1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

শহরে অবৈধ যানের দাপট

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর, ২০২২

শামসুল কাদির মিছবাহ ::
শহরে যানজট ও দুর্ঘটনার নতুন ঝুঁকির সৃষ্টি করেছে মোটরচালিত অবৈধ অটোরিকশা। উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে শহরে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এই অবৈধ যান। দিন দিন বাড়ছে এসব যানের সংখ্যা, তেমনই ঘটছে দুর্ঘটনা। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বলছে, এসব অবৈধ অটোরিকশার বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হচ্ছে এবং আটক করা হচ্ছে। তবে দৃশ্যত থেমে নেই এসব অবৈধ যানবাহনের দৌরাত্ম্য। বিপজ্জনক এসব বাহনের কোনো অনুমোদন না থাকার পরও সড়কে কিভাবে চলাচল করছে এবং কারা এসব চলাচলের সুযোগ করে দিচ্ছে এ নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। এর নেপথ্যে কোনো অসাধু চক্র জড়িত রয়েছে কি না বিষয়টি খতিয়ে দেখাও দাবি উঠেছে সচেতন মহল থেকে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রয়োজনের তুলনায় শহরে অতিরিক্ত অটোরিকশা ও মোটরচালিত প্যাডেল রিকশা চলাচল করছে। এবং এর বেশিরভাগ চালক অদক্ষ এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের দায়বদ্ধতা এড়ানোর কোনো সুযোগ নেই বলে মত দিয়েছেন সচেতনমহল। তাঁরা জানান, জনচলাচলের সড়ক অনিরাপদ রেখে দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির কথা চিন্তাও করা যায় না। উন্নয়নের সাথে নিরাপদ সড়কের স¤পর্ক বিদ্যমান। সড়ক নিরাপদ রাখতে পর্যাপ্ত ও বৈধ যানবাহন চলাচলে অনুমোদন প্রদান ও প্যাডেল রিকশা, ঠেলা এবং ভ্যান থেকে মোটর খুলে ফেলার পক্ষেও মত দেন তাঁরা। নাগরিকরা জানান, শহরের প্রধান রাস্তা ও পাড়ার গলিপথ পুরোটাই মোটরচালিত প্যাডেল রিকশা ও অটোরিকশার দখলে। বেশিরভাগ চালকই অদক্ষ ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক। তারা অন্য পেশা থেকে হুট করে এসে অটোরিকশার চালক হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে রাস্তায় দুর্ঘটনা ঘটছে। সারাক্ষণ ভয় ও উদ্বেগ নিয়ে চলতে হয়। বিশেষ করে বয়স্ক মানুষ, রোগী ও বাচ্চাদের স্কুলে যাতায়াতে ভীষণ অসুবিধায় পড়তে হয়। জনৈক ভুক্তভোগী বলেন, আমাদের ছোট্ট এ শহরে যে হারে ইজিবাইক ও মোটর সংযুক্ত প্যাডেল রিকশা বেড়েছে তাতে মনে হচ্ছে পুরো সড়কটাই তাদের দখলে। এব্যাপারে প্রশাসনের তৎপরতা বাড়ানো দরকার। ষোলঘর এলাকার বাসিন্দা মতিন মিয়া বলেন, ব্যাটারি চালিত অটোরিকসার সংখ্যা বাড়তে বাড়তে এমন অবস্থা দাড়িয়েছে রাস্তায় নিরাপদে চলাচল দায় হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় পায়ে হেঁটে চলা সবচেয়ে বেশি কঠিন। শহরের প্রতিটি এলাকার অলিগলি এখন ইজিবাইক ও মোটরচালিত প্যাডেল রিকশার দখলে। বিশেষ করে মোটর সংযুক্ত প্যাডেল রিকশা অবৈধ হলেও শহরে প্রতিনিয়তই চলাচল করছে। তিন চাকার এসব রিকশার সামনেই শুধু ব্রেক থাকে। যার ফলে দ্রুত গতির এসব রিকশা প্রায়ই উল্টে গিয়ে ঘটে দুর্ঘটনা। এগুলোর চালক বেশিরভাগ অদক্ষ ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক। বেপরোয়া গতির এসব যানবাহনের নেই কোনো নিয়ন্ত্রণ। প্রতিদিনই দুর্ঘটনার পাশাপাশি যানজটেরও অন্যতম কারণ অতিরিক্ত অটোরিকশা ও মোটরচালিত প্যাডেল রিকশা।
তেঘরিয়া এলাকার বাসিন্দা সাকিব আহমদ বলেন, মোটর ও ব্যাটারিচালিত যানের জন্য সড়কে একদিকে যেমন বাড়ছে যানজট, তেমনি দুর্ঘটনার নতুন হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এগুলোর জন্য বাড়তি বিদ্যুতের অপচয় হয়। এসব যান বন্ধ করা হলে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হতো।
সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, মোটরচালিত প্যাডেল রিকশা চলাচলে পৌরসভার কোনো অনুমোদন নেই। তবে অটোরিকশা হাইকোর্ট থেকে অনুমতি নিয়ে আসায় পৌরসভা থেকে সাড়ে ৬শ’র মতো লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। আর মোটরচালিত প্যাডেল রিকশা চলাচলে কোনো অনুমতি নেই। যারা পৌর শহরে অটোরিকশা চালায় তারা শুধু পৌরসভার নয়, সারা জেলা থেকে আসে। তাই এদের বিকল্প কর্মসংস্থান নিয়েও আমাদের ভাবতে হবে।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ বলেন, মোটর সংযুক্ত করে প্যাডেলচালিত রিকশা, ঠেলা বা ভ্যান এগুলো স¤পূর্ণ অবৈধ। এগুলোর বিরুদ্ধে আমাদের ট্রাফিক পুলিশ প্রতিদিনই অভিযান পরিচালনা করছে এবং আটক করছে। এটা চলমান প্রক্রিয়া। প্রতিদিনই আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। এসব অবৈধ মোটরচালিত রিকশা শহরে চলাচলের কোনো সুযোগ নেই। শহরে অটোরিকশা যেগুলো আছে আমরা তালিকা করছি। বাকি যাদের অনুমোদন নেই তাদের ব্যাপারে জেলা প্রশাসক ও মেয়র মহোদয়সহ আমরা বসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com