1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৯:৫২ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

শেখ হাসিনা বদলে দেওয়া বাংলাদেশের রূপকার

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৭ মে, ২০২৪

আজ ঐতিহাসিক ১৭ মে। বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর দীর্ঘ ছয় বছরের নির্বাসিত জীবন শেষে শাসকদের চোখরাঙানিকে উপেক্ষা করে, জীবন বাজি রেখে ৪৩ বছর আগের এই দিনে তিনি যখন পিতৃভূমিতে ফিরে আসেন, এ জাতি তখন দিকশূন্য অবস্থায় অনিশ্চিত এক ভবিষ্যতের পথে টলায়মান। একদিকে সামরিক শাসন, অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত বাংলাদেশবিরোধী শক্তি স্বাধীন বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী ধারায় ফিরিয়ে নেওয়ার কাজ দ্রুত স¤পন্ন করছিল। স্বাধীনতাবিরোধীদের পুনর্বাসিত করে রাষ্ট্রীয়ভাবে পুরস্কৃত করা হয়েছে। তখন পাকিস্তানি ভাবাদর্শ কায়েমের মাধ্যমে উল্টোপথে চলছে ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে নির্মমভাবে নিহত হন। এ সময় তার দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় ঘাতকদের হাত থেকে রেহাই পান। পরবর্তী সময়ে ১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপরই সামরিক শাসকের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে প্রিয় স্বদেশভূমিতে প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা। দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নের দৃঢ় অঙ্গীকার, বঙ্গবন্ধুহত্যা ও জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার, স্বৈরতন্ত্রের চির অবসান ঘটিয়ে জনগণের হারানো গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা, সার্বভৌম সংসদীয় পদ্ধতির শাসন ও সরকার প্রতিষ্ঠার শপথ নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরুদ্ধার এবং সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রায় বঙ্গবন্ধুকন্যার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর যখন প্রবঞ্চক বিশ্বাসঘাতক খুনি দেশদ্রোহীরা প্রিয় মাতৃভূমিকে ক্ষতবিক্ষত করে তুলেছিল- আমাদের জাতীয় জীবন যখন জাতিদ্রোহীদের প্রচ- দাবদাহের মতো অত্যাচারে বিপর্যস্ত, তখন শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ছিল শ্রাবণের বারিধারাতুল্য। পাহাড় সমান বাধা জয়ের অনন্ত অনুপ্রেরণা। সেদিন বঙ্গবন্ধুকন্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে অশ্রুধারাসিক্ত জন্মভূমিতে সংকটজয়ের বীজ রোপিত হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ বিনির্মাণের দৃঢ়প্রত্যয়ে প্রদীপ্ত অগ্নিশপথের রৌদ্রোলোকে উদ্ভাসিত হয়েছিল বাঙালি জাতি। ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনার নিরবচ্ছিন্ন দীর্ঘ সংগ্রাম শুরু হয়। দীর্ঘ ১৬ বছর সামরিক জান্তা ও স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে চলে তার অকুতোভয় সংগ্রাম। জেল-জুলুম, অত্যাচার কোনো কিছুই তাকে তার পথ থেকে টলাতে পারেনি। শত প্রতিকূলতাতেও হতোদ্যম হননি কখনো। বাংলার মানুষের হারিয়ে যাওয়া অধিকার পুনরুদ্ধার করতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি বারবার স্বৈরাচারের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করেছেন, আবির্ভূত হয়েছেন গণতন্ত্রের মানসকন্যারূপে।
শেখ হাসিনা তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, সততা, মেধা, দক্ষতা ও গুণাবলিতে সমসাময়িক বিশ্বের অন্যতম সেরা রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। আপন কর্মমহিমায় হয়ে উঠেছেন নবপর্যায়ের বাংলাদেশের নতুন ইতিহাসের নির্মাতা; হিমাদ্রি শিখর সফলতার মূর্তস্মারক, উন্নয়নের কা-ারি। উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের রূপকার। বাঙালির বিশ্বজয়ের স্বপ্নসারথি। বারবার মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা হে মৃত্যুঞ্জয়ী মুক্তমানবী আজকের এই ঐতিহাসিক দিনে আপনাকে জানাই সশ্রদ্ধ সালাম। আপনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাক দেশ ও জাতি, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com