1. dailysunamkantha@gmail.com : admin2017 :
  2. editor@sunamkantha.com : Sunam Kantha : Sunam Kantha
মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০২:৩৭ অপরাহ্ন
ঘোষণা ::
সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা সুনামকন্ঠে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন। আমাদের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন - 01867-379991, 01716-288845

এএসডি, সুনামগঞ্জ আয়োজিত সভায় বক্তারা : ‘জলবায়ু পরিবর্তনে হাওরাঞ্চলের ফসল বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে’

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৩১ মে, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার ::
‘শিল্পউন্নত দেশগুলোর শিল্পায়নের কারণে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে। শিল্পায়নের প্রভাবে জয়বায়ু পরিবর্তনে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। বিশেষ করে হাওরাঞ্চলের এক ফসলি জমির ফসল বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। প্রতিবছর অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি ও অকাল বন্যায় একমাত্র বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়। মূলত জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেই প্রাকৃতিক বিপর্যয় মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। এ জন্য সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই।’
গতকাল সোমবার সকালে শহীদ জগৎজ্যোতি পাঠাগার মিলনায়তনে স্থানীয় অভিযোজন পরিকল্পনা, জলবায়ু তহবিল বণ্টনে ন্যায্যতা এবং প্যারিস জলবায়ু চুক্তির বাস্তবায়নের দাবিতে সিলেট বিভাগীয় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
বিশিষ্ট সাংবাদিক আবেদ মাহমুদ চৌধুরী’র সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বদরুল কাদির শিহাব, পৌর প্যানেল মেয়র হোসেন আহমদ রাসেল।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংবাদিক লতিফুর রহমান রাজু, সাংবাদিক বিন্দু তালুকদার, এনসিসি’র সদস্য জসিম, জাকারিয়া জামান তানভীর, মোজাহিদুল ইসলাম মজনু প্রমুখ।
বেসরকারি সংস্থা ‘এএসডি, সুনামগঞ্জ’-এর আয়োজনে ও নেটওয়ার্ক অন ক্লাইমেট চেঞ্জ, বাংলাদেশ ট্রাস্ট-এর সহযোগিতায় সভা সঞ্চালনা করেন এনসিসি বি ফোরাম সুনামগঞ্জ-এর সদস্য সচিব মদরিছ মিয়া চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মিরাজ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, পৌর কাউন্সিলর সুজাতা রানী রায়, শেলী চৌহান ময়না, জাহানারা বেগম প্রমুখ।
সভায় বক্তারা আরও বলেন, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগিতা এবং জলবায়ু অর্থায়ন সমন্বিতভাবে ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। প্যারিস চুক্তি এক্ষেত্রে যেমন সম্ভাবনার সৃষ্টি করেছে তেমনি বাংলাদেশের প্রতি কিছু চ্যালেঞ্জও ছুঁড়ে দিয়েছে। এই চুক্তির ফলে নতুন নতুন কার্যক্রম এবং অর্থায়নের সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত হবে। তাই অবকাঠামো, নীতিমালা ও প্রাতিষ্ঠানিক উভয়ক্ষেত্রে পুনর্বিন্যাস ও বড় ধরনের প্রস্তুতির প্রয়োজন পড়বে। বিগত ছয় বছরে (২০০৯-১৫) বাংলাদেশ প্রায় ৩৮৫মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ এর রাজস্ব খাত থেকে ট্রাস্ট ফান্ডের আওতায় প্রকল্প বাস্তবায়ন এর জন্য বরাদ্দ দিয়েছে। এবং ২০১৫ সাল পর্যন্ত ট্রাস্ট বোর্ড প্রায় ২২১৩ মিলিয়ন বাংলাদেশি টাকার ৩২৯টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। যদিও তার মধ্যে এখনো ৪৮টি প্রকল্প অর্থছাড়ের অনুমোদন পায়নি। বরাদ্দকৃত ২৮১টি প্রকল্প পর্যালোচনা করে দেখা যায় ট্রাস্ট বোর্ড-অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প যেমন- পোল্ডার, বাঁধ মেরামত এবং নদীর তীর রক্ষণাবেক্ষণ মূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়নে বেশি অগ্রাধিকার প্রদর্শন করেছে। জলবায়ু তহবিলের ন্যায্য বণ্টন নিশ্চিত করতে সবাইকে আরো সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান বক্তারা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© All rights reserved © 2016-2021
Theme Developed By ThemesBazar.Com