সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন

Notice :

ইয়াবা বাণিজ্য সমূলে নির্মূল করুন

বাংলাদেশে মদ একটি নিষিদ্ধ পণ্য, কেবল আইনের চোখে নয় ধর্মের চোখেও। কিন্তু তার ব্যবহারের ব্যাপকতা দেশজুড়ে। মানবসমাজে নেশাদ্রব্য হিসেবে মদের ব্যবহার অনেক পুরনো, সেই পৌরাণিক কাল থেকেই এর ব্যবহার চলে আসছে। এর ব্যবহার নিরোধকল্পে প্রশাসন প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। গতকালের (২৫ ডিসেম্বর ২০২০) দৈনিক সুনামকণ্ঠে যখন সংবাদ ছাপা হয়- ‘মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান ॥ ১৩ লিটার মদ, ৫শ পিস ইয়াবা জব্দ’ তখন দেশের ভেতরে মাদক ব্যবহারের মাত্রা বাড়বাড়ি পর্যায়ে উপনীত হয়েছে বলেই প্রতিপন্ন হয়। এই ‘বাড়াবাড়ি পর্যায়ে উপনীত হওয়া’কে আর আগের মতো যাচ্ছেতাই একটা তুচ্ছাতিতুচ্ছ মাতলামী বলে সেটাকে তেমন তোয়াক্কা না করার প্রবণতার মধ্যে প্রশাসনিক নিবারণ প্রচেষ্টাকে আটকে রাখা সঙ্গত নয়, বরং নিবারণ প্রচেষ্টাকে কঠোর না করা হলে প্রকৃতপ্রস্তাবে সমগ্র সমাজ ইয়াবার সর্বনাশা ছোবলে স্থবির হয়ে যাবার অবস্থায় উপনীত হবে। বর্তমানে চলমান উন্নয়নের গতিধারা আরও বেগবান করা দূরে থাক ধরে রাখার জন্যও মানবসম্পদ খোঁজে পাওয়া যাবে না, পাওয়া যাবে কেবল ইয়াবা নেশায় মত্ত ও অকেজো মরণ্নোখ মানবসম্পদ, অর্থনীতির নিরিখে যে-মানবসম্পদকে সম্পদ বলা যাবে না। ইয়াবা মানুষের কর্মক্ষমতা কেবল নিঃশেষ করে না, শেষ পর্যন্ত মানুষকে অবধারিত মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়। উপর্যুক্ত সংবাদটি দেশের প্রত্যন্ত গ্রামে ইয়াবার ব্যবহার দিনে দিনে বেড়ে চলেছে তার প্রমাণ উপস্থিত করছে। সমাজে মদের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার সমাজ হয় তো সহ্য করতে পারবে, কিন্তু ইয়াবার ব্যবহার মাত্রাতিরিক্ত হয়ে পড়লে সমাজ তা সহ্য করতে পারবে না, অনিবার্যভাবে ভেঙে পড়বে। ভেঙে পড়বে মানে, শ্রমশক্তির অধিকারী কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা সমাজে কমে যাবে, বিশেষ করে দেশের যুবশক্তি পুরোপুরি বিনষ্ট হবে। বিদগ্ধ মহলের ধারণা, এখনই যদি ইয়াবা ব্যবসাকে সমূলে নির্মূল না করা যায় তাহলে পরিণতিতে অবশ্যই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে হবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী