1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01867-379991, 01716-288845

বোরোর বাম্পার ফলন : নতুন ধান ঘরে তোলার স্বপ্নে বিভোর কৃষক

  • আপডেট সময় সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১

রাজন চন্দ ::
“গেছে বছর থেইক্কা এই বছর জমিতে ধান হইছে অনেক বেশি। নদীতে পানিও ইবার কম। ধানডি কাইট্টা ঘরে তুলতে পারলেই সারা বছরের লাগি আমরা নিচিন্তা। মোটামুটি ডাইল ভাত খাইয়া সারা বছর যাইবগি।”
কথাগুলো বলছিলেন তাহিরপুর উপজেলার সর্ববৃহৎ শনি হাওর পাড়ের কৃষক সুভাষ দাস। সোমবার (১২ এপ্রিল) সকাল ৯টায় উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ইকরামপুর গ্রামের কৃষক সুভাষ দাসের জমির ধান কাটার সময় এভাবেই কথাগুলো বলেন তিনি।
ছোট বড় ২৩টি হাওর রয়েছে তাহিরপুর উপজেলায়। হাওরজুড়ে এখন সোনালি ধান। মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠেছে চারদিক। যেন হাওরের বুকে কৃষকের স্বপ্নের ইরি-বোরো ধান ঢেউ খেলছে। নতুন ধান ঘরে তোলার স্বপ্নে বিভোর কৃষকরা। হাওরপাড়ের গ্রামসমূহে চলছে বৈশাখি তোলার প্রস্তুতি। এক সপ্তাহের মধ্যেই সকল হাওরে ধান কাটা-মাড়াইয়ের ধুম পড়বে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর তাহিরপুর উপজেলায় চলতি মৌসুমে ১৭ হাজার ৯৮০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬৫ হাজার ৭৯০ হেক্টর।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসান উদ দৌলা জানিয়েছেন, এক সপ্তাহ পূর্বেই আনুষ্ঠানিকভাবে তাহিরপুর উপজেলার ধান কাটা উৎসব শুরু হয়েছে। আগামি ২/৩ দিনের মধ্যে সকল হাওরে পুরোদমে ধান কাটা-মাড়াই শুরু হবে। ধান কাটা শেষ করতে পুরো এপ্রিল মাস লেগে যাবে।
তিনি বলেন, এবার বা¤পার ফলন হয়েছে। গরম বাতাসে হাওরে সামান্য চিটা হলেও লক্ষ্যমাত্রা উৎপাদনে তেমন কোনো প্রভাব ফেলবে না।
কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ৫ এপ্রিল থেকে ধান কর্তন শেষ না হওয়া পর্যন্ত সকল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ব্লক কর্মকর্তাদেরকে সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে অবস্থানের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক দিলীপ কুমার অধিকারী গত ২৮ মার্চ এক আদেশে এই নির্দেশনা প্রদান করেন।
তাহিরপুর উপজেলার বৃহৎ মাটিয়ান হাওরের কৃষক সাঞ্জব আলী জানান, এবার ফলন ভালো হয়েছে। গেল বছর ধানের দাম বেশি থাকায় সকল কৃষকই এবার সামান্য হলেও অতিরিক্ত জমি আবাদ করেছেন। দাম বেশি থাকায় চাষাবাদে অনেকের আগ্রহও এসেছে।
উপজেলার মহালিয়া হাওরের কৃষক বাবুল মিয়া বলেন, কৃষি থেকে গৃহস্থরা মুখ ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু, ধানের দাম বেশি থাকায় আবার অনেকেই পুনরায় কৃষিতে মনোযোগী হয়েছেন। এ বছর আবাদ এবং ফলন দুটিই বেশি হয়েছে বলে জানান তিনি।
হাওর বাঁচাও আন্দোলন তাহিরপুর উপজেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক তোজাম্মিল হক নাসরুম বলেন, হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। এখন নির্মাণকৃত বাঁধের উপর গাছ লাগানো ও বাঁশ দিয়ে মাটির বস্তা বসানোর কাজ চলছে। আবহাওয়া ভালো থাকলে এ অঞ্চলের কৃষক নিরাপদেই ধান ঘরে তুলতে পারবেন।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পদ্মাসন সিংহ জানান, জেলা প্রশাসকের উপস্থিতিতে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে ধান কাটা উৎসব শুরু করেছি। শ্রমিক সংকট যেন তৈরি না হয় সে জন্য সীমান্ত এলাকার অনেক শ্রমিককে ধান কাটায় নিয়োজিত করার ব্যবস্থা করেছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com