1. [email protected] : admin2017 :
  2. [email protected] : Sunam Kantha : Sunam Kantha
  3. [email protected] : wp-needuser : wp-needuser
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

চিকিৎসককে অপহরণের অভিযোগ : গ্রেপ্তার ১

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর, ২০১৭

ধর্মপাশা প্রতিনিধি ::
ধর্মপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহদীপুর গ্রামের নিজ বসতঘর থেকে আব্দুল কদ্দুস (৪০) নামের এক পল্লী চিকিৎসককে পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন মঙ্গলবার রাতে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই পল্লী চিকিৎসকের স্ত্রী শরীফা আক্তার (২৩) বাদী হয়ে গত বুধবার রাতে সন্দেহজনকভাবে ৮জনের নাম উল্লেখ করে ধর্মপাশা থানায় একটি অপহরণ মামলা করেছেন।
এলাকাবাসী, ধর্মপাশা থানা পুলিশ ও অপহরণ হওয়া পল্লী চিকিৎসকের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহদীপুর গ্রামের সামনে মহদীপুর বাজারে পল্লী চিকিৎসক আব্দুল কদ্দুসের একটি ওষুধের দোকান রয়েছে। তিনি সেখানে ওষুধের ব্যবসা করার পাশাপাশি পল্লী চিকিৎসক হিসেবে মানুষকে সেবা দিয়ে আসছিলেন। গত মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে তিনি তাঁর স্ত্রী শরীফা আক্তারের সঙ্গে নিজ বসতঘরে ঘুমিয়ে যান। পরদিন বুধবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে স্ত্রী শরীফার ঘুম ভেঙে গেলে তিনি দেখতে পান তাঁর স্বামী আব্দুল কদ্দুস বিছানায় নেই এমনকি বসতঘরের দরজাটিও খোলা রয়েছে। স্বামীর সন্ধান না পেয়ে ঘটনাটি তাঁর শাশুড়ি খোদেজা আক্তার (৬৫)-কে জানান শরীফা আক্তার। এ সময় তারা দু’জনই ঘর থেকে বের হয়ে ওই পল্লী চিকিৎসককে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। পরে সকাল পৌনে ৬টার দিকে মহদীপুর গ্রামের সামনে মহদীপুর ইবতেদিয়া মাদ্রাসার মাঠের মাঝামাঝি স্থান থেকে ওই পল্লী চিকিৎসকের ব্যবহৃত একটি মুঠোফোন, ছেঁড়া গেঞ্জি ও তাঁর ব্যবহৃত লুঙ্গি এবং জুতা পড়ে থাকতে দেখতে পান তাঁর স্ত্রী। এ সময় তিনি চিৎকার দিয়ে কান্নাকাটি শুরু করেন। পুত্রবধূর চিৎকার শুনে শাশুড়িও সেখানে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে মাঠে পড়ে থাকা ওই পল্লী চিকিৎসকের ব্যবহৃত মালামালগুলো নিজ বসতঘরে এনে রাখেন স্ত্রী শরীফা।
পরিবার ও এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে বুধবার সকাল ৮টার দিকে ঘটনাটি ধর্মপাশা থানা পুলিশকে জানানো হলে ধর্মপাশা থানা পুলিশ ওইদিন সকাল ৯টার দিকে মহদীপুর গ্রামে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয় লোকজনদের সঙ্গে কথা বলে এবং সন্দেহজনকভাবে একই গ্রামের গিয়াস উদ্দিন (৪৬) নামের এক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। এ সময় পুলিশ পল্লী চিকিৎসকের ব্যবহৃত মালামাল নিজেদের হেফাজতে নেয়। এ ঘটনায় বুধবার রাতে পল্লী চিকিৎসকের স্ত্রীর দায়ের করা অপহরণ মামলায় গিয়াস উদ্দিনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।
পল্লী চিকিৎসক আব্দুল কদ্দুসের স্ত্রী শরীফা আক্তার দাবি করেন, জমি জমা ও নানা বিষয় নিয়ে এলাকার বেশ কয়েকজন ব্যক্তির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে আমার স্বামীর বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন আমার স্বামীকে প্রাণনাশের হুমকিও দিয়েছিল। পূর্ব বিরোধের জের ধরেই আমার স্বামীকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ ঘটনা নিয়ে আমি থানায় মামলা করেছি।
ধর্মপাশা থানার ওসি (তদন্ত) মো. শফিকুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপহরণ মামলা হয়েছে। এই মামলার আসামি গিয়াস উদ্দিনকে বৃহস্পতিবার সকালে ধর্মপাশা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে সুনামগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com