1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০১:৫২ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

পতিত জমিতে চাষ : আউশের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

  • আপডেট সময় শনিবার, ৫ আগস্ট, ২০২৩

মো. শাহজাহান মিয়া ::
জগন্নাথপুরে পতিত জমিতে আউশ ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। জমিতে প্রত্যাশার চেয়ে ভালো ফলন পেয়ে কৃষকদের মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি।
জানাগেছে, বেশ কিছুদিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে আউশ ধান কাটার ধুম পড়েছে। এর মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অধিপ্তরের উদ্যোগে উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের মিরপুর বাজারের পাশের হাওরে উৎপাদিত স্থানীয় হলিয়ারপাড়া গ্রামের কৃষক রুহেল মিয়ার জমির পাকা ধান আনুষ্ঠানিকভাবে কর্তন করা হয়েছে। এ সময় নমুনা শস্য কর্তনে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কাওসার আহমেদ সহ অন্যান্য কর্মকর্তা, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও কৃষকেরা অংশগ্রহণ করেন।
এনামুল হক, আছলম উদ্দিন, রহিম আলী, গপেশ দাস, আবদুল কাদির সহ উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের কৃষকদের মধ্যে অনেকে জানান, হাওরবেষ্টিত উপজেলা হচ্ছে জগন্নাথপুর। এ উপজেলায় নিচু জলাভূমির পরিমাণ বেশি। যে কারণে বোরো ধান বেশি আবাদ হয়ে থাকে। তুলনায় উঁচু জমির পরিমাণ কম। তার উপর সকল জমি আবাদ হয় না। বোরোর পরে রয়েছে আমনের অবস্থান। উপজেলাজুড়ে আমন কমবেশি আবাদ হয়। তবে আউশে কৃষকদের যতো অনীহা। পরিমাণে কম হলেও আউশ আবাদের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। তবুও কাক্সিক্ষত আউশ আবাদ হচ্ছে না। ফলে অধিকাংশ আউশ জমি পতিত থাকে। কারণ হিসেবে তারা জানান, যে সময় আউশ রোপন হয়, তখন তেমন বৃষ্টিপাত হয় না। ফলে পানির অভাবে জমি আবাদ কষ্টকর হয়ে যায়। তার উপর উঁচু জমি হওয়ায় কয়েকবার করে হালচাষ করতে হয়। এতে খরচ ও কষ্ট বেশি হয় থাকে। সেই তুলনায় ফলন হয় কম। এসব নানা কারণে আউশ আবাদে কৃষকরা পিছিয়ে থাকেন।
তবে এবার জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে আউশ আবাদে কৃষকদের নানাভাবে উৎসাহিত করা হয়। কৃষকদের খরচ কমাতে সরকারি কৃষি প্রণোদনা হিসেবে উন্নতমানের ধানের বীজ, সারসহ অন্যান্য উপকরণ বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। মাঠে ময়দানে গিয়ে জমি আবাদে শিখিয়ে দেয়া হয় নানা কলা-কৌশল ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ। এতে অনেক অনাবাদি পতিত জমি এবার আবাদের আওতায় এসেছে। সেই সাথে কম খরচে জমি আবাদ করতে পেরেছেন কৃষকরা। অন্য বছরের তুলনায় এবার জমিতে বেশি ধান উৎপাদন হয়েছে। কেদার প্রতি কমপক্ষে ১২ থেকে ১৩ মণ ধান পেয়ে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে।
রুহেল মিয়া সহ অন্যান্য কৃষকরা জানান, এবার কৃষি অধিদপ্তরের কৃষি সহায়তা ও পরামর্শে জমি আবাদ করে কম খরচে বেশি ধান পাওয়ায় অনেক খুশি হয়েছি। আগামীতে আরো বেশি করে আউশ জমি আবাদ করবো।
এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কাওসার আহমেদ জানান, জগন্নাথপুর উপজেলায় দিনদিন জনপ্রিয় হচ্ছে আউশ ধান চাষ। এবার উপজেলার কলকলিয়া, পাটলি ও মিরপুর ইউনিয়ন এলাকার উঁচু জমিতে আউশ বেশি আবাদ হয়েছে। সরকার কৃষি প্রণোদনা দিয়ে কৃষকদের জমি আবাদে উৎসাহিত করছে। কৃষকেরাও সরকারি প্রণোদনার সুফল পাচ্ছেন। তাই জমিতে ভালো ধান পেয়ে কৃষকরা অনেক খুশি হয়েছেন। সবাই আগামীতে আউশ আবাদে আগ্রহী হচ্ছেন। এতে আশা করছি, আগামীতে সকল পতিত জমি আবাদের আওতায় চলে আসবে এবং আউশ আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। এবার জগন্নাথপুর উপজেলায় ২২৫১ হেক্টর আউশ জমি আবাদ হয়েছে। এতে সরকারি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৭৭৫ মেট্রিকটন ধান। তবে এবার প্রত্যাশার চেয়ে ভালো ফলন হওয়ায় কৃষক ভাইদের সাথে আমরাও খুশি হয়েছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com