1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

বেকার বখাটে তৈরির আর্থ সামাজিক ব্যবস্থাটিকে বদলে দিন

  • আপডেট সময় রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

গত শুক্রবারের (১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩) দৈনিক সুনামকণ্ঠের একটি সংবাদ শিরোনামছিল, ‘ছাত্রীদের পথরোধ করে ইভটিজিং \ চার বখাটের কারাদ-’। জামালগঞ্জ উপজেলার নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের পথরোধ করে ইভটিজিং করার দায়ে চার বখাটেকে কারাদ- দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এবং এমন অবস্থা বোধকরি সারাদেশেই Ñ শহর কিংবা গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকা পর্যন্ত Ñ কমবেশি মাত্রায় বিস্তৃত।
অভিজ্ঞমহলের ধারণা দেশের সর্বত্র আদালতের এই রকম কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে যে-সব কিশোর-তরুণ বা অন্য যে-কেউ নিজেদেরকে এইরূপ অপকর্মে নিয়োজিত রাখেন তাঁরা সে-অপকর্ম করা থেকে বিরত থাকবেন এবং এই দ- প্রদানের প্রভাবে তাঁদের পরিবারগুলো সতর্ক হয়ে উঠে ইভটিজিংয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সদস্যদেরকে উত্ত্যক্তকরণ থেকে বিরত রাখার প্রচেষ্টা চালাতে সক্রিয় হবেন। বলা যায়, এইভাবে পারিবারিক পর্যায়ে সতর্কতা বৃদ্ধির প্রবণতাটি সমগ্র সমাজে ছড়িয়ে পড়ে সমাজ থেকে ইভটিজিংয়ের কলঙ্কচিহ্ন তিরোহিত করবে।
কিন্তু এখানে দ-প্রাপ্তদের বয়সসীমা, ১৮ বছর, রাষ্ট্র কর্তৃক সামাধানযোগ্য একটি সামাজিক সমস্যাকে নির্দেশ করছে। রাষ্ট্রের দায়িত্ব তাদেরকে হয় পড়াশোনায়, না হয় কোনও কাজে নিয়োজিত করে রাখার সার্বিক ব্যবস্থা করা। যেখানে এই বয়সের পূর্বাপর কিশোর অথবা তরুণ হয় পড়াশোনায় কিংবা কোনও পেশাভিত্তিক কাজে নিরত থাকার কথা, সেখানে তারা পথে-ঘাটে, দোকান-পাটে আড্ড-চাড্ডায় বেকার সময় কাটানোর সঙ্গে ইভটিজিংয়ে ব্যাপৃত থাকছে। এমনকি তদোর্ধ্ব বয়সের শিক্ষিত বেকার ছেলেরা কোনও কাজে নিয়োজিত হতে না পেরে হতাশায় ভোগছে এবং প্রকারান্তরে অসামাজিক ও বেআইনি কাজে লিপ্ত হয়ে পড়ছে অথবা কেউ কেউ মাদকাসক্ত হয়ে নিজের জীবনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। এইসব কিশোর-তরুণদের এই ভয়ানক অবস্থা থেকে উদ্ধার করে তাদেরকে জনশক্তিতে পরিণত করতে পারাটাই ইতোমধ্যে বিগত দশকের শুরুতে সূচিত উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে ও সেটাকে সুসংহত করতে অত্যন্ত জরুরি একটি জাতীয় কর্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিক্ষাব্যবস্থাকে সে-লক্ষ্যানুসরী করে তোলতে না পারলে অর্জিত উন্নয়ন মুখ থুবড়ে পড়বে তাতে কোনও সন্দেহ নেই। আমরা আশা করছি শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে এই জাতীয় কর্তব্যটি সুচারুরূপে সম্পন্ন হবে।
শেষ করার আগে বলি, কেউ যাতে বখাটে না হয়ে পড়ে সে-মতো করে দেশের আর্থসামাজিক ব্যবস্থাটাকে বিন্যস্ত করুন, সেই সঙ্গে শিক্ষাব্যবস্থাটি যাতে বেকার সৃষ্টির কারখানা হয়ে না উঠে তার ব্যবস্থাটি করতে ভুলবেন না। এককথায়, বেকার বখাটে তৈরির আর্থসামাজিক ব্যবস্থাটিকে বদলে দিন।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com