1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

নদীভাঙন রোধে স্থায়ী ব্যবস্থা নিন

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১

সুনামগঞ্জ জেলায় নদী ভাঙন দিন দিন তীব্র হচ্ছে এই খবর নতুন নয়। নদী ভাঙনে মানুষ নিঃস্ব হলেও তাদের কান্না ‘সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে’র কান পর্যন্ত পৌঁছায় না। ‘বড় বড়’ জনপ্রতিনিধি, ‘দায়িত্বশীল’ কর্তারা ভাঙন রোধে বারবার আশ্বাস দিলেও সেই আশ্বাসের ওপর আর যেন ভুক্তভোগীরা বিশ্বাস রাখতে পারছেন না। তারা এখন নদীভাঙনকে ‘নিয়তি’ বলেই মেনে নিতে চাচ্ছেন।
প্রসঙ্গক্রমে, সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমানের একটি কথা বারবার মনে পড়ছে। আলাপচারিতায় তিনি প্রায়ই বলতেন- সরকার সুনামগঞ্জ থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব নিলেও আমাদের জেলার কাক্সিক্ষত উন্নয়ন হয় না। বিভিন্ন জেলার উদাহরণ টেনে বলতেন- পদ্মা-মেঘনার ভাঙনরোধে ব্যবস্থা নেয়া হলেও সুরমার ভাঙন রোধে পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়টি কেন উপেক্ষিত থাকে? তিনি আরও বলতেন, সুনামগঞ্জকে উন্নয়ন সমতায় আনতে হলে জেলার মন্ত্রী-এমপি, রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধিদেরকেই অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।
যাই হোক, জেলার নদীগুলোর ভাঙন রোধে ঢিলেঢালা কার্যক্রমের প্রমাণ পাওয়া যায় জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শামসুদ্দোহার বক্তব্যে। সুনামকণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদে তার উদ্ধৃতি দিয়ে লেখা হয়েছে- “অনেক সময় প্রকল্প অনুযায়ী টাকা বরাদ্দ না আসায় আমরা চাহিদামত কাজ করতে পারি না। কখনও কখনও প্রকল্প পাস হয় সময় বেশি নিয়ে। এটাও একটা সমস্যা। আমাদের সেদিকে চেয়ে থাকতে হয়। নদী ভাঙনরোধের জন্য করণীয় প্রকল্পগুলো মন্ত্রণালয়ে আছে। এগুলো পাস হলেই আমরা সেই অনুসারে কাজ করতে পারবো।”
শুরুতে বলেছিলাম নদীভাঙনে নিঃস্ব মানুষের কান্না ‘উপরতালা’ পর্যন্ত পৌঁছায় না। যদি সেই কান্নার আওয়াজ পৌঁছাতো তাহলে সরকার বাস্তবতা অনুধাবন করে দ্রুত ব্যবস্থা নিতো, সরকারের দায়িত্বশীলরা এসব ঢিলেমি থেকে বের হয়ে আসতেন।
নদীভাঙন রোধে বাঁধ দেওয়া ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের মূল দায়িত্ব পালন করে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। পাউবো ছাড়াও পানিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে আরও কয়েকটি সংস্থা রয়েছে, যারা নদীভাঙন স¤পর্কিত পূর্বাভাস দেন, গবেষণা করেন, নদী ব্যবস্থাপনার উপযোগী মডেল ও নকশা তৈরি করেন। এসব সংস্থার রিপোর্ট এবং মাঠপর্যায়ের প্রকৌশলীদের পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে পাউবো নদীভাঙন রোধের পরিকল্পনা ও প্রকল্প তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠায় অনুমোদন ও বাজেট বরাদ্দের জন্য। অনুমোদন ও বরাদ্দ পাওয়া গেলেই কাজে হাত দেওয়া হয়।
সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস (সিইজিআইএস) নামে একটি গবেষণা সংস্থা রয়েছে পানিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে। উপগ্রহের মাধ্যমে প্রাপ্ত ছবি ও তথ্যের ভিত্তিতে এ সংস্থা নদীভাঙনের পূর্বাভাস দিচ্ছে ২০০৪ সাল থেকে। মূলত দেশের প্রধান নদী যমুনা, গঙ্গা ও পদ্মার তীরের কোনো কোনো স্থানে ভাঙন হতে পারে এবং নদীর গতিপথ বা স্রোতধারা কোথাও পরিবর্তিত হতে পারে কিনা সে স¤পর্কেই সংস্থাটি পূর্বাভাস দিয়ে থাকে। আমরা মনে করি সেই পর্যবেক্ষণে দেশের দীর্ঘতম নদী সুরমাকেও অন্তর্ভুক্ত করা সময়ের দাবি। সিইজিআইএস ছাড়া আরও যেসব প্রতিষ্ঠান নদী স¤পর্কিত গবেষণা করে, তার মধ্যে ফরিদপুরের নদী গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং (আইডাব্লিউএম) অন্যতম। এ দুটি প্রতিষ্ঠান বন্যার পূর্বাভাস, বন্যা নিয়ন্ত্রণ, পানিস¤পদ ব্যবস্থাপনার প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে এবং সরকারকে রিপোর্ট ও সুপারিশ প্রদান করে। সবকটি সংস্থার পূর্বাভাস ও রিপোর্ট এবং নিজস্ব প্রকৌশলীদের পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে পাউবো নদীভাঙন রোধের কর্মপদ্ধতি নির্ধারণ করে। পানিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান নদীভাঙন নিয়ে গবেষণা ও সুপারিশ করলেও ভাঙনরোধের পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের দায়িত্ব পাউবোর। কিন্তু এক্ষেত্রে সমন্বয়ের অভাব লক্ষ করা যায়। পাউবো এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থার মধ্যে কার্যকর সমন্বয় গড়ে তোলার দায়িত্ব উচ্চতর কর্তৃপক্ষ তথা মন্ত্রণালয়ের। পানিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের সার্বক্ষণিক নজরদারি পাউবো ও অন্যান্য সংস্থার মধ্যে কার্যকর ও জোরদার সমন্বয় সৃষ্টি করতে পারে, যার মাধ্যমে নদীভাঙন রোধের কার্যক্রম ফলপ্রসূ করা সম্ভব।
নদীভাঙন রোধ জনস্বার্থে অতি গুরুত্বপূর্ণ। এ কাজের জন্য কোনো পর্যায়েই দীর্ঘসূত্রতা বা বিলম্ব কাম্য নয়। বরং এ ধরনের প্রকল্পকে জরুরি ভিত্তিতে অগ্রাধিকার দিয়ে পর্যাপ্ত তহবিল বরাদ্দ করা উচিত। আমরা বিশ্বাস করি, সদিচ্ছা থাকলে নদীভাঙন রোধে স্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়া কঠিন কিছু নয়। নদীভাঙন বন্ধ করা গেলে লাখ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা বাঁচবে। আশ্রয় ও জীবিকার সন্ধানে তারা শহরাঞ্চলে ছুটে আসবে না। বিস্তীর্ণ ফসলের জমি নদীতে তলিয়ে যাবে না, জনপদ, অবকাঠামো বিলুপ্ত হওয়া থেকে রক্ষা পাবে। বাস্তবতার নিরিখে আমরা বলতে চাই, সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় নদীভাঙন রোধে কার্যকর এবং স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি হয়ে পড়েছে। আমরা চাই না, নদীভাঙনে আর একজন মানুষও নিঃস্ব হোক। আমরা সরকারের কাছে আবারো দাবি জানাই, সুনামগঞ্জের নদীভাঙন রোধে দ্রুত পদক্ষেপ নিন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com