1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01711-368602

প্রাথমিক শিক্ষা ও শিক্ষকের করণীয়

  • আপডেট সময় বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০১৬

সমর চক্রবর্ত্তী
আমরা জানি, শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। সেই শিক্ষা যদি যথাযথ না হয় তাহলে জাতি কখনও উন্নত হতে পারবে না। বর্তমান প্রেক্ষাপটে যোগ্যতাভিত্তিক শিক্ষাক্রমে পড়ানো খুবই ভালো। তার কিছু চ্যালেঞ্জও রয়েছে। আমরা সৃজনশীল প্রশ্নের আলোকে ছাত্রদেরকে তৈরি করবো। ভালো কথা, বললেই কি তা হবে? সে বিষয়ে আমাদের অবগত হওয়া দরকার।
যোগ্যতাভিত্তিক আর সৃজনশীল আমরা যাই বলি না কেন, আমাদের আগে মৌলিক বিষয়ে জ্ঞান দরকার। প্রথমেই ধরা যাক বাংলা বিষয়। একটি ছাত্র যদি বর্ণ চিনতে না পারে ‘কার’ চিহ্ন না চিনে, শব্দের অর্থ না জানে, বাক্য গঠন করতে না পারে এবং সঠিক নিয়মে লিখতে না পারে তবে তাকে দিয়ে আমরা কী প্রশ্নের উত্তর আশা করতে পারি। যেমন ধরা যাক, চতুর্থ শ্রেণির একটি প্রশ্ন “যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে” বলতে কী বুঝানো হয়েছে? পাঁচটি বাক্যে লেখÑ
এই প্রশ্নের উত্তর পাঠে কোথাও সরাসরি নেই। বেশির ভাগ ছাত্র, অভিভাবক ও শিক্ষক সহায়ক বই ব্যবহারের চিন্তা করেন। এটাই স্বাভাবিক। এই প্রশ্নের উত্তর দিতে হলে কী করতে হবে?
প্রথমেই কবিতাটি ভালো করে পড়তে হবে, তার অর্থ বুঝতে হবে, তার মূলভাব জানতে হবে, শব্দের অর্থ জানতে হবে। এগুলো ভালোভাবে আয়ত্ত্ব করতে পারলেই সে উক্ত প্রশ্নের উত্তর পাঁচটি বাক্যে লিখতে পারবে।
এভাবে প্রতিটি বিষয় সম্পর্কে ভালো ধারণা না থাকলে সে উত্তর দিতে পারবে না অর্থাৎ তার যোগ্যতা অর্জিত হলো না।
ধরুন, গণিত বিষয়ের একটি প্রশ্ন যা পাঠ্যবইয়ে নেই। প্রশ্নটি হলোÑ একজন কৃষকের ৫০টি মুরগি এবং কিছু গরু রয়েছে। প্রাণিগুলোর সব নিয়ে ১৬০টি পা আছে।
ক. একটি গরু ও একটি মুরগীর মোট কয়টি পা আছে?
খ. ৫০টি মুরগীর কয়টি পা আছে?
গ. কৃষকের গরুর সংখ্যা কত?
ঘ. কৃষকের গরু ও মুরগীর সংখ্যার পার্থক্য কত?
দেখুন এখানে সমস্যাটির সমাধানে চারটি প্রক্রিয়াই ব্যবহার করতে হবে। যোগ, গুণ, ভাগ, বিয়োগ। যদি ছাত্রটি সেই চারটি প্রক্রিয়া সঠিকভাবে জেনে থাকে তার জন্য এ সমস্যাটি কোন সমস্যাই নয়।
কিন্তু, বাস্তবে উক্ত সমস্যা পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রদের দিলে শতকরা ৫-১০ জন উত্তর করতে পারবে। বাকিরা পারবে না। আমার ধারণাটি সঠিক নাও হতে পারে তবে আপনারা মিলিয়ে দেখবেন অনুরোধ রইলো।
