1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনে নানা রোগে ভুগবে ৫০ কোটি মানুষ

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২২

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
যান্ত্রিক জীবনে শারীরিক কসরতের প্রবণতা দিন দিন কমছে। শরীরে ডানা বাঁধছে নানা রোগ। শারীরিক কসরত না করার বিষয়ে এবার দুঃসংবাদ দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিওএইচও)। সংস্থাটি সতর্ক করে বলেছে, শারীরিক কসরতে নাগরিকদের উৎসাহিত করতে সরকার যদি এখনই জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ না করে তাহলে ২০৩০ সাল নাগাদ কমপক্ষে ৫০ কোটি মানুষ হৃদরোগ, ডায়াবেটিক, স্থূলতাসহ নানা রোগের ঝুঁকিতে পড়বে।
গত বুধবার এক প্রতিবেদনে এনডিটিভি জানিয়েছে, গত সপ্তাহে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ডব্লিওএইচও। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শারীরিক কসরত না করার কারণে নানা রোগে ভুগে প্রতি বছর মানুষের প্রায় ২ হাজার ৭০০ কোটি ডলার সমমূল্যের আর্থিক ক্ষতি হয়।
জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত দেশগুলো সকল বয়সী নাগরিকদের শারীরিক কসরতে আগ্রহী করতে যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে সেটির ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৪টি দেশের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে- পদক্ষেপ নেওয়ার ক্ষেত্রে দেশগুলো বেশ ধীরগতিতে আগাচ্ছে। সরকারিভাবে যদি শারীরিক কসরতের বিষয়ে নাগরিকদের উৎসাহ দেওয়া হয় তাহলে হৃদরোগ, ডায়াবেটিক, স্থূলতাসহ অসংক্রামক রোগে আক্রান্তের ঝুঁকি কমবে। এতে স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থার ওপর যে অতিরিক্ত চাপ সেটিও কমে আসবে।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ৫০ শতাংশেরও কম দেশে নাগরিকদের শারীরিক কসরতে উৎসাহিত করার নীতি আছে, এর মধ্যে ৪০ শতাংশেরও কম দেশে এসব নীতির প্রয়োগ হয়। ৩০ শতাংশ দেশে সব বয়সীদের জন্য জাতীয় শারীরিক কার্যকলাপ নির্দেশিকা রয়েছে। ৭৫ শতাংশ দেশ প্রাপ্তবয়স্কদের শারীরিক কসরতের বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে। আর ৩০ শতাংশের কম দেশ ৫ বছরের নিচের শিশুদের শারীরিক কসরতের বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে থাকে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলেন, হাঁটা, সাইক্লিং, সাঁতার, খেলাধুলা ও অন্যান্য শারীরিক কসরতের কার্যক্রম বাড়াতে দেশগুলোকে আরও সক্রিয় হতে হবে। এগুলোর উপকারিতা অনেক। এগুলো শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতির পাশাপাশি ব্যাপকভাবে সামাজিক, পরিবেশগত ও অর্থনৈতিক অবদান রাখতে পারে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে নীতিমালা গ্রহণে দেশগুলোকে এ স¤পর্কিত একটি খসড়া কর্মপরিকল্পনাও প্রস্তাব করা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে- সাইকেল চালানোর উপযোগী সড়ক নির্মাণ করা এবং শিশুনিবাস, বিদ্যালয়, প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও কর্মক্ষেত্রের মতো গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় শারীরিক কসরতের সুযোগ বাড়ানো।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com