1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

দল পুনর্গঠনে বাড়ছে চাপ

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
এক দফা আন্দোলনে ব্যর্থতার পর দলকে ঢেলে সাজাতে শীর্ষ নেতৃত্বকে তাগিদ দিচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে তৃণমূল নেতাকর্মীরা ঢাকা নেতৃত্বের ওপর চরম ক্ষুব্ধ। ফের বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে তারা ঢাকার নেতৃত্বের রদবদল চান। আন্দোলন এবং দলের এই পরিস্থিতিতে এসে ঢাকার মাঠ পর্যায়ের অনেক নেতারও একই উপলব্ধি। তারাও ২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশের পর থেকে এখন পর্যন্ত আন্দোলনে নেতৃত্বের গলদই বেশি দেখছেন।
জানা গেছে, ২০১৪ সালের পর থেকে বেশ কয়েকবার ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল আনে বিএনপি। কিন্তু সুফলতা আসেনি আশানুরূপ। এ কারণে ২০১৭ সালে ঢাকা মহানগরকে উত্তর ও দক্ষিণে ভাগ করে পৃথক দুটি কমিটি করা হয়। তাতেও কাজের কাজ হয়নি। সর্বশেষ ২০২১ সালের আগস্টে ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমানকে আহ্বায়ক ও জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হককে সদস্য সচিব করে ঢাকা উত্তর এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালামকে আহ্বায়ক ও রফিকুল ইসলাম মজনুকে সদস্য সচিব করে দক্ষিণের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এরই মধ্যে ঢাকা উত্তরের ৭১টি ওয়ার্ডের সব এবং দক্ষিণের ৮০টির মধ্যে ৫৬টিতে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়েছে।
ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আ ন ম সাইফুল হক অভিযোগ করেন, মহানগরের অনেক শক্তিধর ইউনিট ২৮ অক্টোবরের পর হঠাৎ ঝিমিয়ে পড়ে। এর কারণ খুঁজে বের করা উচিত সাংগঠনিক নেতাদের। না হলে ভবিষ্যতেও আন্দোলন পরিস্থিতির একই চিত্র দেখা যাবে। দায়িত্বশীল নেতাদের কারণ ছাড়া উধাও হয়ে যাওয়া মানে কর্মীদের মনোবল ভেঙে যাওয়া। এখনও সময় আছে সিন্ডিকেট ভেঙে সংগঠনকে গতিশীল করতে হবে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিএনপির একজন নেতা বলেন, বহির্বিশ^ আমাদের শীর্ষ নেতাকে নিয়ে একটু কানাঘুষা করছে। তারা যেভাবে নেতৃত্ব চান হয়তো সেভাবে সাজানো যাচ্ছে না। আর তৃণমূলে কোনো সমস্যা নেই। কমিটি করতে হলে আগে ঢাকাকে ঢেলে সাজাতে হবে। এই সরকার আসার পর থেকে ঢাকা ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ। তাই ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল করা উচিত। বাইরের লোক অর্থাৎ জেলার লোকজনকে নিয়ে এসে পল্টনের মাঠ ভরতে হবে। আর ঢাকার নেতারা বসে থাকেন মঞ্চে।
সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক স¤পাদক মির্জা মোস্তফা বলেন, কমিটি পুনর্গঠন করা উচিত। যারা ব্যর্থ তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে যোগ্যদের সুযোগ দেওয়া উচিত। বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে নতুন কমিটি গঠন ও শূন্য নেতৃত্ব পূরণের বিকল্প নেই। এ নিয়ে শীর্ষ নেতার উদ্দেশে একটি খোলা চিঠিও লিখেছি।
ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু আশফাক বলেন, গত তিন মাসে একটি বড় পরীক্ষা হয়ে গেল। এতে যারা ফেল করেছে; তাদের বাদ দেওয়া উচিত। আর যারা পাস করেছে তাদের পুরস্কার হিসেবে নেতৃত্বে জায়গা দেওয়া উচিত। বড় একটি আন্দোলনের পর শীর্ষ নেতারা নিশ্চয়ই বিষয়টি নিয়ে ভাবছেন। তিনি বলেন, সংগঠন পুনর্গঠন নিয়ে তাগিদ অনুভব করছি। বড় কর্মসূচিতে যাওয়ার আগে এটি অবশ্যই দরকার। হরতাল-অবরোধে ঝুঁকি নিয়ে অনেকে মিছিল করেছে; আর অনেকে পদ নিয়ে ঘরে বসে ফেসবুক দেখেছে। অনেক সভাপতি সাধারণ স¤পাদককে খুঁজেই পাওয়া যায়নি।
অন্যদিকে ২০১৬ সালের ১৯ মার্চ ঢাকায় ষষ্ঠ জাতীয় সম্মেলন করেছিল দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি। গঠনতান্ত্রিকভাবে তিন বছর পরপর এই সম্মেলন হওয়ার কথা। তবে সাত বছর পার হলেও সপ্তম জাতীয় সম্মেলন হয়নি। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের অনেক নেতা মারা গেছেন। নানা কারণে বাদ পড়েছেন কেউ কেউ। সব মিলিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির ১৩০টির মতো পদ শূন্য হয়ে আছে। শুধু তা-ই নয়, সাত বছরে কেন্দ্রীয় কমিটির সভা হয়েছে মাত্র একবার। ২০১৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ওই সভার পর কেটে গেছে পাঁচ বছর। শুধু কেন্দ্র নয়, জেলা-উপজেলাসহ সব স্তরেই স্থবির হয়ে আছে বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম।
বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা, উপজেলা ও পৌর কমিটির মেয়াদ দুই বছর। কিন্তু অধিকাংশ জেলা-উপজেলা কমিটির মেয়াদ ৩ থেকে ১০ বছরে গড়িয়েছে। সাংগঠনিক জেলার সংখ্যা ৮২। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য বলছে, এর মধ্যে মাত্র ১০টিতে মূল কমিটি রয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি আবার আংশিক। ৫২টি জেলা কমিটি চলছে আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে। বাকিগুলোর হালনাগাদ তথ্য নেই। সব মিলিয়ে ৫০টির বেশি জেলা কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ।
জানা গেছে, বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির ১৯ পদের মধ্যে বর্তমানে শূন্য আছে পাঁচটি। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যানের ১৩টি, উপদেষ্টা ১৫টি, স¤পাদক ও সহ-স¤পাদকসহ প্রায় একশ’র মতো পদ শূন্য হয়ে আছে।
বিএনপির সাংগঠনিক স¤পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, এত বৈরী পরিবেশের ভিড়েও আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে। এখনও অনেক নেতা গ্রেফতার হচ্ছেন, কারাগারে আছেন, কেউ মারা গেছেন, কেউ কেউ অসুস্থ, অনেকে নিষ্ক্রিয় আছেন। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে আমরা চেষ্টা করব সংগঠনকে পুনর্গঠন করতে।
এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, সাংগঠনিক রদবদল কিংবা পুনর্গঠন একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটি বছরব্যাপী চলে। প্রয়োজন ও পরিস্থিতি বিবেচনায় সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com