1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৪:০৩ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

যাদুকাটার পাড় কাটা বন্ধের দাবি

  • আপডেট সময় শনিবার, ৫ আগস্ট, ২০২৩

রাজন চন্দ ::
তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীর পাড় কাটা বন্ধ ও ঘাগটিয়া গ্রামসহ নদী তীরবর্তী ২০টি গ্রাম রক্ষার দাবিতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (৪ আগস্ট) বিকেল সাড়ে পাঁচটায় পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে যাদুকাটা নদীর তীরে এ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
ঘাগটিয়া টেকেরগাঁও গ্রামের বয়োজ্যেষ্ঠ সামরোজ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে গ্রামের ভুক্তভোগী কয়েক শতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন। পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজার সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা)-এর সভাপতি আবু নাসের।
এসময় ভুক্তভোগী গ্রামবাসী তাদের বক্তব্যে বলেন, দীর্ঘ দিন থেকে যাদুকাটা নদীর পাড় কেটে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশ্যে দিবালোকে ড্রেজার, বোমা মেশিন দিয়ে নদীর পাড় কাটা হচ্ছে। এতে আমাদের বসত বাড়ি ভেঙে যাচ্ছে। এর প্রতিবাদ করলে প্রভাবশালী বালুখেকো চক্র আমাদের মারধর করে এবং মামলার হুমকি দেয়।
ঘাগটিয়া আদর্শ গ্রামের আকাশ মিয়ার স্ত্রী রাজিনা বেগম (৫০) বলেন, পাড় কাটতে কাটতে বালুখেকোরা আমার বাড়ির উঠান কাটা শুরু করেছে। আমি বাধা দিলে আমার উপর হামলা করে এবং আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। আমি হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছি। এখনো তাদের পাড় কাটা চলছেই। যেকোনো মুহূর্তে আমার বাড়িটা নদীগর্ভে চলে যাবে। তিনি তার বসতভিটা রক্ষায় সবার সহযোগিতা চান।
পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা বলেন, নদীর পাড় কাটার কারণে ঘাগটিয়া গ্রামসহ ২০টি গ্রাম হুমকির মুখে। ইজারার কথা বলে তারা পাড় কাটছে। নদীর পাড় কখনো ইজারা দেওয়া হয় না। এটা সম্পূর্ণভাবে বেআইনি। প্রশাসন মাঝে মাঝে অভিযান চালায়। এতে সাময়িকভাবে পাড় কাটা বন্ধ হয়। আবার শুরু হয়। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই। দৃষ্টিনন্দন এই নদীর তীরে গার্ডওয়াল দিয়ে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হলে এর তীর রক্ষা পাবে এবং পর্যটন শিল্পেরও বিকাশ হবে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা)-এর সভাপতি আবু নাসের বলেন, অবৈধ এবং অপরিকল্পিতভাবে ড্রেজার ও বোমা মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের কারণে প্রকৃতি এবং পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। হাওরের ইকোসিস্টেম বিনষ্ট হচ্ছে। নদী তীরবর্তী বিভিন্ন গ্রাম ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হুমকিতে পড়েছে। এ অন্যায় কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ড, হাওর উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি এসব অপকর্ম বন্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দাবি জানাচ্ছি।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com