1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

সুনামগঞ্জ জেলার আলোকিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জনতা মহাবিদ্যালয়কে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে জাতীয়করণের অন্তর্ভুক্ত করা হোক

  • আপডেট সময় রবিবার, ৭ আগস্ট, ২০১৬

মো. আখলাকুর রহমান ::
সারাদেশে ১ম দফায় ৩১৫টি কলেজ জাতীয়করণের তালিকায় সিলেট শিক্ষাবোর্ডের প্রথম সারির অন্যতম কলেজ সুনামগঞ্জ জেলার জনতা মহাবিদ্যালয় উপেক্ষিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, অভিভাবক, পরিচালনা কমিটি এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার সুবৃহৎ জনগোষ্ঠীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। তারা মনে করছেন গ্রামীণ জনপদে ঈর্ষণীয় মাত্রায় ঐতিহ্য সৃষ্টিকারী এ উচ্চ শিক্ষাঙ্গনটি যেন এ ক্ষেত্রে অপ্রত্যাশিত এক বৈষম্যের শিকারে পরিণত হয়েছে।
ছাতক উপজেলার বিস্তৃত দক্ষিণাঞ্চলের কেন্দ্রবিন্দু ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ জনপদ মঈনপুরে সর্বস্তরের এলাকাবাসীর উদ্যোগে ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় জনতা মহাবিদ্যালয়। সূচনালগ্ন থেকেই এলাকার শিক্ষা বিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি। শত শত অসচ্ছল পরিবারের অসংখ্য ছেলে-মেয়েরা এ মহাবিদ্যালয়ে লেখাপড়া করার সুযোগ পেয়ে নিজেদের জীবনমান উন্নয়নের পাশাপাশি সমাজ ও রাষ্ট্রের অগ্রগতিতে অবদান রাখার সক্ষমতা অর্জন করে চলেছে। অন্যথায় স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষা লাভের কোন সুযোগই ছিলো না তাদের।
শুরু থেকেই একদল উদ্যমী সংগঠক ও নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষকদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় শিক্ষার গুণগত মান অর্জনে সচেষ্ট রয়েছে এ উচ্চ শিক্ষালয়টি। বিশেষ করে গত এক দশক ধরে পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে উৎকৃষ্ট ফলাফল অর্জন করে সে তার অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখে চলেছে। ২০০৬ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় সিলেট শিক্ষাবোর্ডে ১০ম স্থান এবং ২০১৪ সালে ১৬তম স্থান অর্জনকারী এ কলেজটি সর্বশেষ গত পাঁচ বছরে অর্থাৎ ২০১১ সালে ৭১%, ২০১২ সালে ৮৬%, ২০১৩ সালে ৮২%, ২০১৪ সালে ৯৭% এবং ২০১৫ সালে ৯৫% ফলাফল অর্জন করে সুনামগঞ্জ জেলার শীর্ষ অবস্থানটি ধরে রেখেছে। ছাতক উপজেলার এ কলেজটি তাই সিলেট শিক্ষা বোর্ডের শীর্ষ কলেজগুলোর তালিকায়ও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
পর্যাপ্ত ভূমি, যুৎসই ভৌত অবকাঠামো, যুগোপযোগী পাঠদান ব্যবস্থা, শিক্ষাবান্ধব পরিবেশ, ছাত্র-শিক্ষক সংখ্যাসহ প্রয়োজনীয় সকল যোগ্যতাই রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। সংগত কারণেই জনতা মহাবিদ্যালয় সরকারের চলমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ নীতিমালার আওতায় সারা জেলার মধ্যে অগ্রাধিকার তালিকার শীর্ষে অবস্থানের দাবি রাখে।
দেশে এক সাথে এতগুলো কলেজ জাতীয়করণের ঘোষণা শিক্ষা ব্যবস্থার ইতিহাসে এক বিরল দৃষ্টান্ত। অথচ কলেজগুলো নির্বাচনের ক্ষেত্রে সৃষ্ট অনিয়মগুলো এ বিশাল উদ্যোগটাকেই যেনো আঁতুড় ঘরে গলাটিপে ধরতে উদ্যত হয়েছে বলা যায়।
প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সরকারি কলেজ নেই এমন সব উপজেলায় প্রথম দফায় একটি করে স্কুল ও কলেজ সরকারিকরণ করা হচ্ছে, নিঃসন্দেহে এটা এক অতিপ্রশংসনীয় সিদ্ধান্ত। তবে প্রতিষ্ঠানগুলো নির্বাচনের বেলায় শুরুতেই যে অদক্ষতা দেখা দিলো, তা পুরো উদ্যোগের জন্যেই যেনো হয়ে গেছে আত্মঘাতি!
তা কেনো হবে? পর্যায়ক্রমে সবগুলো প্রতিষ্ঠানকেই তো জাতীয়করণের সরকারি পরিকল্পনা রয়েছে। সে জন্য একটা অগ্রাধিকার তালিকা তৈরি করা তো তেমন কোন কঠিন বিষয় ছিলো না। শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের জন্য সুনির্দিষ্ট কিছু মাপকাঠি রয়েছে। সে অনুযায়ী সরকারি কিছু নীতিমালা ও রয়েছে। অধিকিন্তু সম্প্রতি দেশের সর্বোচ্চ আদালতে কলেজ সরকারিকরণ সংক্রান্ত একটা মামলার রায় ও পর্যবেক্ষণে যে মানদন্ডগুলো অনুসরণের কথা বলা হয়েছে, এর বাইরে যাওয়ার তো প্রয়োজন ছিলো না?
সোজা কথায়, সরকারি কলেজবিহীন উপজেলাগুলোতে সুনির্দিষ্ট মানদন্ড অর্জনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর অগ্রাধিকার তালিকা তৈরি করে শীর্ষ প্রতিষ্ঠানকে বেছে নিলে তো আর কোন কথা থাকে না। এভাবে ধাপে ধাপে আপডেট অগ্রাধিকার তালিকা তৈরি করে জাতীয়করণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখলে ন্যায্যতা ক্ষুণœ হওয়ার আশঙ্কাও থাকবে না। আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো জাতীয়করণের মতো মহৎ ও মহাকর্মযজ্ঞ বাস্তবায়নে কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতাও সৃষ্টি হবে না। এর যে কোন বিকল্প নেই Ñ শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে এ বিষয়টা মাথায় রাখতে হবে।
শেষ কথা : জনতা মহাবিদ্যালয়কে তার ন্যায্য পাওনা থেকে নিষ্ঠুরভাবে বঞ্চিত করা হয়েছে।
[লেখক : অধ্যক্ষ, জনতা মহাবিদ্যালয়, ছাতক, সুনামগঞ্জ।]

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com