শনিবার, ০৬ জুন ২০২০, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

Notice :

হাওরে পোনা অবমুক্তকরণে নাটকীয়তা!

স্টাফ রিপোর্টার ::
জামালগঞ্জ উপজেলার পাগনার হাওরে গত শনিবার (১৫ জুন) পোনা অবমুক্তকরণ নিয়ে পোনা সরবরাহকারীরা দিন ভর টালবাহানার নাটক মঞ্চস্থ করেছেন। এ ঘটনায় জামালগঞ্জের সর্বত্র সমালোচনার ঝড় বইছে। অবশেষে কোটেশন বিজ্ঞপ্তির নির্ধারিত পোনা না পেয়ে স্থানীয়ভাবে তাৎক্ষণিক ২৩ কেজি পোনা সংগ্রহ করে পোনা অবমুক্তির ‘নিয়ম রক্ষা’ করেন সংশ্লিষ্টরা।
উপজেলা মৎস্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জামালগঞ্জের পাগনার হাওরে পোনা অবমুক্তির জন্য গত ২৬ মে পোনা সরবরাহকারী আহ্বান করে কোটেশন বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। কোটেশন অপেন করা হয় ১০ মে। এতে তিন জন পোনা সরবরাহের জন্য আবেদন করেন। আবেদনকারীদের মধ্যে সেলিম মিয়া ও মাহবুবুল হাসান তারেক স্থানীয় পৃথক রাজনৈতিক বলয়ের সমর্থক।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানাগেছে, মাত্র একলাখ টাকার পোনা অবমুক্তির কন্ট্রাক পেতে উভয় বলয়ের দুই শীর্ষ নেতা মৎস্য বিভাগে ফোন চালিয়েছিলেন। এতে মৎস্য বিভাগ বিব্রতকর অবস্থায় পরেন। শেষে সর্বনি¤œ দরদাতা মাহমুদুল হাসান তারেককে পোনা সরবরাহকারী হিসেবে সাব্যস্ত করা হয়। এর আগে এ ব্যাপারে উভয়পক্ষ একটা সমঝোতা করেন বলে জানা গেছে। কিন্তু নাটকীয় ঘটনা ঘটে ১৫ জুন পোনা অবমুক্তির দিনে। ওইদিন সকাল থেকেই মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারা হাওরে পোনা অবমুক্তির প্রস্তুতি নেন। স্থানীয় সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্যও পোনা অবমুক্তি কার্যক্রমে আমন্ত্রিত ছিলেন। জেলা মৎস্য কর্মকর্তাও যথাসময়ে উপস্থিত হন। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় অতিক্রান্ত হলেও পোনা সরবরাহকারীদের ‘এইতো এখনই পোনা এসে যাচ্ছে’ বলে টালবাহানা ও সময় ক্ষেপণ করতে থাকেন। বেলা প্রায় সাড়ে ১১টায় এসে পোনা সরবরাহকারী মাহমুদুল হাসান তারেক মৎস্য বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জানান, সুনামগঞ্জ থেকে পোনা নিয়ে আসার পথে পোনা সরবরাহকারী পিকআপ ভ্যানের সাথে যাত্রীবাহী অপর লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে সব পোনা বিনষ্ট হয়ে গেছে। সংঘর্ষের ঘটনায় পোনা বিনষ্ট এই বিষয়টি উপজেলা মৎস্য কর্মকর্ততা অমিত প-িত ঘটনাস্থলে খোঁজ নিয়ে যাচাই করতে চাইলে পোনা সরবরাহকারীরা তখন নানা রকম টালবাহানা ও সাজানো অজুহাত দেখান। সারাদিন অপেক্ষার পর বিকেল ৪টার দিকে সংসদ সদস্য অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার পোনা অবমুক্তিতে আসেন। তখন তাৎক্ষণিক স্থানীয়ভাবে ২৩ কেজি পোনা সংগ্রহ করে স্থানীয় জলাশয়ে পোনা অবমুক্তির নিয়ম রক্ষা করা হয়। এ সময় উপজেলা ও জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এবং অবমুক্তি কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। স্থানীয় বিভিন্ন মহল এই ঘটনার কারণ হিসেবে সমালোচনা করছেন, পোনা সরবরাহের কন্ট্রাক পেতে দাবিদার উভয়পক্ষ সাজানো নাটক করে গাড়ি দুর্ঘটনার অজুহাত দেখিয়ে টাকা আত্মসাতের অনৈতিক লাভের আশায় টালবাহানা করছে।
এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা অমিত প-িতের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এক লাখ টাকার বিপরীতে সর্বনি¤œ ৩শ ৬০টাকা প্রতি কেজি দরে ২৭৭ কেজি পোনা অবমুক্তির প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু কোটেশন অনুয়ায়ী পোনা না পাওয়ায় পাগনার হাওরে কাক্সিক্ষত পোনা অবমুক্তি সম্ভব হয়নি। উপস্থিত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনার পর পোনা সরবরাহকারীরা আরেক দিন অবশিষ্ট পোনা দিবেন বলে জানিয়েছেন।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আমিনুল হক বলেন, পোনা সরবরাহকারী বলেছেন তাদের পোনা বহনকারী গাড়ি দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ায় সেদিন পোনা পৌঁছাতে পারেনি। তবে আলোচনা করে আগামী বৃহ¯পতিবার পোনা পৌঁছানো নিশ্চিত করবে বলায় ওইদিনই হাওরে পোনা অবমুক্ত করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী