1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:৫০ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

কৃষকনেতা মতিয়র রহমান স্মরণে শোকসভা

  • আপডেট সময় রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতির ধর্মপাশা উপজেলা কমিটির সভাপতি ও জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের সহ-সভাপতি প্রখ্যাত কৃষক জননেতা মতিয়র রহমান স্মরণে শোকসভা শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) বাদশাগঞ্জ বাজারে অনুষ্ঠিত হয়।
কৃষক সংগ্রাম সমিতির সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খায়রুল বসর ঠাকুর খানের সভাপতিত্বে শোকসভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের কেন্দ্রিয় সহ-সভাপতি শ্যামল কুমার ভৌমিক। শোকসভার শুরুতে প্রয়াত মতিয়র রহমান ও কৃষক সংগ্রাম সমিতির উপজেলা কমিটির অন্যতম সদস্য অনিল কুমার স্মরণে এক মিনিট শোক নীরবতা পালন করা হয়।
শোকসভায় অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনা করেন বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতির কেন্দ্রীয় সাধারণ স¤পাদক শাহজাহান কবির, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির কেন্দ্রিয় যুগ্ম আহ্বায়ক রহিমা জামাল, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের কেন্দ্রীয় যুগ্ম স¤পাদক প্রকাশ দত্ত ও তফাজ্জল হোসেন, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি রতœাংকুর দাস জহর ও নেত্রকোনা জেলার আহ্বায়ক মাস্টার মতিউর রহমান, কৃষক সংগ্রাম সমিতির সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি অ্যাডভোকেট নিরঞ্জন তালুকদার, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির ময়মনসিংহ জেলার আহ্বায়ক বাবলী আকন্দ, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের ধর্মপাশা উপজেলা কমিটির সভাপতি নূর উদ্দিন আহমেদ, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতির উপজেলা কমিটির আহবায়ক জ্যোৎ¯œা বেগম, সদস্য জেরিন আক্তার ও জাতীয় ছাত্রদলের নেতা আল তাসলিন কান্তা ও আদনান সামি প্রত্যয়। শোকসভা সঞ্চালনা করেন কৃষক সংগ্রাম সমিতির উপজেলা কমিটির সাধারণ স¤পাদক ফিরোজ আলম।
শোকসভায় বক্তারা বলেন, মতিয়র রহমানের শোকসভা শুধু শোক প্রকাশের জন্য নয়। শোককে সংগ্রামে পরিণত করার জন্য এই শোকসভার গুরুত্ব অপরিসীম। মতিয়র রহমানের রাজনৈতিক জীবনের উপর আলোকপাত করতে যেয়ে আলোচকগণ বলেন, প্রয়াত মতিয়র রহমান ১৯৪৪ সালের ১ মে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি নেত্রকোণা সরকারি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণিতে পড়ার সময় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সামরিক শাসক আইয়ুব খানের শাসনামলে শিক্ষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের সাথে যুক্ত হোন। পরবর্তীতে ¯œাতক (পাস) সমাপ্ত না করেই তিনি কৃষক আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়ে পড়েন এবং পূর্ব পাকিস্তান কৃষক সমিতির সাথে যুক্ত হোন। শ্রমিক কৃষক জনগণের রাষ্ট্র, সরকার ও সংবিধান প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তিনি পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) এর সাথে যুক্ত হোন। আলোচকগণ বলেন, তৎকালীন সময়ে শ্রমিক শ্রেণির মহান রাষ্ট্র সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ স¤পাদক জোসেফ স্তালিনের মৃত্যুর পর সংশোধনবাদীরা পার্টির নেতৃত্বে এসে সংশোধনবাদী তিন শান্তি নীতির তত্ত্ব গ্রহণ করে। এ প্রেক্ষিতে সংশোধনবাদীদের দ্বারা কমিউনিস্ট আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত হলে মার্কসবাদ-লেনিনবাদকে প্রতিষ্ঠায় বিশ্বব্যাপী আপোসহীন কমিউনিস্ট বিপ্লবীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান আমলে মার্কসবাদ-লেনিনবাদী তত্ত্বের আলোকে কমিউনিস্ট আন্দোলনকে প্রতিষ্ঠায় কমরেড আবদুল হক, হেমন্ত সরকার, অজয় ভট্টাচার্য ও দীনেশ চন্দ্র চৌধুরীদের নেতৃত্বে দেশব্যাপী কমিউনিস্ট তৎপরতা অগ্রসর হলে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে মতিয়র রহমান তিন শান্তি নীতির তত্ত্ব তথা ক্রুশ্চেভ সংশোধনবাদের বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। পাশাপাশি উগ্র-জাতীয়তাবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকার সাথে সাথে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পরও চীনের কমিউনিস্ট পার্টি সংশোধনবাদী তিনবিশ্ব তত্ত্ব সামনে আনলে এর বিরুদ্ধে তিনি মার্কসবাদ-লেনিনবাদের পতাকা ঊর্ধ্বে তুলে ধরেন।
আলোচকরা বলেন, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর তিনি কিছুদিনের জন্য জয়শ্রী জুনিয়র হাইস্কুলে শিক্ষকতা করেন। ৮০’র দশকে বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি গড়ে তোলার প্রক্রিয়ায় তিনি আবার কৃষক আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় তিনি তার অকৃত্রিম সহযোদ্ধা ও বন্ধু প্রয়াত সামসুল আলম মাস্টার, আব্দুল ওয়াহাব তালুকদারসহ অন্যান্য সহযোদ্ধাদের নিয়ে মাটিকাটা শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলেন। ৮০’র দশকে সুনামগঞ্জ জেলায় ভাসান পানির আন্দোলন শুরু হলে মতিয়র রহমান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ৮৮ সালে সংঘটিত হওয়া মারাম বাঁধ আন্দোলনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ধর্মপাশা উপজেলার গাবী গ্রামের ভূমিহীন কৃষক লালচাঁন হত্যার প্রেক্ষিতে ১৯৮৯ সালে তিনি ঐতিহাসিক ভূমিহীন আন্দোলন গড়ে তোলায় নেতৃত্বের ভূমিকা পালন করেন। ১৯৮৮ সালে জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের প্রতিষ্ঠা হলে তিনি ধর্মপাশা উপজেলায় ফ্রন্ট গড়ে তোলার কাজে উদ্যোগী ভূমিকা ও নেতৃত্বের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৩ সাল থেকে পুনরায় শুরু হওয়া সুনামগঞ্জ জেলায় চলমান ভাসান পানির আন্দোলনে মতিয়র রহমানের রয়েছে উদ্যোগী ও সাহসী নেতৃত্বের ভূমিকা। মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি কৃষক জনগণের মুক্তির আন্দোলনে নিরলস ভূমিকা রেখে যান। আজীবন বিপ্লবী এ নেতা জনগণের মুক্তির আন্দোলন অগ্রসর করতে অকৃতদার থেকে যান। – সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com