1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৯:৫১ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

জেলা ছাত্রলীগে বাড়ছে বিবাহিতদের সংখ্যা

  • আপডেট সময় শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার ::
সিলেটের এক কলেজ ছাত্রীকে কুপানোর পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেছেন, চাকরি, বিবাহিত বা অন্যান্য কর্মকান্ডে যারা জড়িত তাদের পদবি ছাত্রলীগে থাকবে না। এর আগে তিনি বলেছিলেন, বিবাহিত বা বিতর্কিতদের স্থান ছাত্রলীগ নেই। সম্প্রতি তিনি তার ফেসবুক পোস্টেও গোপনে যারা বিয়ে করেছেন তাদের সম্পর্কে গোপনে তথ্য দেয়ার জন্য ফরমও পোস্ট করেছেন।
কিন্তু তার উল্টো সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগে। বিশাল কমিটির অনেক নেতাই এখন বিবাহিত। দিন দিন এই সংখ্যা বাড়ছে। অনেকেরই ছাত্রত্ব নেই। কেউ কেউ চাকরি নিয়ে ব্যস্ত। কেউ ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠন ছেড়ে অন্য সংগঠনে চলে গেছেন। কিন্তু কমিটিতে তাদের পদ ঠিকই আছে।
সুনামগঞ্জে জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বর্তমান ১২১ সদস্যের। এর মধ্যে জেলা কমিটির সহ-সভাপতি বিবাহিত সাহাব উদ্দিন সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক। তিনি তার সংগঠনেই সময় দিচ্ছেন। সহ-সভাপতি লাভলু আহমদ বর্তমানে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক। তিনি কন্যা সন্তানের পিতা। জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি সুব্রত সরকার অনেক আগেই বিবাহের কাজটি সম্পন্ন করেছেন। আরো চার সহ-সভাপতি মাহবুব আলম, শাহজাহান লিটন, মনিরুজ্জামান মনির, জাবির আহমদ জাবেরও বিবাহিত। যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুল হক, সামছুজ্জামান বিবাহিত। এর মধ্যে এমদাদুল হক জমজ সন্তানের পিতা ও ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। সাংগঠনিক সম্পাদক আবু লেইছ রিজেন, কামরুল হাসান শিপন, মাসরুর কবির আনাস, হারুনুর রশিদ মারুফ বছর দু’য়েক আগে বিবাহ করেছেন।
সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য অনুযায়ী এসব নেতার পদ বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু এসব নেতা অনেকেই সংগঠনের মিছিল, সমাবেশে অংশ নিচ্ছেন। অনেকের ভিজিটিং কার্ড থানাসহ বিভিন্ন সরকারি দফতরে কর্মকর্তাদের টেবিলে দেখা গেছে। আবার কেউ কেউ সহযোগী সংগঠনে শীর্ষ পদ পেয়ে সেই সংগঠনে সময় দিচ্ছেন। ছাত্রলীগের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করেছেন।
এছাড়া প্রায় এক ডজনের মত পদবিধারী ছাত্রলীগ নেতা বর্তমানে চাকরি ও বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্যে ব্যস্ত সময় পার করছেন। জেলা কমিটির ব্যানারে মিছিল-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হলেও তাদের দেখা যায় না। এনিয়ে নেতাকর্মীদেরও ক্ষোভের অন্ত নেই।
এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ বলেন, আমার জানা মতে তেমন কোনো অছাত্র আমার সংগঠনে নাই। আর দু-একজন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে। তাদের কার্যক্রম অলরেডি শিথিল। আমার জানামতে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগে তেমন কেউ চাকরি করে না। তিনি জানান, যে ছাত্রনেতারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন তারা ছাত্র রাজনীতি থেকে দূরে আছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com