখবর রাখা দরকার। দালালের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে না পারলে সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা যাবে না।”
তাঁর বক্তব্য শেষ পর্যন্ত সিভিল সার্জনকে ‘এসব বিষয়ে অবহিত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া’র প্রয়োজনকে নির্দেশ করে।
এ বিষয়ে বিদগ্ধ মহলের অভিমত এই যে, হাসপাতালে ‘বেড়ায় ধান খায়’ অবস্থা বিরাজ করছে। তাঁদের প্রশ্নশঙ্কুল অভিমত এই যে, ‘এসব বিষয়’ অর্থাৎ সরকারি হাসপাতালে অসহায় হতদরিদ্র মানুষ চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না, সিন্ডিকেটের ফাঁদে পড়ে প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে চিকিৎসা নিতে বাধ্য হচ্ছে, হাসপাতালে দালালের দৌরাত্ম্য বিদ্যমান ইত্যাদি বিষয়ে সিভিল সার্জনকে অবহিত করতে হবে কেন? যদি অবহিত করতেই হয়, তাহলে তিনি তার আসনে বসে কী দায়িত্ব পালন করেন? এমন প্রশ্ন উঠতেই পারে। এমনকি এই পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণ মানুষের মনে সন্দেহ উদ্রেক হতে পারে যে, তার জ্ঞাতসারেই এসব ঘটছে। তখন তার কী করার থাকবে? আসলে সত্য তো এটাই যে, হাসপাতালকে ঘিরে চলা এসব অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিকার-প্রতিবিধান করা তো তার দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে কিন্তু তিনি তার দায়িত্ব পালন করছেন না, অর্থাৎ দায়িত্ব পালনে তার অবহেলা আছে।
জানা কথা, আমাদের দেশ প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার পরিসরে এমন এক পর্যায়ে এসে উপনীত হয়েছে যে, উপস্থিত সময়ে উচ্চপর্যায়ের কোনও নির্দেশ নি¤œ পর্যায়ে যথারীতি বাস্তবায়িত হয় না, বরং কার্যক্ষেত্রে দায়িত্বে অবহেলার সংস্কৃতি বজায় থাকার কারণে হিতে বিপরীত পরিস্থিতির আবির্ভাব ঘটে। এমন পরিস্থিতিকে স্বীকার করে নিয়েই আমরাও ক্ষোভ প্রকাশ করছি এবং সেইসঙ্গে বিভাগীয় কমিশনারের নির্দেশনা কার্যক্ষেত্রে বাস্তবায়ন হবে এই আশা পোষণ করছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com