1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

৩০০ আসনে প্রার্থী খুঁজে পাচ্ছে না জাতীয় পার্টি

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১১ আগস্ট, ২০২৩

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) নির্বাচনি জোট নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তারা ৩০০ আসনে ভোট করার প্রস্তুতির কথা জানাচ্ছে। যদিও এখন পর্যন্ত ২০০ টির মতো আসনে দলীয় প্রার্থী ঠিক করতে পেরেছে জাপা। সাংগঠনিক দুর্বলতায় সব আসনে দলীয় প্রার্থী খুঁজে পাচ্ছে না দলটি।
দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় আওয়ামী লীগের পাশপাশি জাতীয় পার্টিও ভোটের প্রস্তুতি নিচ্ছে। সেইসঙ্গে সরকারি বিরোধী বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছে দলটির শীর্ষ নেতা। যদিও তারা আন্দোলনের মাঠে নেই।
জাপার মহাসচিব মো. মুজিবুল হক বলেন, আমরা ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার চেষ্টা করছি। তবে সব আসনে প্রার্থী পাওয়া যাচ্ছে না। এখন পর্যন্ত ২০০টির মতো আসনে প্রার্থী ঠিক করতে পেরেছি। নির্বাচনি জোট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি এখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না। রাজনৈতিক অবস্থা ও জনগণের চাহিদা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম এমপি বলেন, আমরা আপাতত ৩০০ আসনে ভোট করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। তবে আসনে আমরা সাংগঠনিকভাবে শতভাগ শক্তিশালী নই। তিনি জানান, জোটের বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী মাসের শেষ দিকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমরা এক মাস রাজনৈতিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে চাই। তবে আমরা স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তির সঙ্গেই থাকতে চাই। যদিও আমাদের চেয়ারম্যানের মতামত হল- জনগণের শক্তি যেদিকে বেশি সেখানেই জোটবদ্ধ হওয়া। আর এটা করতে ব্যর্থ হলে এককভাবে নির্বাচন করব। তাই এখনই বলা মুশকিল।
জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমান বলেন, সাংগঠনিকভাবে এখনও ৩০০ আসনে লড়াই করার শক্তিমত্তা হয়নি আমাদের। এখনই এককভাবে নির্বাচন করলে ভালো ফল নাও আসতে পারে। তাই নিজেদের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থান ধরে রাখতে হলে জোটগতভাবেই নির্বাচন করা উচিত। এমন বাস্তবতাও সামনে আসছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রেসিডিয়ামের একজন সদস্য বলেন, সরকারের বাইরে যাওয়াটা নানা কারণে জাতীয় পার্টির জন্য কঠিন। সামনে আরও কঠিন হবে। মামলা তো আছেই। এসব মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে মাঠে বিরোধিতা না করলে তো বিরোধী দলের তকমা হারিয়ে যাবে। তাই মুখে ও বিবৃতিতে সরকারের বিরোধিতা করতে হবে। গঠনমূলক বিরোধিতায় সরকারও নাখোশ হবে না। প্রকৃত অর্থে সরকারের সঙ্গে আমাদের বিরোধিতা নেই। যদিও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলছেন, বর্তমান সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে হওয়া সম্ভব নয়। স¤প্রতি তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের অধীনে যেভাবে নির্বাচন হচ্ছে; এখানে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করা যায় না। এটার পরিবর্তন দরকার। তবে পরিবর্তনটা কীভাবে হবে, তা দল-মত নির্বিশেষে সকলের সাথে কথা বলে একমত হতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে, বুঝে শুনে সিদ্ধান্ত নেবে জাতীয় পার্টি। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, বিদেশিরা বাংলাদেশে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চায়। জাতীয় পার্টি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ৩০০ আসনে প্রার্থী প্রস্তুত রেখেছে।
অন্যদিকে জাপার প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও তার অনুসারিরা থাকতে চায় সরকারের সঙ্গে। প্রকাশ্যেই তারা সেই ঘোষণা দিচ্ছে। যদিও তাদের প্রকাশ্য কোনো তৎপরতা নেই। রওশন এরশাদের মুখপাত্র কাজী মামুনূর রশিদ বলেন, আমরা সংবিধান মেনেই নির্বাচন চাই। রওশন এরশাদের অধীনে আগামী নির্বাচনে যাব। আগে আমরা ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে জোটে ছিলাম, এবারও তাই হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com