1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ছাতক-দোয়ারায় আ.লীগের ‘দুর্বল’ প্রার্থীতে সুবিধা বিদ্রোহী ও বিএনপির

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২১

বিশেষ প্রতিনিধি ::
ছাতক ও দোয়ারাবাজারে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে একপক্ষকে পুরোপুরি ‘কাট’ করতে গিয়ে কয়েকটি ইউনিয়নে ‘দুর্বল’ প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। ভোটের মাঠে এই ‘দুর্বলতার’ সুযোগ কাজে লাগাবেন দলের বিদ্রোহী ও বিএনপি’র সিদ্ধান্ত না মেনে নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীরা। মনোনয়নের ক্ষেত্রে উপরোক্ত অভিযোগ ও শঙ্কা প্রকাশ করে কয়েকটি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীদের পরিবর্তনের দাবি তুলেছেন বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা।
প্রসঙ্গত, জেলার দ্বিধাবিভক্ত রাজনীতির জেরে দোয়ারাবাজারে আওয়ামী রাজনীতি চলে পৃথক দুটি কমিটির নেতৃত্বে। কমিটি দুটিতে উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ফরিদ আহমদ তারেক নেতৃত্বে রয়েছেন। ইদ্রিস আলী স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এবং তারেক পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী ও তার ভাই শামীম আহমদ চৌধুরীর অনুসারী। এই দু’ভাই জেলায় পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুটের বিশ্বস্ত। সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান নির্বাচনের বিরোধ নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে এমপি মানিক জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে একাট্টা।
সূত্রমতে, পরিবর্তিত রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের জন্য কেন্দ্র ঘোষিত তালিকা প্রকাশের পর দেখা যায় তালিকার সবাই সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের অনুসারী। তালিকায় কালাম-শামীম অনুসারী কোন প্রার্থীকে রাখা হয়নি। এই বলয়ের বর্তমান চেয়ারম্যানসহ বিগত নির্বাচনে নৌকা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা ব্যক্তিরা মনোনয়নবঞ্চিত হয়েছেন।
দলীয় সূত্র জানায়, দোয়ারাবাজারের পূর্ববাংলাবাজার ইউনিয়নে গত নির্বাচনে কালাম-শামীম অনুসারী আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আবুল হোসেনের জায়গায় ভোটের রাজনীতিতে নবাগত মানিক মিয়াকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। ‘দুর্বল’ প্রার্থী বেছে নেওয়ার সুযোগটা পুরোপুরি কাজে লাগাবেন মানিকবিরোধী বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন রানা। একসময়ের বিএনপির ঘাঁটি খ্যাত এই ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহীও ‘দুর্বলতা’র সুযোগকে কাজে লাগাতে পারেন। একইভাবে লক্ষ্মীপুরে বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আমিরুল হকের বিপরীতে নতুন মুখ আব্দুল কাদিরকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টিকে ‘উদ্দেশ্যমূলক’ হিসেবে দেখছেন অনেক নেতাকর্মী।
এদিকে, উপজেলার সুরমা ইউনিয়নে গত নির্বাচনে নৌকা নিয়ে বিজয়ী বর্তমান চেয়ারম্যান মামুন খন্দকার গ্রুপিং রাজনীতির ‘বলি’ হয়েছেন। পরিকল্পনামন্ত্রী অনুসারী এই নেতার বিপরীতে আনা হয়েছে নতুনমুখ আব্দুল হালিম বীরপ্রতীককে। এতে করে বিএনপির শক্তিশালী বিদ্রোহী হারুনুর রশীদের জন্য নির্বাচন ‘সহজ’ হবে বলে মনে করছেন নেতাকর্মীরা।
অপরদিকে, মান্নারগাঁও ইউনিয়নে গত নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বী বরুণ চন্দ্র দাসের পরিবর্তে নৌকা দেওয়া হয়েছে আলোচনায় না থাকা অসিত চন্দ্র দাসকে। নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে মনোনয়ন পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে ইতোপূর্বে বিক্ষোভ করেছেন নেতাকর্মীরা। তারা বলছেন, অসিত দাসকে প্রার্থী রাখা হলে নৌকার ভরাডুবি ঘটিয়ে বিএনপির বিদ্রোহী আবু হেনা আজিজ ও ইজ্জত আলীর মধ্যে যে কেউ বিপুলভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারেন। এই ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রীর অনুসারী জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।

অপরদিকে, ছাতক উপজেলার সদর ইউনিয়নে পরিকল্পনামন্ত্রী অনুসারী জনপ্রিয় বর্তমান চেয়ারম্যানও সাইফুল ইসলামও ‘বলি’ হয়েছেন গ্রুপিং রাজনীতির। তাকে বাদ দিয়ে নৌকা দেওয়া হয়েছে এমপি মানিক অনুসারী রঞ্জন কুমার দাসকে। আর এই উপজেলার কালারুকা ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন পেয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের জন্ম দিয়েছেন সাবেক বিএনপি নেতা মো. অদুদ আলম।
এ ব্যাপারে সুুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট বলেন, ‘ছাতক ও দোয়ারাবাজারে অনেকগুলো ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান এবং গত নির্বাচনে নৌকা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা কয়েকজন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি- যা পুরোপুরি অন্যায়। এটা রাজনীতির শিষ্টারের মধ্যে পড়ে না।’
তিনি আরও বলেন, ‘অনেক ইউনিয়নে নিজের অনুসারী বিদ্র্রোহী প্রার্থীদের জিতিয়ে আনতে দুর্বল প্রার্থীও দেওয়া হয়েছে, যেটা দলের জন্য অশনিসংকেত। বিষয়টি হাইকমান্ডকে খতিয়ে দেখার বিনীত অনুরোধ করছি।’
এ বিষয়ে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমানের বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।
উল্লেখ্য, আগামী ১১ নভেম্বর ছাতকের ১০টি ও দোয়ারাবাজারের ৯টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও সদস্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com