1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ০২:৪০ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

জলবায়ু ঝুঁকি : হাওরে ভেলা ভাসিয়ে তুলে ধরা হল বিপন্নতার চিত্র

  • আপডেট সময় রবিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কানলার হাওরের বৃন্দাবননগর গ্রামের কৃষক আজাফর মিয়া, জালাল উদ্দিন, আয়ুব আলী, নূরুল ইসলাম, কবির হোসেন প্রমুখ। জলবায়ু বিপন্নতার মুখে তাদের স্বাভাবিক জীবন। পাল্টে গেছে হাওরের চাষবাসের চিত্র, জীবনযাপন। এই অবস্থায় হাওরে ভেলা ভাসিয়ে কৃষকের বিপন্ন জীবন ও হাওরের কৃষি অর্থনীতির বিপন্নতার কথা তুলে ধরলেন এই কৃষকেরা। ভেলায় দৈনন্দিন জীবনযাপনের চিত্র তুলে ধরে জলবায়ু ঝুঁকির জন্য দায়ী রাষ্ট্রগুলোর কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন। পাশাপাশি তুলে ধরেছেন নানা দাবি দাওয়া-দাওয়া।
শনিবার (১৪ অক্টোবর) সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের কানলার হাওরে এমনই এক ব্যতিক্রমী কর্মসূচি দেখা গেছে। সুনামগঞ্জের উন্নয়ন সংগঠন হাউস, ক্লিন ও বিডব্লিউজিইডির উদ্যোগে হাওরে এই ব্যতিক্রমী কর্মসূচিতে বিপন্ন হাওরবাসীর চিত্র তুলে ধরেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা।
বৃন্দাবননগর গ্রামের কৃষক আজাফর আলী বলেন, জলবায়ু ঝুঁকিতে আছে হাওরের দুই কোটিরও বেশি লোক। আমাদের চাষবাস ও জীবনযাপনের স্বাভাবিক চিত্র আগের মতো নেই। আগাম বন্যা, খরায় প্রতিনিয়ত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। এতে বাস্তুচ্যুত হওয়ার পাশাপাশি অর্থনৈতিকভাবে বিপন্ন হয়ে পড়ছি আমরা। হাওরের সমৃদ্ধ জীবন হারিয়ে আমরা এখন কষ্টে আছে। জলবায়ুজনিত পরিবর্তন আমাদের বিপন্ন করে তুলেছে। কিন্তু আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েও ক্ষতিপূরণ পাচ্ছিনা।
অপর কৃষক কবীর হোসেন বলেন, আমরা রান্নার থালা বাসন, বিছানাপত্র, সন্তান-সন্ততিদের নিয়ে কানলার হাওরে কলাগাছের ভেলায় চড়ে আমাদের প্রতিদিনের জীবনের লড়াই তুলে ধরেছি। পরিবর্তিত প্রাকৃতিক কারণে আমরা কতটা অসহায় ও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি কেউ জানেনা। আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাপন পাল্টে গেছে।
এদিকে কৃষকদের এমন ব্যতিক্রমী প্রতীকী জীবনযাপনের চিত্র দেখতে আশপাশের মানুষজনও ভিড় করেন। এসময় হাওরের এই কৃষক ও জেলেরা জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তাদের কৃষি অর্থনীতিতে কি কি প্রভাব পড়েছে তুলে ধরেন। তারা ক্ষতিপূরণের ন্যায্যতা তুলে ধরেন। কৃষকরা কৃষকরা খাদ্য স্বাধিকারের জন্য জীবাশ্ম জ্বালানি বন্ধ, কৃষি জমিতে জীবাশ্ম জ্বালানিভিত্তিক স্থাপনা না করা, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং খাদ্য স্বাধিকারের জন্য কৃষি নীতি প্রণয়ন, নবায়নযোগ্য জ্বালানির জন্য ভূমি ইজারা নীতি প্রণয়নসহ নানা দাবি তুলে ধরেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, হাউস-এর নির্বাহী পরিচালক সালেহিন চৌধুরী শুভ, দ্বোহা চৌধুরী, শরীফ আহমদ, মো. শাহিন মিয়া, মো. আরজদ আলী প্রমুখ।
কর্মসূচির উদ্যোক্তা হাউসের নির্বাহী পরিচালক সালেহিন চৌধুরী শুভ বলেন, জলবায়ু ঝুঁকিতে আছে হাওরের কৃষক ও জেলেরা। প্রতিদিন এর প্রভাবে তারা বিপন্ন হয়ে পড়ছেন। তাদের দাবিদাওয়াগুলো কেউ তুলে ধরছেনা। আমরা দুর্গম এলাকায় এসে তাদের সঙ্গে কথা বলে হাওরে ভেলা ভাসিয়ে তাদের জীবনযাপন তুলে ধরেছি। তারা তাদের বঞ্চনা ও ন্যায্যতার কথা তুলে ধরেছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com