1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01867-379991, 01716-288845

ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে : জেলা ও দায়রা জজ

  • আপডেট সময় রবিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ ওয়াহিদুজজামান শিকদার বলেছেন, আজ অত্যন্ত ব্যথিত হৃদয় নিয়ে হাজির হয়েছি। এমন একটি সময় ও ক্ষণের জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হবে ও বাঙালি জাতিকে এভাবে মুখিয়ে থাকতে হবে আমরা কখনো ভাবিনি। বীর বাঙালিসহ আপামর জনতা এবং বাংলাদেশের সকল মুক্তিযোদ্ধারা জেগে উঠুন। প্রতিটি নাগরিক যে যেখানেই থাকুন না কেন, সকলে জেগে উঠুন, সতর্ক থাকুন, আমাদের যেন আর কিছু হারাতে না হয়। আজ আমি জেলায় দায়রা জজ হয়েছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য। জাতির জনকের যে ত্যাগ ও তিতিক্ষা, তাঁর মাধ্যমে অর্জিত এ স্বাধীনতা এবং এই সুনির্দিষ্ট ভূখণ্ড উপহার দিয়েছেন। তিনি আমাদের দিয়েছেন একটি মানচিত্র, একটি দেশ, একটি লাল-সবুজের পতাকা। এ কারণে আমরা গর্বিত। আজ জাতির জনককে নিয়ে যে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে তা আমাদের সকলে মিলে রুখতে হবে।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে শনিবার সকালে সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য জাদুঘর প্রাঙ্গণে জেলার সর্বস্তরের সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আয়োজনে “জাতির পিতার সম্মান, রাখব মোরা অম্লান” শিরোনামে আয়োজিত সমাবেশে অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
জেলা ও দায়রা জজ ওয়াহিদুজজামান শিকদার আরও বলেন, আজ ভাস্কর্য নিয়ে কথা হচ্ছে। রাজনীতি, অপরাজনীতি হচ্ছে, অপসংস্কৃতি শুরু হয়েছে। এটিকে রুখতে হবে আপামর জনতাকে। আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ভাস্কর্য হলো সম্মান প্রদর্শনের একটি প্রতীকিমাত্র। এটি ইতিহাস, ঐতিহ্য। এটি একটি কলা ও শিল্প, আমাদের বুঝতে হবে। আমরা এটিকে পূজা করছি না, মাথা নুয়াচ্ছি না। আমাদের মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রে এরকম ভাস্কর্য রয়েছে। আমি আবারও বলছি আপনারা সবাই সতর্ক থাকুন। আমরা অনেক কিছু হারিয়েছি আর কিছু যেনো না হারাই। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে যেকোন ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় সজাগ ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমিরুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ শামস উদ্দিন, সুনামগঞ্জ এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুব আলম, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ নীলিমা চন্দ, সহকারী শিক্ষক নাসরিন আক্তার খানম, সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. সৈকত দাস প্রমুখ।
চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমিরুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, আমরা এখনো ফতোয়া খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিছু ভুল ফতোয়া দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে কিছু দুষ্কৃতকারী আমাদের বঙ্গবন্ধু, আমাদের জাতির পিতার ভাস্কর্য ভাঙার দুঃসাহস দেখিয়েছেন। আপনারা যারা ফতোয়া দেন তাদের উদ্দেশ্যে বলি আপনাদের কিছু ফতোয়া ইতিমধ্যে ভুল প্রমাণিত হয়েছে। আপনারা বলেছেন বিদেশি ভাষা শিখা যাবে না, ইংরেজি ভাষা শিখা যাবে না, আপনাদের এক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের মুসলমানরাএকশ বছর পিছিয়ে গিয়েছিল। আপনারা বলেছেন নারী নেতৃত্ব মানেন না। কিন্তু আপনারা আজ নারী নেতৃত্ব মেনেছেন। ২০ বছর আগে টেলিভিশনকে আপনারা বলেছেন শয়তানের বাক্স। আজকে আপনারা এই শয়তানের বাক্স ফাটিয়ে বক্তৃতা দেন। আমি বলি সেটিও বেশিদিন দূরে নয় আপনারা স্বীকার করবেন ভাস্কর্য আর মূর্তি এক জিনিস নয়।
তিনি আরও বলেন, ভাস্কর্য কেন তৈরি করা হয়? একজন মহান মানুষকে সম্মান জানানোর জন্য। আমি ২০১৯ সালে মিশরে ভ্রমণ করেছি। সেখানে তারা ইব্রাহিমের সম্মানে ভাস্কর্য প্রতিষ্ঠিত করেছে। কিন্তু মিশর ইসলাম রাষ্ট্র। ইরান, সৌদি আরব সেখানেও ভাস্কর্য আছে। আপনারা মূর্তির সাথে ভাস্কর্যকে গুলিয়ে ফেলবেন না।
প্রতিবাদ সমাবেশে সুনামগঞ্জ জেলার সর্বস্তরের সরকারী কর্মকর্তা, শিক্ষকবৃন্দ ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার মো. আরিফুল ইসলাম।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com