1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

তাহিরপুরের পর্যটন এলাকার ১০ কি.মি. সড়ক বেহাল

  • আপডেট সময় রবিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২৩

জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া ::
টাঙ্গুয়ার হাওর, বারেকটিলা, শিমুল বাগানসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটে সমৃদ্ধ তাহিরপুর উপজেলা। এসব স্পটগুলো উপজেলার সীমান্ত এলাকায় হওয়ায় সৌন্দর্য্য যেন আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক ছুটে আসছেন। কিন্তু সেই তুলনায় সড়কপথের পাশাপাশি অবকাঠামোর কোনো উন্নয়ন হয়নি কয়েক যুগেও।
সীমান্ত এলাকার বারেকটিলা থেকে মধ্যনগর উপজেলার মহেষখলা পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়কে স্বাধীনতার পর থেকে বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। ফলে আগত পর্যটকসহ ২০টি গ্রামের বাসিন্দারা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। আর এই সামান্য বৃষ্টি হলে এই সড়ক কাদায় ভরে যায়। ফলে যানবাহন চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়।
সরেজমিনে দেখা যায়, তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বারেকটিলা থেকে মধ্যনগর উপজেলার মহেষখলা পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়ক চলাচল অনুপযোগী। এ সড়কে প্রায় তিন দশক আগে তৎকালীন সংস্থাপন সচিব ড. শাহ মোহাম্মদ ফরিদের প্রচেষ্টায় যাদুকাটা নদীর খেয়াঘাট থেকে বারেকটিলার ওপর দিয়ে চলাচলের জন্য এক কিলোমিটার সরু পাকা সড়ক নির্মাণ করা হয়। কিন্তু সংস্কার না করায় এখন এই সড়কটিও চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এরপরও প্রতিদিন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে টাঙ্গুয়ার হাওর, যাদুকাটা নদী, বারেকটিলা, শিমুল বাগান, রাজাই ঝর্ণাধারা, টেকেরঘাট শহীদ সিরাজ লেক, লাকমাছড়া, লালঘাট ঝর্ণা দেখতে আসে মানুষ।
এদিকে যাদুকাটা নদীর উপর ব্রিজের কাজ নির্ধারিত সময় পার হলেও এখনো স¤পন্ন না হওয়ায় জনমনে ক্ষোভ বিরাজ করছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার করতে হচ্ছে মানুষজনকে।
ফরিদ মিয়া, আমিনুল মিয়াসহ সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা ক্ষোভের সাথে জানান, আমরা সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা চরম দুর্ভোগের মধ্যে জীবব পার করছি যুগ যুগ ধরে। আমাদের তাহিরপুর উপজেলাটি এখনো উন্নয়নবঞ্চিত। দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও অবকাঠামোর উন্নয়ন হলেও বারেকটিলা-মহেষখলা, তাহিরপুর-সুলেমানপুর সড়ক, তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়ক চলাচলের অনুপযোগী রয়ে গেছে।
ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা পর্যটক শাকিল আহমেদ বলেন, মোটরসাইকেল বা অটোরিকশা নিয়ে বারেকটিলার ওপর দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয়। কারণ সরু সড়কটিতে গর্ত আর ভাঙার সংখ্যা বেশি। সড়কপথের উন্নয়নসহ পর্যটন স্পটগুলোর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রয়োজন।
বিজিবি সুনামগঞ্জ ২৮ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তসলিম এহসান জানান, এই সড়কটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এর সাথে চাঁনপুরসহ মাটিরাবন সাতটি বিওপিতে থাকা বিজিবি সদস্যরা সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে। গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি মেরামত ও প্রশস্ত করলে এর সুফল পাবে সর্বস্তরের মানুষ।
তাহিরপুর উজজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফ উল্লাহ খান জানান, রাস্তাটির টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। উপজেলা সীমান্তের উত্তর বড়দল ইউনিয়ন বারেকটিলা থেকে মধ্যনগর উপজেলা পর্যন্ত সীমান্ত রাস্তাটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ২০০ কোটি টাকা।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণাসিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, জনদুর্ভোগ লাগবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলব। যাতে করে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com