বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১২:৩১ অপরাহ্ন

Notice :

থামছে না সুরমার ভাঙন

আশিস রহমান ::
ভাঙা ঘরের মেঝেতে বসে কথা বলছিলেন পূর্ব মাছিমপুর গ্রামের বয়োবৃদ্ধ তিন নারী স্নেহলতা দাস, কমলা রানী দাস আর সুনীতি রানী দাস। এক এক করে শুনাচ্ছিলেন নিজের দুর্দশার কথা। সুরমা নদীর ভাঙন বাড়তে বাড়তে এখন তাদের বসতঘরের ভেতরে এসে হানা দিয়েছে। ঘরের অর্ধেক অংশ ভেঙে ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়েগেছে। এখন বাকিটুকুও বিলীন হওয়ার অপেক্ষায়। বিল্ডিং ঘরের পাকা মেঝেতে দেখা দিয়েছে বড় বড় ফাটল। অনেক কষ্টে উপার্জিত টাকায় বানানো নিজের এই ঘরে এখন আর কেউই থাকছেন না ভয়ে। বসতঘর, ভিটেমাটি হারানোর প্রস্তুতি নিয়ে নিয়েছেন তারা। ঘরের চালার টিনসেড, মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছেন। লাগোয়া আর কয়েকটি ঘর ছিল। সেগুলোও মাস দুয়েক আগে গ্রাস করে ফেলেছে সুরমা নদী। এবার এইটুকুও গ্রাস করার বাকি। চোখের সামনেই প্রতিনিয়ত দেখছেন নিজেদের ঘর ভাঙার দৃশ্য! স্বপ্নের সাজানো ঘর নিমিষেই বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদীর জলে। এখন তারা কোথায় যাবেন, কোথায় থাকবেন আর কেইবা তাদের আশ্রয় দেবে তার কোনো ভরসা পাচ্ছেন না কেউই! দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে সবার। যে-ই তাদের দুর্দশা দেখতে আসে সবাই বলে এখান থেকে ঘর অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাও, কিন্তু থাকার জায়গা দেয়না কেউ!
শুধু পূর্ব মাছিমপুরের এই তিন নারীর পরিবারই নয়, দোয়ারাবাজার উপজেলার সদর ইউনিয়নের মাছিমপুর, পশ্চিম মাছিমপুর, নৈনগাঁও, মাঝেরগাঁও, মুরাদপুর এবং মংলারগাঁওয়ের প্রায় শতাধিক পরিবার সুরমা নদীতে নিজেদের বসতঘর, ভিটেমাটি, ফসলিজমি ও গাছগাছালি হারিয়ে এখন বেছে নিয়েছে উদ্বাস্তু জীবন। সুরমা নদীর গ্রাসে ভেঙে চুরমার হয়েগেছে এসব পরিবারের সাজানো স্বপ্নের ঘর-সংসার। ভিটেমাটি হারিয়ে ভূমি না পেয়ে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছেন পরিত্যক্ত ব্রিটিশ সড়কে। সন্তান-সন্ততি নিয়ে সুন্দরভাবে বেঁচে থাকতে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে দেওয়া হোক, সরকারের কাছে এমনটাই দাবি নদী ভাঙনে উদ্বাস্তু ভূমিহীন অসহায় পরিবারের।
দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল বারী জানান, দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নটি উপজেলা সদরের ভেতরে পড়েছে। এই ইউনিয়নের ০৩নং ওয়ার্ডের মাছিমপুর, পশ্চিম মাছিমপুর, নৈনগাঁও, মাঝেরগাঁও, মুরাদপুর এবং মংলার গাঁওয়ের অবস্থা পূর্ব থেকেই খারাপ অবস্থা। নদী ভাঙনে এই গ্রামগুলোর প্রায় সিংহভাগই এখন বিলীন হয়েগেছে। প্রায় শতাধিক পরিবার বাস্তুভিটা হারিয়ে উদ্বাস্তু জীবন বেছে নিয়েছে। তারা পুনর্বাসন ও আশ্রয়ের দাবি জানিয়েছে। আমাদের কাছে ভূমিহীনদের জন্য সরকারি ঘরের বরাদ্দ পর্যাপ্ত সংখ্যক আছে। কিন্তু ঘর প্রদানের ক্ষেত্রে সরকারি নীতিমালার জটিলতার দরুণ ঘর দেওয়া যাচ্ছে না।
দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা জানান, দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের নদী ভাঙন কবলিত এই কয়েকটি গ্রামের অবস্থা খুবই করুণ। যাদের ঘর নেই কিন্তু খাসজমিতে বসবাস করে আসছে তাদেরকে খাসজমি বন্দোবস্তসহ ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে। কিন্তু সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলা সদরের এক কিলোমিটারের মধ্যে খাসজমি বন্দোবস্ত করার নিয়ম না থাকায় সদর ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকটি গ্রামের মানুষজনকে ঘর দেওয়া যাচ্ছে না। সদরের বাইরে ঘর নির্মাণ উপযোগী খাসজমি পাওয়া গেলে সেখানে তাদেরকে খাসজমি বন্দোবস্তসহ ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী