মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন

Notice :

‘দাবায়ে রাখতে পারবা না’

:: বিজন সেন রায় ::
মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা সংগ্রামে প্রেরণা সৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ১৯ মিনিটের অবিনাশী কথামালার ভাষণটি বাঙালি জাতির মুক্তির দলিল। ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’- বঙ্গবন্ধুর এ প্রণোদনামূলক যুদ্ধ-স্লোগান ছিল বাঙালি জাতির মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা সংগ্রামের মূল হাতিয়ার। ভাষণটি শুধু বাঙালি জাতিকেই মুক্তির পথ দেখায়নি; সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষও মুক্তির প্রেরণা পেয়ে থাকে এখান থেকে। এর ব্যঞ্জনা ও তাৎপর্য অনেক গভীর। বঙ্গবন্ধু সেই ভাষণে বলেছিলেন- “সাত কোটি মানুষকে দাবায়ে রাখতে পারবা না। আমরা যখন মরতে শিখেছি, তখন কেউ আমাদের দমাতে পারবে না।” সেই ঐতিহাসিক শব্দমালার পরতে পরতে লুকিয়ে আছে মানবমুক্তির আকাক্সক্ষা। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে এই অবিনাশী বাণী আজো প্রাসঙ্গিক এবং বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। সুনামকণ্ঠ’র পথচলার সংগ্রামে এই ঐতিহাসিক কথামালা যেন একেবারে মিলে যায় এবং বাস্তবিক অর্থেই প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠে।
মুজিববর্ষের ঐতিহাসিক ক্ষণে দৈনিক সুনামকণ্ঠ ৬টি বছর পেরিয়ে আজ ৭ বছরে পদার্পণ করেছে। এই পথচলায় সুনামকণ্ঠ’র বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র হয়েছে, সুনামকণ্ঠকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা করেছে অপশক্তি, মামলা দিয়ে হয়রানিও করেছে। তাছাড়া স্বার্থান্বেষী মহলের নানা কূটকৌশল তো ছিলই। তবুও সুনামকণ্ঠ’কে ‘দাবায়ে’ রাখা যায়নি। আমরা সেই সব অপশক্তিকে জানান দিতে চাই ‘দাবায়ে রাখতে পারবা না’; সুনামকণ্ঠ সত্য প্রকাশে দ্বিধাহীন হয়ে এগিয়ে চলছে, এগিয়ে যাবে নিয়মিত প্রকাশনার মাধ্যমে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই শুভক্ষণে আমাদের প্রিয় পাঠক, বন্ধু ও শুভানুধ্যায়ীকে শুভেচ্ছা, ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
২.
প্রিয় পাঠক, সত্যি আপনাদের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতার কোনো সীমা নেই। আপনাদের সবার সহযোগিতা আর অংশগ্রহণ নিয়েই সুনামকণ্ঠ আজ আপনাদের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে, বিশ্বাস অর্জন করেছে। আমরা এ কথা ভেবে আপ্লুত যে, সুনামকণ্ঠ’র প্রচার সংখ্যা প্রতিবছরই বাড়ছে। তেমনি বেড়েছে পাঠক সংখ্যা। এখন ঘোর করোনাকালে বিশ্বজুড়া মানুষ নিজেই সত্যিকার অর্থেই বিপন্ন, অর্থাৎ এই পৃথিবীতে জীববৈচিত্র্যের সবচেয়ে বিকশিত অংশ মানুষ কোভিড-১৯ ভাইরাসের আক্রমণে বিপন্ন। কোভিড-১৯, যে-কোনও বিবেচনায়, প্রমাণ করেছে মানুষ সব থেকে বিপন্ন প্রজাতি। এই বিপন্নতা নিয়ে ধুঁকতে ধুঁকতে পৃথিবী এগিয়ে চলেছে, এগিয়ে চলেছে দৈনিক সুনামকণ্ঠও, কোভিড-১৯ এর আক্রমণের ধকল অঙ্গে ধারণ করে।
