1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে : ভোগান্তিতে মানুষ

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ, ২০২৪

শহীদনূর আহমেদ ::
সুনামগঞ্জ পৌর শহরসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর দিন দিন নিচে নেমে যাচ্ছে। এসব এলাকার অধিকাংশ সাধারণ পাম্প ও নলকূপে পানি উঠছে না। ফলে সুপেয় ও গৃহস্থালির কাজে পানির সংকটে এসব এলাকার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দাবদাহ, বৃষ্টি না হওয়া, শহরের বেশির ভাগ পুকুর ও জলাশয় ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণ ও অপরিকল্পিত সাবমারসিবল পা¤প স্থাপন ভূগর্ভস্থ পানির স্তরকে ক্রমেই নিচে নামিয়ে দিচ্ছে।
জেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার ১২ উপজেলায় সরকারি পর্যায়ে হস্তচালিত নলকূপ সচল রয়েছে ২৩ হাজার ৫৬৫টি। এছাড়াও বেসরকারি পর্যায়ে জেলায় লক্ষাধিক নলকূপ রয়েছে। তবে এর বড় একটি অংশ নলকূপে শুষ্ক মৌসুমে পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় অকেজো হয়ে পড়ে। এদিকে, পানির স্তর নেমে যাওয়ায় পাঁচ বছর ধরে সুনামগঞ্জে হস্তচালিত নলকূপ স্থাপন বন্ধ রয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জ জেলায় লক্ষাধিক নলকূপে পানি না উঠায় সুপেয় পানির অভাব মেটাতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। তবে বর্ষায় এসব নলকূপে পানি সরবরাহ অনেকটাই স্বাভাবিক থাকে। সুনামগঞ্জ সদর, বিশ্বম্ভরপুর, দোয়ারাবাজার, ছাতক, জগন্নাথপুর, শান্তিগঞ্জ, ধর্মপাশা, মধ্যনগর, তাহিরপুর উপজেলার সরকারি-বেসরকারি হস্তচালিত নলকূপগুলোর একই দশা। ফলে বিশুদ্ধ পানির জন্য ভরসা করতে হয় গভীর নলকূপের ওপর। তবে স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য গভীর নলকূপ বসানো সামর্থ্যের বাইরে। তারা চান সরকারি সহায়তা। এদিকে বিশুদ্ধ পানি সংকট নিরসনে সরকারিভাবে গভীর নলকূপ স্থাপন করা হলেও তা পর্যাপ্ত নয়।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের বেড়িগাঁও গ্রামের বাসিন্দা সোহাগ মিয়া জানান, দুইটি অগভীর নলকূপ স্থাপন করলেও পানির ভোগান্তি কমেনি। সরকারিভাবে সাবমারসিবল টিউবওয়েলের জন্য অনেক চেষ্টা করেছি। কোনো উপায় না পেয়ে লাখ টাকা খরচ করে নতুন আরেকটি সাবমারসিবল টিউবওয়েল স্থাপন করছি।
আব্দুল হালিম নামে আরেকজন বলেন, সুরমার উত্তর পাড়ে কোনো অগভীর নলকূপে পানি উঠেনা। মানুষ পানির চরম সংকটে আছে। সরকারিভাবে কিছু সাবমারসিবল নলকূপ স্থাপন করা হলেও সেটি পর্যাপ্ত নয়।
এদিকে, হাওর এলাকার বাসিন্দাদের বিশুদ্ধ পানির সংকট নিরসনে গত পাঁচ বছরে জেলার ১২ উপজেলায় সরকারিভাবে ৫ হাজারের উপরে সাবমারসিবল পাম্পযুক্ত গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া তৃণমূল পর্যায়ে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে তৎকালীন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানের প্রচেষ্টায় তাঁর নির্বাচনী এলাকা জগন্নাথপুর ও শান্তিগঞ্জ উপজেলার ৫ হাজার গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে।
সুনামগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল কাসেম বলেন, জেলার সবকটি উপজেলায় কম-বেশি এই সমস্যা রয়েছে। বিশুদ্ধ পানি সংকট নিরসনে সরকার একাধিক প্রকল্প গ্রহণ করেছে। প্রতি মাসেই কোথাও না কোথাও সাবমারসিবল পাম্পযুক্ত গভীর নলকূপ স্থাপন করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে মানুষ বিশুদ্ধ পানি সংগ্রহ করতে পারছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com