1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১, ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

করোনা থেকে মানুষকে সুরক্ষায় হার্ডলাইনে প্রশাসন

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১

শহীদনূর আহমেদ ::
করোনা থেকে মানুষকে সুরক্ষায় ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ বাস্তবায়নে হার্ডলাইনে রয়েছে সুনামগঞ্জ প্রশাসন। জেলা শহরসহ প্রতিটি উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ছিল লক্ষণীয়।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, শহরের অভ্যন্তরে ও কিংবা দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। শহরের ব্যস্ততম এলাকা আলফাত স্কয়ারও ফাঁকা। পুরাতন বাসস্টেন্ড এলাকায় গাড়ি নেই। মল্লিকপুরের বাস টার্মিনাল এলাকায়ও সুনসান নীরবতা বিরাজ করছে। অপরদিকে, করোনা থেকে মানুষকে সুরক্ষায় দেশব্যাপী সাত দিনের ‘কঠোর লকডাউনের’ প্রথম দিন বৃহস্পতিবার কঠোর তৎপরতা দেখিয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তবে প্রয়োজনের তাগিদে ঘর থেকে বের হওয়া মানুষকেও জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে সতর্ক করে দিতে দেখা গেছে। এছাড়া পণ্যবাহী যানবাহন ও অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি কাজে নিয়োজিত যানবাহন বিনা বাধায় চলতে দেখা গেছে।
এর আগে বুধবার জারি করা ২১ দফা নির্দেশনার আদেশে বলা হয়েছে, বৃহ¯পতিবার সকাল ৬টা থেকে ৭ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ বলবৎ থাকবে। এসব বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সেনাবাহিনীও মাঠে থাকবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটরা স্থানীয়ভাবে সেনা মোতায়েনের বিষয়ে প্রয়োজনীয় সমন্বয় করবেন।
জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ১ জুলাই হতে ৭ জুলাই সরকার সারাদেশে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে। এ সময় যে কেউ বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হতে পারবেন না। যদি বিশেষ প্রয়োজনে বের হন অবশ্যই মাস্ক পরিধান করে বের হবেন। নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান ছাড়া বাকি সবকিছু বন্ধ থাকবে। এসব আইন কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরও বলেন, সাত দিনের এই লকডাউনে কর্মজীবী মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে। আমরা তাদের তালিকা ইতিমধ্যেই করে ফেলেছি। তাদের সরকারি সহায়তার আওতায় নিয়ে আসা হবে।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বিপিএম বলেন, পুলিশ সার্বক্ষণিক সতর্ক অবস্থানের মধ্যে আছে। আইন অমান্য করলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে, সুনামগঞ্জের প্রতিটি উপজেলায় সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে ছিল প্রশাসন। এ সময় বিধি-নিষেধ অমান্যকারীদের জরিমানাও করা হয়েছে।
ধর্মপাশা :
ধর্মপাশায় লকডাউন চলাকালে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে পৃথক পৃথক অভিযানে ৮ ব্যবসায়ীকে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। উপজেলা সদর বাজারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মুনতাসির হাসান এবং মধ্যনগর বাজারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু তালেব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় উপজেলা সদর বাজারে মাস্ক না পরায় ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৪জন ব্যবসায়ীর প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে ২ হাজার টাকা এবং মধ্যনগর বাজারে আরও ৪জন ব্যবসায়ীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযান চলাকালে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন ধর্মপাশা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সুজন চন্দ্র সরকার, ধর্মপাশা থানার ওসি মো. খালেদ চৌধুরী, ইউএনও কার্যালয়ের নাজির আবুল হাসান প্রমুখ।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ :
বৃহ¯পতিবার দিনব্যাপী দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে তৎপর ছিল উপজেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী ও থানা পুলিশ। এসময় লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে বিনাপ্রয়োজনে রাস্তায় বের হওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৪ টি মামলা ও ১২শত টাকা জরিমানা আদায় করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার উজ জামান। অপরদিকে সড়কপথে লকডাউন নিশ্চিত করতে উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশ চেকপোস্ট বসায়। জরুরি পণ্যবাহী যানবাহন ছাড়া সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখতেই পুলিশের এই কঠোর অবস্থান।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনোয়ার উজ জামান বলেন, সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়ন করতে কঠোর অবস্থান নেওয়া হয়েছে। নিত্যপ্রয়োজনী দোকানপাট ছাড়া সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। এছাড়া দোকানদার ও ক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানো হয়েছে। বিনা প্রয়োজনে কেউ বাইরে এলে শাস্তির আওতায় আনা হবে।
দোয়ারাবাজার :
সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নে দোয়ারাবাজার উপজেলা প্রশাসনকে সকাল থেকেই কঠোর অবস্থান নিতে দেখা গেছে। বৃহ¯পতিবার উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান, মার্কেট, সড়ক ও হাটবাজারগুলোতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাংশু কুমার সিংহের নেতৃত্বে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ দেবদুলাল ধর, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মো. আতিয়ার রহমান প্রমুখ।
জামালগঞ্জ :
জামালগঞ্জে লকডাউন অমান্য করায় ১৬ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বিভিন্ন ধারায় ৩ হাজার ৬৫০ টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সাচনা বাজারের বিভিন্ন পয়েন্টে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এ জরিমানা আদায় করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিশ্বজিত দেব। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে উপস্থিত ছিলেন জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সাইফুল আলম, উপ-সহকারী পুলিশ পরিদর্শক মো. জিয়াউর রহমান, উপজেলা এলজিইডি উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমান, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুল জলিল মিলন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ের বেঞ্চ সহকারী সুরঞ্জিত রায়।
তাহিরপুর :
লকডাউনের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার তাহিরপুরে কঠোর অবস্থানে ছিল প্রশাসন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রায়হান কবির ও অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ তরফদারের নেতৃত্বে সকাল ১১টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ডিপার্টমেন্টাল স্টোর খোলা রাখা, অবৈধ যানবাহন চলাচল, কসমেটিক্স দোকান খোলা রাখা, মাস্কবিহীন বিনাকারণে পথচারী চলাচলের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মোট ১৩টি মামলায় ১২হাজার ৪শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয় এবং বাদাঘাট ইউনিয়নের সুন্দরপাহাড়ি গ্রামে রাস্তার পাশে একটি দোকানে জুয়ার আসর পণ্ড করে খেলার উপকরণ ক্যারাম বোর্ড, লুডু ও গাপলা জনসম্মুখে আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়েছে।
এছাড়াও ভ্রাম্যমান আদালত উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের আনোয়ারপুর ও বাদাঘাট ইউনিয়নের ইসলামপুর চক বাজার, গাঘটিয়া চক বাজার, মানিগাঁও, চকবাজারে লকডাউন কার্যকর করতে ব্যাপক প্রচারণা চালায়। এসময় গাঘটিয়া গ্রামে একটি বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রায়হান কবির বিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে স¤পূর্ণ আয়োজন বন্ধের নির্দেশ দেন।
অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাদাঘাট পুলিশ ক্যা¤প ইনচার্জ এস আই মো. জয়নাল আবেদীন, বাদাঘাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. সেলিম হায়দার, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন শাহ, সিনিয়র সহ সভাপতি কামাল হোসেন রাফি, সাধারণ স¤পাদক এম.এ রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক আবির হাসান মানিক প্রমুখ।
জগন্নাথপুর :
জগন্নাথপুরে বৃহস্পতিবার সর্বাত্মক লকডাউন পালন হয়েছে। দিনব্যাপী মাঠে ছিল উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ ও সেনাবাহিনী। বৃহস্পতিবার জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালানো হয়। লকডাউনের বিধি নিষেধ অমান্য করায় ৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ১৪০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশ দল দিন ব্যাপী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান নিয়ে জনসচেতনতামূলক অভিযান চালিয়েছেন। এছাড়া সেনাবাহিনী টহল দিয়েছে।
এদিকে, প্রথম দিনে লকডাউনের কারণে জগন্নাথপুর-সিলেট ও জগন্নাথপুর-সুনামগঞ্জ লাইনে কোন দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল করেনি। সব ধরনের অফিস ও দোকানপাট বন্ধ ছিল। অন্য দিনের তুলনায় হাট-বাজারে জন সমাগম ছিল অনেক কম। ব্যস্ততম পৌর পয়েন্টসহ বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ স্থান রীতিমতো ফাঁকা ছিল। সব মিলিয়ে প্রশাসনের কঠোরতায় সর্বাত্মকভাবে পালন হয়েছে লকডাউন।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com