মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

Notice :

দেখার হাওরে নিয়ম বহির্ভূত বাঁধ নির্মাণ : ঘটনাস্থলে দুদকের অনুসন্ধান দল

স্টাফ রিপোর্টার ::
দেখার হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ না করে জলমহালের মালিকদের সঙ্গে আঁতাত করে প্রকল্পের বাইরে ১ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকার ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণের ঘটনায় আদালতের দায়েরকৃত মামলার পর অবশেষে দুদক কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে সিলেট দুর্নীতি দমন কমিশনের কার্যালয়ের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসে কাজের পরিমাপ করেন এবং স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন।
অভিযোগ থেকে জানা গেছে, ২০১৮ সনে দেখার হাওরের ফসলরক্ষায় বাঁধ নির্মাণ না করে মোল্লাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল হক, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী আশরাফুল সিদ্দিকী এবং সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার আতিকুর রহমান যোগসাজশে হাওররক্ষা বাঁধের টাকায় নিয়মবহির্ভূত একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন। তারা দেখার হাওরের মহাসিং নদীর তীরের নির্ধারিত বাধ নির্মাণ না করে চেয়ারম্যান নূরুল হকের ঘনিষ্ঠ একটি জলমহালের মালিকের সঙ্গে আঁতাত করে প্রকল্পের বাইরে দরিয়াবাজ গ্রামের উত্তর-দক্ষিণ পর্যন্ত বাঁধ নির্মাণ করে। এই বাঁধ নির্মাণের ফলে একটি বড় জলাশয় সৃষ্টি হয়। এতে জলাশয়ের ইজারাদারের আর্থিক লাভ হয়। এ ঘটনা প্রত্যক্ষ করে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন কৃষকরা। তারা আন্দোলন করেন। পরে এলাকার কৃষকের স্বার্থে কয়েকজন কৃষক জজ কোর্টে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে দুদককে নির্দেশ দেন।
সিলেট দুদকের উপসহকারী পরিচালক জুয়েল মজুমদার ও সহকারী পরিচালক সানোয়ার হোসেনসহ কয়েকজন কর্মকর্তা মঙ্গলবার দুপুরে দরিয়াবাজ গ্রামে এসে কাজের পরিমাপ করেন এবং স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। স্থানীয়রা অনিয়ম ও দুর্নীতির নানা ঘটনা তুলে ধরেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সবিবুর রহমান বলেন, এ ঘটনা আমি আসার আগের। তাই এ বিষয়ে কিছু জানিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী