1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৫৯ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

ঘাটলার অভাবে দুর্ভোগ

  • আপডেট সময় সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ::
শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের আনন্দপুর গ্রামের বড় খালে ঘাটলা না থাকায় শুকনো কিংবা বর্ষা মৌসুমে ওই গ্রামের শতাধিক নারী-পুরুষ মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন সেখানে স্নানসহ অন্যান্য কাজ সারেন।
স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, ঘাটলার অভাবে আমাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এরপূর্বে বড়খালে সমতল মাটি থাকায় ঝুঁকি ছিল না। কিন্তু, দিরাই-শাল্লা রাস্তার কাজ শুরুর পর থেকেই ঘটে পট পরিবর্তন। হাওরের ঢেউ থেকে রাস্তার ভাঙন রোধে ফেলা হয় ব্লক। মূলত তখন থেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্নানসহ রান্নাবান্নার কাজের জন্য নারীরা প্রতিদিন পানি নিতে আসেন এই বড়খালে।
সরেজমিনে দেখা যায়, আনন্দপুরস্থ দিরাই-শাল্লা রাস্তার মোড়ে চরম ঝুঁকি নিয়ে স্নান করেন গ্রামের ৫-৬টি পাড়ার প্রায় ২শ’ পরিবার। রাস্তা থেকে একেবারে খাড়া আবার শেওলা পড়ে রয়েছে ওই জায়গাটির নিচের অংশে।
গ্রামের নিতাই দাস বলেন, এই ঘাটলার কথা কেউ বলে না। মানুষ অনেক কষ্ট করে স্নান করে। ঘাটলার জন্য আমরা জোর দাবি জানাই।
সুশীল শীল বলেন, এখানে একটি ঘাটলা হলে আমাদের অনেক উপকার হবে। আমাদের দাবি দ্রুত ঘাটলা নির্মাণ হোক।
অক্ষয় দাস বলেন, ঘাটলা না থাকায় আমরা বিপদে আছি। এখানে অনেক সময় দুর্ঘটনাও ঘটে। ২শ’ পরিবারের মানুষজন এই জায়গায় স্নান করে।
রথীন্দ্র সরকার বলেন, এখানে ঘাটলা আরও আগেই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কেনো ঘাটলা হলো না-আমরা জানি না।
এ বিষয়ে ওয়ার্ড সদস্য সুব্রত সরকার বলেন, বাজেট কম হওয়ায় ঘাটলা হয়নি। তবে এখানে দ্রুত ঘাটলার দাবি তিনি নিজেও করেন।
এ ব্যাপারে হবিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ মজুমদার বলেন, অনেক পূর্বেই এখানে ঘাটলা হওয়ার কথা। তবে এখানে ঘাটলা হবে বলে তিনি আশ্বাস দেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com