1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১২:০৬ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

আ.লীগ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা চায়

  • আপডেট সময় শনিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২২

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
দেশের ইতিহাসে একমাত্র আওয়ামী লীগই শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছে মন্তব্য করে দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা কিন্তু সব সময় রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা চাই। শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের জাতীয় সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ভোট চুরির অপরাধে খালেদা জিয়াকে দেশের জনগণ পদত্যাগ করতে বাধ্য করেছিল ৯৬ সালের ৩০ মার্চ। এরপর যে নির্বাচন হয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকারে আসে ২০০১ এ। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে সেই ক্ষমতা হস্তান্তর করি।

তিনি বলেন, দেশের ইতিহাসে এ একবারই শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর হয় সেটা আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় তখন। অন্য কোনো সময় না। আমরা কিন্তু সব সময় রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা চাই, গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা চাই।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০১ এর নির্বাচনে তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিল। আওয়ামী লীগ সরকার, আমরা কিন্তু খুব শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করি। সার্বিক চিত্রটা যদি দেখেন দেশের ইতিহাসে ওই একবারই।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির পিতা সংবিধান দিয়ে ৭৩ সালে নির্বাচন দেন। ৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যা করে ক্ষমতা দখল। এ যে ক্ষমতা দখলের পালা শুরু এরপর আর কোনোদিনই দেশে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা রদবদল হয়নি। প্রতিটা সময় আমরা আন্দোলন করে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ভোটারবিহীন ইলেকশন করল খালেদা জিয়া। জনগণ একটা ভোটও দিতে পারেনি। আমরা জনগণকে আহ্বান করলাম, আন্দোলন হলো, ৩০ মার্চ খালেদা জিয়া বাধ্য হয়েছিল পদত্যাগ করতে।

পালিয়ে থাকা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে আনার প্রচেষ্টার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করি এবং জনগণের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা জানাই। অন্তত তারা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিল বলেই এ হত্যার বিচার করতে পেরেছি। কিন্তু এখনো কিছু খুনি রয়ে গেছে। আমেরিকায় এক খুনি রয়ে গেছে, তাকে ফিরিয়ে আনার জন্য আমরা বারবার চেষ্টা করছি। তার ফাঁসির আদেশ হয়েছে।
বঙ্গবন্ধুর পালিয়ে থাকা খুনিদের ফিরিয়ে আনা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, খুনিদের লালন পালন করা- একজন কানাডায়, একজন ওই আছে আমেরিকায়, আর দুইজন পাকিস্তানে। আরেকজনের খবর পাওয়া যাচ্ছে না কখনো ইন্ডিয়াতে কখনো জার্মানিতে বিভিন্ন জায়গায় মোসলেহ উদ্দিন। তারপরও আমাদের প্রচেষ্টা আছে যে পৃথিবীর যেখানেই থাকুক, যেভাবেই হোক তাদের ধরে এনে সাজা অবশ্যই আমরা নিশ্চিত করবে ইনশাআল্লাহ। সেটাই আমি চাই।

পশ্চিমা বিশ্বের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে যেরকম একজন ড্রাগ ডিলার, বারবার ড্রাগসহ ধরতে গেছে পুলিশ। তার (পুলিশ) ওপর হামলা করেছে, র‌্যাব ধরতে গেছে হামলা করেছে। ১৪টা মামলার আসামি ড্রাগসহ ধরা পড়ে। পুলিশের ওপর তার গ্রুপ গুলি করে, র‌্যাবের ওপর গুলি করে। তারপর সেও গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। তার জন্য আমাদের দেশের কিছু লোক বিভিন্ন জায়গায় তদবির করে বেড়ায়। অথচ এ ড্রাগ ডিলারদের খোঁজ আনতে গিয়ে, ধরতে গিয়ে আমাদেরই একজন এয়ার ফোর্স এর অফিসারকে ড্রাগ ডিলাররা অপহরণ করে নিয়ে যায়। অত্যন্ত নির্মমভাবেই তাকে হত্যা করে। কিছুদিন আগের ঘটনা।

বাংলাদেশের কয়েকজনের ওপর আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, এ ব্যাপারে তাদের কোনো উদ্বেগ নেই। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর উদ্বেগ নেই। যারা ওই আমাদের উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়, আমেরিকা তাদেরও কোনো উদ্বেগ নেই। কারো কোনো উদ্যোগ নেই। কেমন একটা অদ্ভুত বিশ্ব পরিস্থিতি, সেটাই আমার কাছে অবাক লাগে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com