1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৭:১১ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

সুনামগঞ্জ পৌর ও সদর থানা ছাত্রলীগ : এক যুগ ধরে কমিটি হয় না

  • আপডেট সময় রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

বিশেষ প্রতিনিধি ::
দীর্ঘ এক যুগ ধরে সুনামগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগ ও সদর থানা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠন হয়নি। জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ এই দুটি ইউনিটের কমিটি না হওয়ায় নতুন নেতৃত্ব বেরিয়ে আসতে পারছে না। দুটি ইউনিটের নেতারা বর্তমানে অন্য সংগঠনগুলোর সঙ্গে জড়িত।
ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ ২০০৪ সালের কাছাকাছি সময়ে সুনামগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগ ও সদর থানা ছাত্রলীগের কমিটি গঠিত হয়। পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি এমরানুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রুমিত এবং সদর থানা ছাত্রলীগে সভাপতি হিসেবে পঙ্কজ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিয়ামুল বাশার পাপ্পু দায়িত্ব পান। জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি তনুজ কান্তি দে ও সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী উজ্জ্বল এক বছরের জন্য এই দুই ইউনিটের কমিটি অনুমোদন করেন। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ২০০৫ সালেই দুটি ইউনিটের মেয়াদ শেষ হয়।
দায়িত্ব পাওয়ার পর চার নেতা রাজপথে থেকে দীর্ঘ অর্ধযুগের বেশি সময় নেতৃত্ব দেন। পরবর্তী পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রুমিত যুক্তরাজ্যে চলে যান। সভাপতি এমরানুল হক চৌধুরী ২০১২ সালে পৌর যুবলীগের আহ্বায়কের দায়িত্ব পান। এখন তিনি জেলা আওয়ামী লীগের নেতা।
সদর থানার সভাপতি বিবাহিত পঙ্কজ চৌধুরী বর্তমানে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত নন। তিনি অন্য সংগঠনগুলোর রাজনীতিতে বেশি সক্রিয়। সাধারণ সম্পাদক নিয়ামুল বাশার পাপ্পু বিয়ে করে বর্তমানে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন। দুই ইউনিটের অন্য নেতাদের প্রায় সবাই বিবাহিত এবং চাকরি, ব্যবসাসহ নানা পেশায় জড়িত। ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়। সর্বশেষ পাঁচ বছরেও ছাত্রলীগের ব্যানারে তাদের রাজপথে দেখা যায়নি।
নেতাকর্মীরা জানান, একযুগেরও বেশি সময় ধরে জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ এই দুটি ইউনিটের সম্মেলন, কমিটি না হওয়ায় নতুন নেতৃত্ব বেরিয়ে আসতে পারছে না। সম্ভাব্য পদ প্রত্যাশীরা জেলা কমিটির দুই নেতার কাছে কমিটির জন্য ধরনা দিচ্ছেন। কিন্তু নানা কারণ দেখিয়ে জেলা কমিটি দুটি ইউনিটের নেতৃত্ব’র নতুন নেতাদের কাছে তুলে দিচ্ছে না।
জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ সুজন বলেন, কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এ বিষয়ে অবহিত আছেন। সুনামগঞ্জ পৌর, সদর থানাসহ অনেকগুলো নতুন ইউনিট কমিটি গঠনে ব্যর্থ হয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। আর যে দুয়েকটি ইউনিট কমিটি অনুমোদন করা হয়েছে তা নিয়েও নেতাকর্মীদের মধ্যে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের দাবি, সেপ্টেম্বর মাসের ভেতরে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ তৃণমূলের ত্যাগী, নিবেদিত, রাজপথে সক্রিয় নেতাদের নিয়ে যেন নতুন জেলা কমিটি গঠন করেন।
পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা এমরানুল হক চৌধুরী বলেন, যুবলীগের পৌর কমিটির দায়িত্ব নেয়ার পর আমি ছাত্র রাজনীতির অধ্যায় শেষ করেছি। এখন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা অ্যাডভোকেট নূরে আলম সিদ্দিকী উজ্জ্বল বলেন, প্রায় এক যুগ আগে পৌর ও সদর থানা ছাত্রলীগের দু’টি কমিটির অনুমোদন আমরা দিয়েছিলাম। এরপরে আর কোন কমিটি হয়নি। ছাত্র রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ দুটি ইউনিটের সম্মেলন ও কমিটি না হওয়ায় নতুন নেতৃত্ব বেরিয়ে আসতে পারছে না। জেলা শহরে কর্মসূচির লোকসমাগমের জন্য জেলা নেতৃবৃন্দকে অন্যান্য উপজেলা থেকে নেতাকর্মীদের আনতে হয়। এর মূল কারণ এই দুটি ইউনিটে নতুন কমিটি না হওয়া।
জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী বলেন, ‘এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের পরামর্শ মোতাবেক শুধু দু’টি ইউনিটই নয়, যেসব ইউনিটে কমিটি দেয়া হয়নি সেগুলোতে কমিটি দেয়া হবে।’
এ বিষয়ে জানতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com