1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৯:৩৯ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ক্যান্সার আক্রান্ত স্কুলছাত্র দিপ্ত বাঁচতে চায়

  • আপডেট সময় বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ পৌর শহরের সরকারী জুবিলী উচ্চবিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর ছাত্র দিপ্ত সরকার মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সে সুনামগঞ্জ পৌরসভার ষোলঘর এলাকার বাসিন্দা ক্ষৌরকার পবন সরকারের ছেলে। দিপ্ত সরকার মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে প্রায় চার বছর ধরে দেশে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। বর্তমানে ভারতের ব্যাঙ্গালুরু ব্যানারঘাটা রোড আরটিনগরের মেডাক্স হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে।
তার স্বজনরা জানান, ২০২০ সালের মার্চ মাসের প্রথম দিকে খেলাধুলা করতে গিয়ে ক্রিকেট বল পড়ে যায় একটি পাথরকাটার মেশিনের ভেতরে। বল আনতে গিয়ে দিপ্ত সরকার মেশিনের ভেতরে হাত ঢুকায়। এ সময় তার বাম হাতের তিনটি আঙ্গুলে চাপ লেগে মাংস থেতলে যায় এবং এরমধ্যে তর্জনী আঙ্গুল কেটে আলাদা হয়ে যায়। ওই সময় করোনা মহামারিতে লকডাউনের কারণে দিপ্ত সরকারকে সঠিক চিকিৎসা করানো সম্ভব হয়নি। পরে এই তিন আঙ্গুলসহ হাতের কব্জিতে ফুটো দেখা দেয়। করোনা মহামারির ফাঁকে ফাঁকে বিভিন্ন সময় সুনামগঞ্জ, সিলেট ও ঢাকার হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে অনেকটা বিলম্ব হয়ে যায়। অবশেষে দিপ্ত সরকারের হাতে ক্যান্সার ধরা পড়ে। চিকিৎসকের পরামর্শ- দিপ্ত সরকারের হাত কাটতে হবে কনুইয়ের নিচে। এমন সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি তখন পরিবারের লোকজন। পরে চিকিৎসকরা দিপ্ত সরকারের উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। চলতি বছরের ২ এপ্রিল ভারতের ব্যাঙ্গালুরু ব্যানারঘাটা রোড আরটিনগরের মেডাক্স হাসপাতালে দিপ্ত সরকারকে ভর্তি করানো হয়। সেখানেও চিকিৎসা রিপোর্ট দেখে চিকিৎসকেরা হাত কেটে ফেলার পরামর্শ দেন। অবশেষে তার হাত কেটে ফেলা হয়।
এদিকে, দিপ্ত সরকারের চিকিৎসায় চলে গেলো প্রায় চার বছর। চিকিৎসার জন্য সহায় সম্বল সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে পরিবারটি। কিন্তু এখনও সুস্থ হয়ে উঠতে পারছে না দিপ্ত। তার সুস্থ হতে আরও কয়েক লক্ষ টাকার প্রয়োজন।
মঙ্গলবার দুপুরে দিপ্ত সরকারের চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ পৌর মেয়রের কাছে আর্থিক সহায়তা চান তার মা পঞ্চমী দাস। তখন মেয়র নাদের বখত ১৫ হাজার টাকার একটি চেক তোলে দেন পঞ্চমী দাসের হাতে।
এ সময় মেয়র নাদের বখত বলেন, একজন মেধাবী স্কুল শিক্ষার্থীর চিকিৎসায় সকল বিত্তবানদের এগিয়ে আসা উচিত। আমরা একে অপরের প্রতি সদয় না হলে বিপদ কাটিয়ে উঠা অসম্ভব। তাই আমার সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি। তিনি সকলকে দিপ্ত সরকারের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।
দিপ্ত সরকারের মা পঞ্চমী দাস জানান, আমি এই শহরের অনেকের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা পেয়েছি। পৌরসভার মেয়র মহোদয় আগে দিয়েছিলেন ১০ হাজার টাকা, এখন আবার দিয়েছেন আরও ১৫ হাজার টাকা। আমরা নিঃস্ব হয়ে গেছি। আমার ছেলের চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা চাই। সে যেন আমাদের মাঝে সুস্থ হয়ে ফিরে আসে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com