সেই ২০০১ সালের ১৩ জুলাই সাপ্তাহিক হিসেবে সুনামকণ্ঠ সুনামগঞ্জের বুকে ক্লান্তিহীন যাত্রা শুরু করে। একটি দিক বিবেচনা করলে, সুনামকণ্ঠ একটি দ্বিজ পত্রিকা, এর দুই বার জন্ম হয়েছে। দুই জীবনের বিগতটি সাপ্তাহিক ও পরেরটি, অর্থাৎ বর্তমানেরটি, দৈনিক। এই দুই জীবনের সুদীর্ঘসময় ব্যাপী সুনামকণ্ঠ বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে, সব দিক বিবেচনায় দেশের অন্যান্য জেলা থেকে পশ্চাদপদ একটি জেলা থেকে। প্রকৃতপ্রস্তাবে সুনামকণ্ঠের এই সংবাদসেবা ফেরি করে পথচলার কাহিনীটা সত্যিকার অর্থে একটি কঠিন সংগ্রামের ভেতর দিয়ে টিকে থাকার প্রাণান্তকর চেষ্টা। এই চেষ্টাটি করতে গিয়ে সুনামকণ্ঠ পারঙ্গতার সিঁড়ি ঠিকই ডিঙিয়েছে একটার পর একটা। এই সিঁড়ি ডিঙানোর কষ্টকর কাজে সুনামকণ্ঠের সহায়ক ছিলেন, প্রকৃতপ্রস্তাবে সাংবাদিকতায় হাত পাকা নয় এমন একদঙ্গল সাহসী ও সনিষ্ঠ সাংবাদিক। তাঁরা তাঁদের শ্রম ও নিষ্ঠা দিয়ে সুনামকণ্ঠকে পথ চলতে শক্তি যোগিয়েছেন। সেই সঙ্গে অগণিত পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভার্থীরা সুনামকণ্ঠকে দিয়েছেন বেঁচে থাকার প্রাণশক্তি ও প্রগতির পথে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণারূপ পাথেয়। তাঁদের সকলের প্রতি রইল সকৃতজ্ঞ সালাম ও প্রণাম।
৩.
সাপ্তাহিক সুনামকণ্ঠ যে আজকের দৈনিক সুনামকণ্ঠ হতে পেরেছে, এর পেছনে যাঁর অবদান- তিনি হলেন সুনামকণ্ঠ’র সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. জিয়াউল হক। তাঁর আন্তরিক সহযোগিতা ব্যতীত সুনামকণ্ঠ কখনোই আজকের সুনামকণ্ঠ হয়ে উঠতে পারতো না। তাঁকে আমরা অন্তরের অন্তস্থল থেকে ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
প্রকাশনার শুরু থেকেই আমরা চেয়েছি সুনামকণ্ঠ হবে স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ পত্রিকা। লক্ষ্য ছিল ‘সত্য প্রকাশে দ্বিধাহীন’ থাকবো। কোনো পক্ষপাত করব না। আমরা সেই লক্ষ্যেই অবিচল রয়েছি। আমাদের কাজ সমাজের অসংগতি তুলে ধরা, মানুষের চাওয়া-পাওয়া এবং দাবি-দাওয়া বিশ্বস্ততার সঙ্গে তুলে ধরা। আমাদের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সততার সঙ্গে, নিষ্ঠার সঙ্গে এবং বিনয়ের সঙ্গে সুনামকণ্ঠ সুনামগঞ্জের মাটি-মানুষের কথা তুলে ধরবে। আমরা এটাও অস্বীকার করছি না, সুনামকণ্ঠ’র কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি রয়েছে। তারপরও অকপটে বলা যায় যে, সুনামকণ্ঠ তার অভীষ্ট লক্ষ্যপথে চলার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। বস্তুনিষ্ঠ, নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশনের যে জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত সুনামকণ্ঠ স্থাপন করেছে তা ভবিষ্যতেও অক্ষুণ্ন থাকবে।
আপনাদের সবার ভালো হোক। আপনারা সুস্থ থাকুন। নিরাপদে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী