1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:২৩ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602
সংবাদ শিরোনাম
তাহিরপুরে প্রকল্প বৃদ্ধির প্রতিযোগিতা : এক বাঁধে অর্ধকোটি টাকার বরাদ্দ বাংলাদেশ ভারত আন্তসম্পর্ক-৩ করোনাকালে বাংলাদেশের পাশে ভারত ২৮ দিন পর বই পেয়ে পৃষ্ঠা ওল্টিয়ে বিস্মিত শিশুরা আমার নির্বাচনী এলাকা আর অবহেলিত থাকবে না -পীর মিসবাহ এমপি  প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও শীতবস্ত্র বিতরণ অর্ধশত গাছ কেটে বাঁধ মেরামত! প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন ছাতকে পিকআপ ভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু পীরপুর বাণীতলায় অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম ও লীলা সংকীর্ত্তণ সমাপ্ত অসহায় পরিবারের মাঝে আর্ন এন্ড লাইভ সংস্থার ছাগল প্রদান ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ

হতদরিদ্রদের জন্য ৩৭শ কোটি টাকায় ৮ লাখ শৌচাগার

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
হতদরিদ্রদের জন্য সারাদেশে ৭ লাখ ২৫ হাজার ৮৬৭টি স্থাপন করা হবে। এছাড়া দুর্গম ও দুর্যোগপ্রবণ এলাকায় স্থাপন করা হবে ৮০ হাজার ৬৬২টি শৌচাগার। মোট ৮ লাখ ৬ হাজার ৫১৯টি শৌচাগার সরকারি খরচেই নির্মাণ করা হবে। আর এতে খরচ ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৭১৭ কোটি টাকা। গ্রামীণ স্যানিটেশন প্রকল্পের আওতায় এমন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। ৬৪টি জেলায় প্রকল্পটি জুলাই ২০২১ থেকে জুন ২০২৫ মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে। প্রকল্পের আওতায় ২ হাজার ৪৬০টি টাইপ-১ পাবলিক টয়লেট, ২ হাজার ৪৬০টি বি টাইপ পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হবে। স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ক বিভিন্ন জনসচেতনতামূলক কাজ, বিভিন্ন ধরনের কমিউনিটি শৌচাগার ও পাবলিক টয়লেট মেরামত ও সংস্কার করা হবে। প্রকল্পের প্রস্তাবনা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠিয়েছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইফুর রহমান বলেন, প্রকল্পের প্রস্তাবনা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে। প্রকল্পটি এখনো একনেক সভায় উপস্থাপন করা হয়নি। দেশের হতদরিদ্র মানুষ যাতে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটেশন সুবিধা পান সেজন্যই এ প্রকল্প।
প্রকল্পটির আওতায় দরিদ্র পরিবারের জন্য ৭ লাখ ২৫ হাজার ৮৬৭টি উন্নত শৌচাগার দেওয়া হবে। যার জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ১৭৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এখানে প্রতিটি শৌচাগার নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। প্রকল্পের আওতায় বাস স্ট্যান্ড, লঞ্চ বা ফেরিঘাট, হাট-বাজার, বিনোদন এলাকায় ২৪৬০টি পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হবে। যার প্রতিটির নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৭ লাখ টাকা করে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে ২৪৬০ পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হবে, যার প্রতিটির খরচ ধরা হয়েছে ৮ লাখ টাকা।
প্রকল্পের আওতায় দুর্যোগপ্রবণ দুর্গম এলাকার জন্য ব্যয় বেশি ধরা হয়েছে। সেখানে বিশেষ ধরনের শৌচাগার তৈরি করতে হবে। যেমন, হাওর অঞ্চলে পানির স্তর ওপরে। স্বাভাবিক শৌচাগার সেখানে ডুবে যাবে, আশপাশের পরিবেশ নষ্ট করবে। তাই সরকার স্বীকৃত দুর্গম এলাকায় বিশেষ শৌচাগার তৈরি করতে ব্যয় কিছুটা বেশি পড়বে। দুর্যোগপ্রবণ ও দুর্গম এলাকায় নিরাপদ স্যানিটেশন (জলবায়ু পরিবর্তন সহনীয়) ব্যবস্থা নিশ্চিত করে দুর্যোগকালে জনদুর্ভোগ কমিয়ে আনতে প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছে।
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীই দেশের উন্নয়নের মূল চালিকা শক্তি। গ্রামের মানুষকে যদি নিরাপদ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটেশন সুবিধা দিতে পারি, তবে তারা আরও বেশি করে কাজ-কর্ম করতে পারবে। গ্রামের মানুষ সুস্থ ও সবল থাকলে দেশের উন্নয়নের গতি আরও বাড়বে। দেশের মানুষকে নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন দিতে আমরা নানা উদ্যোগ হাতে নিয়েছি।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ১৯৮০ ও ১৯৯০ এর দিকে স্যানিটেশন পরিস্থিতি বিশেষ করে গ্রামীণ স্যানিটেশন পরিস্থিতি ও কভারেজ ছিল খুবই শোচনীয়। স্যানিটেশন কভারেজ নিরূপনের জন্য ২০০৩ সালের অক্টোবর মাসে একটি জাতীয় ভিত্তি জরিপ করা হয়, যেখানে দেখা যায়, দেশের প্রায় ২১ মিলিয়ন পরিবারের মধ্যে মাত্র ৩৩ শতাংশ স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার ব্যবহার করে, ২৫ শতাংশ অস্বাস্থ্যকর শৌচাগার ব্যবহার করে এবং ৪২ শতাংশ উন্মুক্ত স্থানে মলত্যাগ করে। ২০০৩ সালের জাতীয় স্যানিটেশন প্রচারাভিযান শুরুর পর স্যানিটেশন প্রসারের লক্ষ্যে সরকার অনেকগুলো নীতিমালা প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রণীত নীতিমালা বাস্তবায়ন ও ১০০ ভাগ স্যানিটেশন কভারেজ অর্জনের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। উক্ত পদক্ষেপসমূহের মধ্যে জাতীয় স্যানিটেশন প্রকল্প (১ম, ২য় ও এ পর্যায়) উল্লেখযোগ্য।
জাতীয় স্যানিটেশন প্রকল্প (১ম পর্যায়) জুলাই ২০০৪ থেকে ডিসেম্বর ২০০৭ মেয়াদে বাস্তবায়িত হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে উন্মুক্ত স্থানে মলত্যাগের কভারেজ ৬ শতাংশে দাঁড়ায়। এরপর জাতীয় সানিটেশন প্রকল্প (২য় পর্যায়) জুলাই ২০০৪ থেকে জুন ২০১৩ মেয়াদে বাস্তবায়িত হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে উন্মুক্ত স্থানে মলত্যাগের কভারেজ ৪ শতাংশে দাঁড়ায়। সর্বশেষে জাতীয় স্যানিটেশন বাস্তবায়নে উন্মুক্ত স্থানে মণত্যাগের কভারেজ পায় শূন্যের কোটায়।
প্রস্তাবিত প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ২০২৫ সাল নাগাদ দেশের মোট দরিদ্র জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ সেফলি ম্যানেজড স্যানিটেশনের আওতায় আসবে। সর্বোপরি বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায় সেফলি ম্যানেজড স্যানিটেশন কভারেজ ৪২ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৬০ শতাংশ হবে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com