এবার ইংরেজি বিষয়ে কথা বলি। যেখানে আমাদের দেশের ৫ম শ্রেণির ৯০% স্কুলে ছাত্ররা ভালোভাবে ইংরেজি জবধফরহম পারে না সেখানে কিভাবে আমরা ৫ম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষায় ১০.১১.১২ নং প্রশ্নের উত্তর আশা করি। এ সমস্ত প্রশ্ন কাঠামো পাঠ্যবইয়ে দেয়া নেই। তাছাড়া ঞবহংব সম্পর্কে যে জানে না, সে কিভাবে সঠিক বাক্য কাঠামো ও ঞবহংব মেনে উত্তর লিখবে। তবে বলতে পারেন বিদেশিরা ইংরেজি এৎধসসধৎ-এর ব্যবহার না করেই কথা বলতে পারে। সে রকম পাঠ্যবই বা ঝঢ়বধশরহম ঝপড়ঢ়ব কিন্তু আমাদের নেই।
শিক্ষকের করণীয় :
শিক্ষকের করণীয় বিষয়ে যাওয়ার আগে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছি। আরও স্মরণ করছি প্রাথমিক শিক্ষার সাথে জড়িত মন্ত্রী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দকে।
বর্তমান শিক্ষকদের পদমর্যাদা ও আর্থিক সুবিধা অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। শুধু তাই নয়, বেসরকারি অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক থেকে কলেজ পর্যন্ত সরকারিকরণ হচ্ছে। জাতির জনকের শুরু করা কাজকে বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পন্ন করছেন। এই উদ্যোগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
এখন পূর্বের কথায় ফিরে আসি- শিক্ষকদের করণীয় বিশেষ করে প্রাথমিক শিক্ষার শিক্ষকের কথা।
১. আন্তরিকতা : আমাদের বিদ্যালয়গুলোতে অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তা সত্ত্বেও আমরা যদি আন্তরিকতার সাথে কাজ করি তাহলেই মোটামুটি স্থানে অর্থাৎ মাঝামাঝি একটি অবস্থায় পৌঁছানো সম্ভব। একদিনে তো পরিবর্তন সম্ভব নয়, তবে আমরা শুরু করবো এখন থেকেই এটাই আমাদের অঙ্গীকার হোক।
২. নিয়মিত পাঠ পরিকল্পনা প্রণয়ন ও পাঠদান : প্রতিদিন যদি আমরা পাঠ পরিকল্পনা ও উপকরণ নিয়ে নিয়মিত পাঠদান করি তাহলে আকর্ষণীয় পাঠদান হবে। এভাবে যদি মাসের কার্য দিবসগুলোতে নিয়মিত পাঠদান করি তা জাতির কাক্সিক্ষত লক্ষ্য অর্থাৎ শিক্ষাক্রম অর্জিত হবে। আর তাহলেই আমাদের প্রান্তিক যোগ্যতা অর্জিত হবে।
৩. ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনা : ধরুন, একটি বিদ্যালয়ে ৮ জন শিক্ষক রয়েছেন। তন্মধ্যে শারীরিক শিক্ষা, চারুকারু ও সংগীত বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক এখন প্রতি স্কুলেই রয়েছেন। আমরা প্রতি সপ্তাহে ১ দিন নিয়মিত কাজটা করি। আর এ কাজগুলো করতে পারলেই আমাদের শিক্ষার্থীরা আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আশা রাখি।
৪. কাব কার্যক্রম পরিচালনা : বেশিরভাগ বিদ্যালয়েই কাবদল রয়েছে। আমরা সঠিকভাবে ছাত্রছাত্রীদেরকে কাব কার্যক্রমে অংশগ্রহণের মাধ্যমে তাদেরকে সৎ, যোগ্য, দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলব।
সর্বোপরি, উপর্যুক্ত বিষয়গুলো আমার ব্যক্তিগত কাজের এবং অভিজ্ঞতার আলোকে উপস্থাপন করেছি।
[লেখক : প্রধান শিক্ষক, উজানীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দ. সুনামগঞ্জ]

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com