1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৫:০১ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল : চিকিৎসকের অভাবে চালু হচ্ছে না আইসিইউ

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

আকরাম উদ্দিন ::
সুনামগঞ্জে ২৫০শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতালে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিইউ) জন্য কক্ষ, শয্যাসহ সব যন্ত্রপাতি প্রস্তুত থাকলেও কেবল প্রয়োজনীয় চিকিৎসকের অভাবে এটি চালু হচ্ছে না। যে কারণে সুনামগঞ্জের মানুষ এই সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। আইসিইউ সেবা প্রাপ্তির জন্য যেতে হয় বিভাগীয় শহর সিলেটে। এতে অর্থ, সময় ব্যয়ের সঙ্গে রয়েছে ভোগান্তিও।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, হাওর অধ্যুষিত সুনামগঞ্জ জেলার মানুষের স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তির ভরসার জায়গা এই সদর হাসপাতাল। চিকিৎসকসহ নানা সংকটের মধ্যেই এখানে স্বাস্থ্যসেবা নেন মানুষজন। এখনো হাসপাতালে অর্ধেক চিকিৎসকের পদ শূন্য রয়েছে। দুর্ঘটনাসহ গুরুতর রোগীদের পাঠিয়ে দেওয়া হয় সিলেটে। তাই হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের দাবি দীর্ঘদিনের। করোনা পরিস্থিতি শুরুর পর এই দাবি আরও জোরালো হয়। করোনা আক্রান্ত রোগীদের অবস্থার সামান্য অবনতি হলেই পাঠানো হতো সিলেটে। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইউনিসেফের একটি প্রকল্পে হাসপাতালের পুরাতন ভবনে ছয় শয্যার আইসিইউ ও অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। পরে অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন হলেও করোনার প্রকোপ কমে আসায় পুরাতন ভবনে আইসিইউ আর স্থাপন হয়নি। একই সময়ে হাসপাতালের নতুন ভবনের আট তলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের ‘কোভিড-১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড প্যানডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় শুরু হয় ১০ শয্যার আইসিইউ স্থাপনের কাজ। এটির কাজ স¤পন্ন হওয়ার পর প্রয়োজনীয় শয্যা, সরঞ্জাম, যন্ত্রপাতি পাওয়া গেছে। চলতি বছরের ২১ মার্চ এসব পেয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু লোকবলের অভাবে এটি চালু করা যাচ্ছে না।
সদর হাসপাতালের সংশ্লিষ্টরা জানান, আইসিইউ বিভাগ চালু করতে হলে তিনজন চিকিৎসক এবং তিনজন অ্যানেসথেসিস্ট (অবেদনবিদ) লাগবে। এছাড়া আরও কয়েকজন সহযোগী কর্মীর প্রয়োজন, এসব কর্মী হাসপাতালের লোকবলেই চালানো সম্ভব। কিন্তু চিকিৎসক জরুরি। আইসিইউ চালু করতে প্রয়োজনীয় লোকবলের জন্য সর্বশেষ চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে চিঠি দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে আইসিইউতে চিকিৎসকের প্রয়োজনীয় কিছু সরঞ্জামের চাহিদাও পাঠানো হয়েছে।
শহরের বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ জেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে লোকজন জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। জেলার নানা স্থানে ঘটে দুর্ঘটনা। গুরুতর আহতদের আইসিইউ সেবার প্রয়োজন হয়। কিন্তু সুনামগঞ্জে এটি না থাকায় যেতে হয় সিলেটে। এতে সময় যেমন বেশি লাগে, সঙ্গে অর্থেরও প্রয়োজন হয়। একই সাথে রোগীর অবস্থা আরো সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় জেলাবাসী সদর হাসপাতালে আইসিইউ সেবা চালুর জন্য দীর্ঘদিন থেকে দাবি জানিয়ে আসছেন।
সদর হাসপাতালে দোয়ারাবাজার থেকে সেবা নিতে আসা বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা চাঁন মিয়া বলেন, আমরা সেবা নিতে এসে আইসিইউ’র জন্য সিলেটে যেতে হয়। এতে টাকা, সময় এবং নানা ভোগান্তির শিকার হই আমরা। আশাকরি এটা চালু হলে এবং সার্বক্ষণিক চিকিৎসক থাকলে সেবা নিশ্চিত হবে।
সুনামগঞ্জ সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি আইনজীবী আইনুল ইসলাম বলেন, এমনিতেই প্রান্তিক জেলা হিসেবে স্বাস্থ্যসেবার দিক থেকে আমরা পিছিয়ে আছি। হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক নেই। আইসিইউ চালুর জন্য অনেক দিন ধরে বলা হচ্ছে। এটি খুবই জরুরি। আমরা চাই প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগ দিয়ে দ্রুত এখানে আইসিইউ সেবা চালু হবে।
অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ও লেখক কবি সুখেন্দু সেন বলেন, হাওর অধ্যুষিত সুনামগঞ্জের রোগীদের আশা-ভরসার স্থল সদর হাসপাতাল। এই হাসপাতালে আইসিইউ চালু হলে চিকিৎসা সেবা অনেকটা নিশ্চিত হবে, সিলেটে আসা-যাওয়ায় মানুষের ভোগান্তি কমবে।
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপ-পরিচালক) ডা. মো. আনিসুর রহমান বলেন, সব কিছুই প্রস্তুত আছে। এখন চিকিৎসক পেলেই আইসিইউ চালু করা যাবে। কিন্তু হাসপাতালেই অর্ধেক চিকিৎসকের পদ শূন্য। আমরা চিকিৎসকের জন্য লিখেছি। চিকিৎসক পাওয়া গেলে আইসিইউ সেবা চালু হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com