1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

কারো মাতব্বরি আমাদের প্রয়োজন নেই : পরিকল্পনামন্ত্রী

  • আপডেট সময় সোমবার, ১৭ জুলাই, ২০২৩

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
আমাদের কারো মাতব্বরির কোনো প্রয়োজন নেই মন্তব্য করে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। তিনি বলেন, আমরা নিজেরাই আমাদের পথ ঠিক করব। বিদেশী বন্ধুরা আসবে, আমাদের সাথে চা খাবে এটা ঠিক আছে। কিন্তু বন্ধুরা আমাদের পরিচালনা করবে না; এসব গ্রহণযোগ্য নয়।
রোববার (১৬ জুলাই) রাজধানীর আগারগাঁয়ের বিনিয়োগ ভবনে বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে এসব কথা বলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।
এমএ মান্নান বলেন, সাহেবরা আসবে ঘুরে বেড়াবে, ঠিক আছে। তবে আমরা আমাদের কাজ করতে চাই। আমাদের সম্পদ যেন নিরাপদ-নির্বিঘœ থাকে এটার জন্য শান্তিপূর্ণ পরিবেশ দরকার। আগেকার যুগে আমরা মাতব্বর দেখতাম, তারা বিভিন্ন বিষয়ে ঘুরে ঘুরে নসিহত করত। তারা অনেক অর্থের মালিক হয়েছে। যদিও অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন আছে। একই সাথে তারা শিক্ষা ও দক্ষতারও মালিক হয়ে গেছে।
মন্ত্রী বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের প্রধান কাজ উন্নয়ন। পশ্চাদমুখীতা থেকে বেরিয়ে এসে দক্ষতা বৃদ্ধির কাজের সময় এখন। দেরিতে শুরু করেছি আমরা। দুইদিন আগেও এটা বুভুক্ষ জাতি ছিল। তবে এখন অভাবনীয় অর্জন নিয়ে সামনে এগিয়ে যাচ্ছি। সারা বিশ্ব জিজ্ঞেস করে, এটা কীভাবে সম্ভব হয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বের মাধ্যমে। আমরা পারি, আমরা পেরেছি এই বার্তা ছড়িয়ে দিতে হবে এখন।
ইতিহাসের রাজা-বাদশাহদের নাম জেনে কী লাভ? এমন প্রশ্ন রেখে কারিগরি শিক্ষায় আরো বেশি গুরুত্ব আরোপের আহ্বান জানান এমএ মান্নান।
এম এ মান্নান আরও বলেন, বিশ্বের যারা আমাদের বন্ধুরা আসছেন, তাদের কাছে আমাদের আবেদন আপনারা আমাদের কাজ করতে দিন। আমরা আমাদের বিশাল প্রতিবেশীর তুলনায় স্বাস্থ্যে, স্বাক্ষরতায়, বিদ্যুতে এগিয়ে আছি। আমাদের কান্নাকাটির দিন শেষ।
মন্ত্রী বলেন, আমরা জাতীয়ভাবে সংকটের মধ্যে যাচ্ছি। এটি নাগরিক হিসেবে বলছি, মন্ত্রী হিসেবে নয়। আমরা আমাদের পথ নিজেরাই ঠিক করবো। আমাদের ভালোমন্দ নিজেরাই বুঝি। আমাদের নেতৃত্বে আমাদের বিশ্বাস আছে। গত কয়েক বছরে মাথাপিছু আয় ও জাতীয় উৎপাদন ৫ গুণ বেড়েছে।
তিনি বলেন, আমাদের এখন কাজ করার জন্য দরকার শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল পরিবেশ। আমরা অনেক সমস্যার ধারাবাহিক সমাধান করেছি। সব ঠিক করেছি? মোটেও না। বলা হয় বৈষম্য বাড়ছে, এটা ঠিক। কিন্তু ২০০৯ সালে যার কাছে ১ হাজার টাকা ছিল, এখন তিনি ১ লাখ টাকার মালিক। ২০০৯ সালে যে ব্যক্তি শূন্য ছিল এখন সে ১০০ হয়েছে।
তিনি আরও বলে, দেশের ৮০ ভাগ কর্মী দক্ষতার উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছেন। তাদের পুঁজি, শ্রম, মেধা এখানে আছে। দেশের রাজনীতি অর্থনীতি একটি আরেকটিকে প্রভাবিত করে। আমাদের অনেক সমস্যা আছে, বিশেষ করে দারিদ্র্যতা। মানসিকভাবে, পশ্চাৎমুখীতা থেকে বেরিয়ে এসে শুধু দৈহিক দক্ষতা নয়, মানসিক দক্ষতাকেও কাজে লাগাতে হবে।
এ সময় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, গতকাল ব্যবসায়ীরা প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন দিয়েছে। আর কাউকে পরীক্ষা করার সময় নেই, যিনি পরীক্ষিত তাকেই আমরা সমর্থন দিয়েছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com