1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:১৬ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

আমনে কৃষকের মুখে হাসি

  • আপডেট সময় সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২৩

শহীদনূর আহমেদ ::
রোপা আমনের বাম্পার ফলনে হাসি ফুটেছে সুনামগঞ্জের আমন চাষীদের মুখে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় অন্য যেকোনো বারের চেয়ে এবার আমনের ফলন ভালো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। চাষাবাদের খরচ উসুল করে লাভবান হবেন চাষীরা এমনটাই মনে করছে কৃষি বিভাগ।
জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এবার জেলায় ৮৩ হাজার ৩৬৯ হেক্টর জমিতে রোপা আমনের চাষাবাদ করা হয়। সময়ে সময়ে বৃষ্টিপাত ও কোনো ধরনের প্রতিকূল আবহাওয়া সম্মুখীন না হওয়াতে আবাদকৃত জমিতে ফলন আশানুরূপ হয়েছে। উচ্চ ফলনশীল জাতের ধানে উৎপাদন বেশি হয়েছে। যার সার্বিক উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ২ লাখ হাজার ৬১২ মেট্রিকটন। ১০ ডিসেম্বর (রবিবার) পর্যন্ত মোট আবাদকৃত জমির ৭০ ভাগ জমির ধান কর্তন করা হয়েছে। যা পরিমাণে ৫৬ হাজার ৬৯০ হেক্টর।
সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের আমন চাষী ফজর আলী। আড়াই বিঘা জমিতে ৮ হাজার টাকা খরচ করেছেন। সার ও কীটনাশকে যথাযথ ব্যবহারে বিঘা প্রতি ১৮-১৯ মণ ধান পাওয়ার আশা করছেন তিনি। যার বাজার দর ৪৫-৫০ হাজার টাকা হবে।
ফজর আলী বলেন, অন্য বছরের চেয়ে এবার ধান ভালো হইছে। ফলন পেয়ে আমি খুশি। আশা করছি ছেলমেয়ে নিয়ে ভালোভাবে থাকতে পারবো।
একই এলাকার চাষী আবুল কাশেম বলেন, এবার বিঘা প্রতি গড়ে ১৮-২০ মণ করে ধান পাচ্ছেন কৃষকরা। বিনা ১৭ জাতের ধানের উৎপাদন ভালো হইছে। ধান ভালো হলেও ধানের ন্যায্যমূল্য না পেলে লাভ হবে না। আশা করবো ধানের যাতে ন্যায্য মূল্য পাই এক্ষেত্রে সরকার উদ্যোগ নিবেন।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মোহাম্মদ শওকত উসমান বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আমনের ফলন ভালো হয়েছে। কৃষি অফিস চাষীদের পরামর্শ এবং বীজ ও প্রণোদনা দিয়ে সহযোগিতা করেছে। মাঠপর্যায়ের তথ্য অনুযায়ী রবিবার পর্যন্ত ৭০ ভাগ জমির ধান কর্তন হয়েছে। আর সপ্তাহ ১০ দিনে শতভাগ ধান কর্তন করা যাবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com