1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৭:১৫ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01867-379991, 01716-288845

বেড়েছে আবাদ, বেড়েছে উৎপাদন

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ জেলায় ২০২০-২১ অর্থ বছরে বোরো ধান চাষ ও কর্তনের সার্বিক পরিস্থিতি বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে জেলা প্রশাসনের মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। সভায় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ফরিদুল হাসান সংশ্লিষ্ট বিষয়ে নানা তথ্য তুলে ধরেন। তিনি জানান, সুনামগঞ্জ জেলায় ২০২০-২১ অর্থ বছরে বোরো চাষ হয়েছে ২,২৩,৩৩০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে হাওর এলাকায় চাষকৃত জমির পরিমাণ ১,৬৫,৬৬৫ ও নন হাওরে ৫,৭,৬৬৫ হেক্টর। ইতোমধ্যে হাওরের ৯৮%সহ মোট ৮৭% জমির বোরো কর্তন সম্পন্ন হয়েছে। এ বছর বোরো আবাদের প্রাথমিক লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ২১৯৩০০ হেক্টর। অনুকূল আবহাওয়া, ধানের নায্যমূল্য নিশ্চিত হওয়া, বর্তমান সরকারের সুনির্দিষ্ট সময়োচিত পদক্ষেপ; যেমন বোরো মৌসুমের প্রারম্ভেই সুনামগঞ্জ জেলার ৭ হাজার কৃষককে বোরো প্রণোদনা প্রদান, ৩৫ হাজার কৃষককে ২ কেজি করে হাইব্রিড বীজ সহায়তা প্রদানসহ স্থানীয়ভাবে গৃহীত অন্যান্য কিছু পদক্ষেপের কারণে ৪০৩০ হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত বোরো চাষ সম্পন্ন হয়।
সরকারি প্রণোদনা ও হাইব্রিড বীজ সহায়তা কর্মসূচির কারণে একদিকে যেমন বোরো আবাদী জমির পরিমাণ বৃদ্ধি পায় অন্যদিকে হাইব্রিড ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। গতবছর যেখানে হাইব্রিড আবাদী জমির পরিমান ছিল ৩৬,৫১০ হেক্টর সেখানে এ বছর চাষ হয়েছে ৫৭,২১০ হেক্টর। ৪০৩০ হেক্টর আবাদী জমি বৃদ্ধি সহ প্রায় ২০,০০০ হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত হাইব্রিড আবাদের কারণে গত বছর চালের উৎপাদন যেখানে ছিল ৮,৬৩,৯৯৩ মে. টন সেখানে এবার উৎপাদন হবে প্রায় ৯ লক্ষ মেট্রিক টন অর্থাৎ উৎপাদন বৃদ্ধি হার ৫.৪২%।
বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে সারা বিশ্বে খাদ্য উৎপাদন যেখানে নিম্নগামী সেখানে সুনামগঞ্জ জেলার খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির হার ঈর্ষনীয়। মার্চের শেষ দিকে করোনার প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধিতে শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকের আবাদকৃত বোরো ধান তাঁদের গোলায় উঠবে কিনা এ বিষয়ে সন্দেহ যথেষ্টই ছিল। কৃষকরা যাতে তাদের আবাদকৃত বোরো ধান সঠিক সময়ে ঘরে উঠাতে সক্ষম হয় তার জন্য এর করণীয় ঠিক করতে জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের নেতৃত্বে কয়েক দফা সভা করা হয়। এছাড়াও ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের সাথে নিবিড় যোগাযোগ রাখা হয়। আর এর ফলশ্রুতিতে সুনামগঞ্জ জেলায় এ বছর ৭০% ভর্তুকিতে কৃষকদের মাঝে ১১৫টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার, ১৯টি রিপার বিতরণ করা হয়। শ্রমিকের পাশাপাশি বিগত বছরগুলোতে বিদ্যমান, নতুন ও ভাড়া করা সহ প্রায় ৩০০টির অধিক কম্বাইন্ড হারভেস্টারসহ শতাধিক রিপার মেশিন ধান কর্তন কাজে অংশগ্রহণ করেছে। ধান কর্তনের সময় যাতে কোন পাকা ধান জমিতে পড়ে না থাকে তার জন্য জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি টিম নিরলসভাবে কাজ করেছে। সর্বোপরি এবারের আবহাওয়া, সকলের সুচিন্তিত মতামত, সঠিক পরিকল্পনা, বর্তমান কৃষি বান্ধব সরকারের সার্বিক সহোযোগিতায় পরিকল্পনামাফিক কৃষক তার ফসল বোরোধান ঘরে তুলতে সক্ষম হচ্ছে।
উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ জসীম উদ্দিনসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ ও গণমাধ্যম কর্মীগণ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com