1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ছাতক-সিলেট রেলপথ সংস্কারের উদ্যোগ

  • আপডেট সময় শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২২

শংকর দত্ত ::
দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা ছাতক-সিলেট রেলপথ সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ জন্য রেলপথটি সংস্কার ও আধুনিকায়নে ২২২ কোটি টাকার নতুন একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ছাতক-সিলেট রেলপথ সংস্কারের জন্য গত এক সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন ধরনের সমীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে রেলওয়ে বিভাগ। এরআগে গত ১৩ নভেম্বর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ছাতক-সিলেট রেলপথ পরিদর্শন করেন রেলওয়ে বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং এশিয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) প্রতিনিধি দল। এ সময় তারা রেললাইন পুনঃসচল করার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। ছাতক-সিলেট রেলপথ ও স্টেশনগুলো আধুনিকায়ন করার গৃহীত পরিকল্পনার কথাও জানান প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। তারা জানিয়েছেন সব ঠিকঠাক থাকলে ২০২৩ সালের মধ্যে ছাতক-সিলেট রেলপথ ও স্টেশনগুলো আধুনিকায়ন করে পুনরায় রেল যোগাযোগ স্থাপন করা হবে।
ওই দিন রেলওয়ে সিলেটের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আনোয়ার হোসাইন, এশিয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) কনসালটেন্ট রাকিবুল ইসলামসহ প্রতিনিধি দলের কর্মকর্তারা বিকেলে ছাতক বাজার রেলওয়ে স্টেশনে জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় ছাতক-সিলেট রেলপথ পুনরায় চালু করার সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন তারা। পরে আরও দুই দফায় রেলপথ পরিদর্শন করেছেন রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন প্রকৌশলী ও এডিবির কর্মকর্তারা।
বাংলাদেশ রেলওয়ে সিলেটের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ার হোসাইন, সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী (ছাতক বাজার) জুবায়ের আহমদ, সিলেটের ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী (কার্য) জুয়েল হোসেন, ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জুলহাস, উপ- সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল নূরসহ কর্মকর্তারা জানান, করোনা মহামারির সময় থেকে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকায় এবং বন্যায় অধিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ছাতক থেকে আফজলাবাদ পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার রেলপথ ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আফজলাবাদ থেকে খাজাঞ্চিগাঁও পর্যন্ত আরও ১২ কিলোমিটার রেলপথ। ক্ষতিগ্রস্ত রেলপথ মেরামতের জন্য ইতোমধ্যেই ২২ কোটি টাকার প্রকল্প বরাদ্দ হয়েছে। পরবর্তীতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ছাতক-সিলেট রেলপথকে আধুনিকায়ন করতে ২২২ কোটি টাকার নতুন একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। রেলপথের কয়েকটি ব্রিজের সংস্কার কাজও ইতোমধ্যে স¤পন্ন করা হয়েছে।
রেলপথ সংস্কার কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সুপার ভাইজার আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন, রেলপথের ব্রিজগুলোর কাজ করছেন তারা। রেল লাইন মেরামতের কাজ এখনো শুরু হয়নি। লাইন মেরামতের জন্য জরিপ চলছে। তিনি বলেন, ছাতক থেকে সিলেট পর্যন্ত রেল লাইনে ছোট-বড় ব্রিজ রয়েছে ৩৮টি। এর মধ্যে ছাতক অংশে ১০টি ব্রিজ। ইতোমধ্যে রেলপথের ৩১টি ব্রিজের মেরামত কাজ স¤পন্ন হয়েছে।
এদিকে, স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ছাতক-সিলেট রেলপথে সংস্কার কাজ শুরু করায় জনমনে আশার আলো দেখা দিয়েছে। বিগত বন্যার পানির তীব্র ¯্রােতে ছাতক থেকে সিলেট পর্যন্ত ৩৪ কিলোমিটার রেলপথের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়। ছাতক থেকে আফজলাবাদ পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার রেলপথ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রেলপথের এই অংশ প্রায় ল-ভ- হয়ে গেছে। অধিকাংশ স্থানে রেলপথের মাটি-পাথর সরে ঝুলে ঝুলে রয়েছে স্লিপার।
করোনা মহামারির সময়ে এই রেলপথে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়ে। স¤পূর্ণ চালু অবস্থায় ছাতক-সিলেট রেলপথে রেল যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। বন্যার আগ পর্যন্ত এই রেলপথে আর রেল যোগাযোগ স্থাপিত হয়নি। এর মধ্যে বন্যায় রেলপথের অধিকাংশ স্থান ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলে এই রেলপথে যাতায়াতকারি ৩ উপজেলার কয়েক লক্ষ মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
১৯৫৪ সালে সিলেট রেলওয়ে স্টেশন থেকে বর্তমান সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক বাজার রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত ৩৪ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হয়। ওই সময়ে এই রেলপথের সর্বশেষ স্টেশন হিসেবে ছাতক বাজার রেলওয়ে স্টেশন নির্মাণ করা হয়। আগে এটি ছিল আখাউড়া-কুলাউড়া-সিলেট পর্যন্ত সীমাবদ্ধ। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পাথর, বালু, চুনাপাথর, কমলালেবু, ধান- চাল ও তেজপাতাসহ বিভিন্ন মালামাল আনা-নেওয়ার জন্যই মূলত রেলপথটি নির্মিত হয়েছিল। পরে এখানের কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের কাঁচামাল পরিবহন, ছাতক দোয়ারাবাজার অঞ্চলসহ সুনামগঞ্জ জেলার মানুষের যাতায়াত সুবিধার ব্যাপক উন্নতি হয় এই রেলপথের মাধ্যমে। এই অঞ্চলের মানুষের সে সময় থেকেই ছিল একমাত্র ভরসা রেলপথ। শুরু থেকেই রেল বিভাগের রাজস্ব আয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ছাতক-সিলেট রেলপথটি। ১৯৭৯ সালে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের রাজস্ব আয়ে ছাতক বাজার স্টেশন শ্রেষ্ঠত্বের স্থান দখলে করে নেয়। ছাতক থেকে সিলেট পর্যন্ত ৩৪ কিলোমিটার রেলপথে যাত্রী ভাড়া মাত্র ১২ টাকা। এ দিকে ট্রেনের ভাড়া ১২ টাকার বিপরীতে বাস ভাড়া বর্তমানে ৮০ টাকা ও সিএনজি ভাড়া ১শ ৩০ থেকে দেড়শ টাকা।
রেল বিভাগের সিলেটের পূর্বাঞ্চলের সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন আরও জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রেললাইন মেরামতের জন্য নতুন প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। রেল বিভাগের পাশাপাশি এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) কর্মকর্তারা তদারকি করছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com