1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৪ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ডলুরা শুল্ক স্টেশন চালু হবে কবে?

  • আপডেট সময় বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

শহীদনূর আহমেদ ::
ভারত-বাংলাদেশের যৌথ সিদ্ধান্তে ১৯৯৯ সালের জানুয়ারি মাসে ডলুরা স্থল শুল্ক স্টেশন চালু করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। কিন্তু কাক্সিক্ষত অবকাঠামো উন্নয়ন না হওয়ায় এবং আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে ২০০০ সালের ২৬ মার্চ স্টেশনটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর আরও কিছুদিন স্টেশনটি নামমাত্র চালু রাখে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। এরপর ২০০২ থেকেই বন্ধ রয়েছে কার্যক্রম। পরবর্তীতে দফায় দফায় উদ্যোগ নিয়েও চালু হয়নি সরকারের রাজস্ব আয়ের সম্ভাবনার অন্যতম বৃহৎ শুল্ক স্টেশনটি। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের ডলুরায় শুল্ক স্টেশন চালু হলে সরকার বছরে হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ ব্যবসার পরিধি বিস্তৃতি সম্ভাবনার ক্ষেত্র সৃষ্টি হতো বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।
সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স সূত্রে জানাযায়, সুনামগঞ্জে বাগলি, চারাগাঁও, বড়ছড়া, চেলা-ইছামতিসহ ৪টি শুল্কস্টেশন রয়েছে। এসব শুল্ক স্টেশনে কেবল আমদানি হয়ে থাকে। ডলুরা সুনামগঞ্জের একমাত্র শুল্ক স্টেশন যেখান দিয়ে আমদানির সাথে রপ্তানির সম্ভাবনা রয়েছে। চারটি শুল্ক স্টেশনে যে পরিমাণ রাজস্ব সরকার পেয়ে থাকে এর থেখে তিন গুণ রাজস্ব আদায়ের সম্ভাবনা রয়েছে ডলুরা শুল্ক স্টেশনের মাধ্যমে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ডলুরা শুল্ক স্টেশনকে একটি পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপ দিতে ওয়্যার হাউস তৈরিসহ অবকাঠামোগত উন্নয়নে ইতোমধ্যে জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে শুল্ক স্টেশন চালুর কাজের গতি মন্থর হয়ে পড়ে। তবে এই শুল্ক স্টেশন দিয়ে ভারতের সাথে বাংলাদেশের আমদানি-রপ্তানি আগামী বছর চালু করা যেতে পারে বলে মনে করেন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
সুনামগঞ্জের ব্যবসায়ীরা মনে করেন, ডলুরায় শুল্ক স্টেশন চালু হলে ভারতের মেঘালয়সহ সেভেন সিস্টার্স এবং বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলাগুলোর উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত হবে। পাশাপাশি তাদের উৎপাদিত পণ্যও সহজে আমদানি করা যাবে।
সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খায়রুল হুদা চপল বলেন, ডলুরা স্থল শুল্ক স্টেশন চালু করতে ভারত-বাংলাদেশের প্রশাসনিক কার্যক্রম প্রায় সম্পন্নের পথে। এর জায়গা অধিগ্রহণ হয়ে গেছে। করোনা মহামারির কারণে সকল কাজে স্থবিরতা এসেছে। যেভাবে অ্যাকটিভলি কাজ এগিয়েছিল তার গতির মধ্যে বাধা পেয়েছে। তবে আগামী বছরে স্টেশনটি চালু করা যাবে বলে মনে করি। তিনি বলেন, একটি পূর্ণাঙ্গ বন্দর করতে ওয়্যার হাউজ ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে একটু সময় লাগবে। আমরা চাই আপাতত আমদানি-রপ্তানি চালু করতে।
খায়রুল হুদা চপল আরও বলেন, সুনামগঞ্জে এ পর্যন্ত চারটি শুল্ক স্টেশন রয়েছে। এসব শুল্ক স্টেশনে যে রাজস্ব আদায় হয়ে থাকে এর চেয়ে তিনগুণ রাজস্ব পাওয়া সম্ভব ডলুরা শুল্ক স্টেশন থেকে। পাশাপাশি শিক্ষিত বেকার যুবকদের একটি বিশাল কর্মসংস্থান তৈরি হওয়াসহ সুনামগঞ্জের অর্থনৈতিক উন্নয়নের অপার সম্ভাবনা সৃষ্টি হতে পারে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com