1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:০৬ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

পূজায় থাকবে কঠোর নিরাপত্তা

  • আপডেট সময় শনিবার, ৯ অক্টোবর, ২০২১

শহীদনূর আহমেদ ::
হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজায় সুনামগঞ্জের মণ্ডপগুলোতে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ বিভাগ। জানাগেছে, মণ্ডপ ও আশপাশের এলাকাগুলোতে নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থার প্রয়োজনীয় সংখ্যক সদস্য মোতায়েন থাকবেন। তাছাড়া ‘গুরুত্বপূর্ণ’ মণ্ডপগুলোতে থাকবে বিশেষ নজরদারি। কেউ কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, এবার জেলার ১২ উপজেলায় মোট ৪১৭টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ৪৬টি, শান্তিগঞ্জে ২২টি, জগন্নাথপুরে ৪০টি, ছাতকে ৩৭টি, দোয়ারাবাজারে ১৮টি, দিরাইয়ে ৬৩টি, শাল্লায় ২৯টি, জামালগঞ্জে ৫২টি, বিশ্বম্ভরপুরে ২৯টি, তাহিরপুরে ২৯টি, ধর্মপাশায় ২০টি, মধ্যনগরে ৪২টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। মোট ৪১৭টি মণ্ডপের মধ্যে সার্বজনীন ৪০৪টি এবং পারিবারিক ১৩টি।
এদিকে, দুর্গাপূজা নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সতর্ক অবস্থানে থাকবে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী। নিরাপত্তাবিধানে মাঠে থাকবে পুলিশ, র‌্যাব, আনসারসহ গোয়েন্দার সংস্থার সদস্যরা। সাদা পোশাকে গোয়েন্দারা সার্বক্ষণিক তৎপর থাকবেন। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও থাকবে নজরদারি।
পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বট অনুযায়ী সহস্রাধিক পুলিশ সদস্য নিরাপত্তা বিধানে কাজ করবেন। তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয়ে থাকবে সার্বক্ষণিক টহল, স্ট্রাইকিং টিম ও সাদাপোষাকধারী পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সদস্য।
যেকোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবু সাইদ। তিনি সুনামকণ্ঠকে জানান, মোবাইল টিম ও স্ট্রাইকিং টিমের মাধ্যমে মণ্ডপ এলাকায় টহল জোরদার করা হবে। পূজামণ্ডপের দূরত্ব ও সমাগমের উপর ভিত্তি করে পুলিশের সংখ্যা ও টহল নির্ধারণ করা হবে। যেকোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা কঠোরভাবে মোকাবেলা করা হবে। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের কোনো ছাড় দেয়া হবে না।
পুলিশের পাশাপাশি নিরাপত্তা বিধানে থাকবেন আনসার সদস্যরা। জেলার ১২ উপজেলায় স্ট্রাইকিং ও টহল টিমের মাধ্যমে কাজ করবে তারা। ২০টি মণ্ডপের জন্য একটি টিম নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতি টিমে ১২ জন আনসার সদস্য থাকবেন বলে জানিয়েছেন জেলা কমান্ডার এনামুল খাঁন।
আনসার সদস্যদের নিরাপত্তা কার্যক্রমের বিষয়ে তিনি বলেন, টিম অনুযায়ী সার্বক্ষণিক টহল দেয়া হবে। দুর্গম ও দূরবর্তী মণ্ডপে মোটরসাইকেল ও নৌকাযোগে টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হবে।
এদিকে জেলার শাল্লা ও দিরাই উপজেলাকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে দুর্গাপূজায় নিরাপত্তা বলয় সাজিয়েছে র‌্যাব। শাল্লা উপজেলায় র‌্যাবের অস্থায়ী একটি কন্ট্রোল রুম খোলার কথা জানিয়েছেন র‌্যাব-৯ এর লে. কমান্ডার সিঞ্চন আহমেদ। এছাড়াও জেলার সকল উপজেলায় মণ্ডপ অনুযায়ী র‌্যাবের স্ট্রাইকিং টিম সার্বক্ষণিক টহলে থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
অপরদিকে, শারদীয় দুর্গাপূজায় ১১-১৫ অক্টোবর সকাল ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসকের একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে কন্ট্রোল রুম খোলা থাকবে। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে নির্দিষ্ট নাম্বারে তাৎক্ষণিক যোগাযোগ করা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।
উল্লেখ্য, আগামী ১১ অক্টোবর শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। ১৫ অক্টোবর প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই উৎসব।
অপরদিকে, পূজা উদযাপনে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি যথাযথভাবে মানতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মন্দিরে প্রবেশের সময় অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। প্রবেশপথে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা এবং হাত ধোয়ার ব্যবস্থা থাকবে। এ ছাড়া প্রবেশপথগুলোতে থার্মাল স্ক্যানার থাকবে, যাতে করে পূজামণ্ডপে প্রবেশের সময় তাপমাত্রা পরিমাপ করা যায়। মোদ্দাকথা হলো, স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পূজামণ্ডপে প্রবেশ করতে হবে। এছাড়া নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থা রাখতে বলা হয়েছে। অস্থায়ী মণ্ডপগুলোর প্রতিমা নির্দিষ্ট দিনেই রাত ৮টার মধ্যে বিসর্জনের কথা বলা হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com