1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
রবিবার, ১৫ মে ২০২২, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

সংসদে সিদ্ধান্ত প্রস্তাব গৃহীত : বঙ্গবন্ধুর খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের স¤পদ বাজেয়াপ্ত হবে

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারীদের ও দন্ডপ্রাপ্ত মানবতাবিরোধী অপরাধীদের সব ধরনের স্থাবর, অস্থাবর স¤পত্তি বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে সংসদে গৃহীত হয়েছে। বৃহ¯পতিবার রাতে সংসদ সদস্যদের কণ্ঠভোটে প্রস্তাবটি গৃহীত হয়। সরকারি দলের সংসদ সদস্য ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারীদের সব স্থাবর-অস্থাবর স¤পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হোক’ শিরোনামের এই সিদ্ধান্ত প্রস্তাব উত্থাপন করেন। পরে সংসদ মনিরুল ইসলাম ও সানজিদা খানমের সংশোধনী প্রস্তাব থেকে মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডিত অপরাধীদের বিষয়টি সিদ্ধান্ত প্রস্তাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এরপর তা কণ্ঠভোটে গৃহীত হয়। এ সময় ডেপুটি ¯িপকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া সংসদে সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন।
এ স¤পর্কিত আলোচনায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে বাঙালির জাতির যে রক্তক্ষরণ শুরু হয়েছে তা আজও বন্ধ হয়নি। কিন্তু এটা এমন একটি বিষয়, যেখানে ইমোশন প্রকটভাবে কাজ করে। কাজেই বক্তব্য দিতে গিয়ে আমি আবেগপ্রবণ হয়ে গেলে মাফ করে দেবেন। এই বিষয় নিয়ে কথা বলতে গেলে চোখের পানি আসবেই। ৬১ জন সাক্ষীর মধ্যে পিডব্লিউ ১, পিডব্লিউ ২, পিডব্লিউ ৩ এবং পিডব্লিউ ৪ যা বলে গেছেন, তা যেকোনও মানুষ শুনলে তার চোখের পানি ঝরবেই।’
সংসদে উত্থাপিত সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি সময়োপযোগী বলে মনে করেন আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘যে প্রস্তাব আনা হয়েছে, তার আগেই মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিয়েছে। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডে যারা সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি, তাদের ফিরিয়ে আনতে একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। গত ৩১ মে সেই টাস্কফোর্সের সভা হয়েছে।’
ওই বৈঠকের কার্যবিবরণী তুলে ধরে আনিসুল হক বলেন, ‘সভায় দন্ডপ্রাপ্তদের নামে রক্ষিত সব স¤পত্তি খুঁজে বের করার আলোচনা হয়। কিন্তু প্রস্তাবটি যেন কার্যকর হয়, তার জন্য বিস্তারিত আলোচনা করতে চাই না। কারণ আলোচনার বিষয়টি খবরের কাগজে প্রকাশিত হলে যে স¤পত্তির পেছনে আমরা আছি, তার কাগজ বদল হয়ে যেতে পারে। এটা বাংলাদেশের ইতিহাসে হয়েছে।”
এ সময় আইনমন্ত্রী সম্প্রতি মারা যাওয়া বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বাদি মুহিতুল ইসলামের দেওয়া সাক্ষ্যের কিছু অংশ তুলে ধরেন। আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বাংলাদেশে স¤পত্তি রাখার অধিকার নেই। এটা বাংলাদেশের জনগণ বিশ্বাস করে। সেই আলোকে তাদের যেখানে স্থাবর-অস্থাবর স¤পত্তি পাওয়া যাবে তা বাজেয়াপ্ত করা হবে। আইনের ধারা বজায় রেখে যাদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়ে গেছে তাদের স¤পত্তি কিন্তু আইন মাফিক বাজেয়াপ্ত করতে হবে। কারণ আইনত যেদিন রায় কার্যকর করে তাদের ফাঁসি দেওয়া হয়েছে, সেই মুহূর্ত থেকে তাদের স¤পত্তি তাদের ওয়ারিশের কাছে চলে গেছে। কাজেই এখন এই রায় ও আইনের মাধ্যমে এই স¤পত্তি ফিরিয়ে আনতে হবে। এজন্য কিছুটা সময় লাগবে।’
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যারা পলাতক, তাদের স¤পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে নতুন কোনও আইনের প্রয়োজন হবে না। সেজন্য টাস্কফোর্স আগে পলাতক আসামিদের স¤পত্তি বাজেয়াপ্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে। তাই আমি স্বস্তির সঙ্গে বলতে পারি, সংসদে যে প্রস্তাবটি উঠেছে, তার কাজ শুরু হয়েছে। যারা পলাতক, প্রথমে তাদের স¤পত্তি বাজেয়াপ্ত করব। পরে আইনের মাধ্যমে আমরা অন্যদের স¤পত্তিও বাজেয়াপ্ত করব। কারণ আমরা সবাই বিশ্বাস করি, যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারে, তাদের বাংলাদেশে স¤পত্তি থাকার অধিকার নেই।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com